চন্দ্রাণী ২৭

0
70

#চন্দ্রাণী (২৭)
আকাশে মেঘের আনাগোনা। টগর উঠানে নেমে এলো। রাত প্রায় দশটা বাজে।মন কেমন আনচান করছে হুট করে। তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে আশেপাশে তাকালো টগর। মন বলছে অন্ধকার থেকে কেউ তাকে দেখছে।
কিন্তু কে!
তবে কি যার অপেক্ষায় ছিলো টগর সে এসেছে!
বেশিক্ষণ না দাঁড়িয়ে টগর ঘরে ফিরে এলো।
ঘরে গিয়ে তৈরি হয়ে নিলো টগর। ঠোঁটের কোণে মুচকি হাসি লেগে আছে তার।

চন্দ্র বাড়ি থেকে বেরিয়েছে খানিকক্ষণ আগে। তাকে যেভাবেই হোক টগরের বাড়িতে যেতে হবে। টগরকে সাবধান করতে হবে। টগরের থেকে ছবির রহস্য জানতে হবে।না হলে চন্দ্র শান্তি পাবে না।
মন থেকে ভয়-ডর সব উধাও হয়ে গেলো চন্দ্রর।এতো রাতে একটা ছেলের কাছে যাচ্ছে ভেবে একটুও ভয় লাগছে না তার।
জীবন তাকে নিয়ে যেই খেলা খেলতে শুরু করেছে তার কাছে এসব কিছুই না।

চন্দ্র বোরকা পরে বের হয়েছে যাতে কেউ না চিনতে পারে তাকে।
আব্বাকে দেখেছে ঘরে নেই।আব্বা না থাকায় চন্দ্রর জন্য বের হতে অসুবিধা হয় নি।টগরের ফোনটা যদি অন থাকতো তাহলে আর এতো রাতে চন্দ্রকে বের হতে হতো না।

দরজায় ঠকঠক শব্দ হতেই চমকে উঠে টগর। ঘরের সব জানালা খুলে রেখেছে সে।সব রকম আক্রমণের জন্য তৈরি হয়ে অপেক্ষা করছে টগর।
কিন্তু শত্রু এভাবে দরজায় কড়া নাড়বে তা টগর ভাবে নি।

নিজের উত্তেজনা সামলে নিয়ে টগর উঠে গেলো দরজা খুলতে। দরজা খুলতেই দেখে আপাদমস্তক ঢাকা একজন মহিলা দাঁড়িয়ে আছে সামনে।
এক মুহূর্তের জন্য টগর ভীষণ চমকালো।
এ-কে তো টগর এক্সপেক্ট করে নি এই মুহূর্তে!

অস্ফুটস্বরে বললো, “আপনি এখানে!এতো রাতে একা আমার বাড়িতে!
কি হয়েছে? ”

চন্দ্র হাঁপাতে হাঁপাতে বললো, “বলছি,আগে একটু জিরিয়ি নিই।এক গ্লাস পানি!”

টগর দ্রুত পানি এনে দিলো চন্দ্রকে।ঢকঢক করে সবটা পানি পান করলো চন্দ্র।মেইন রাস্তা থেকে টগরের বাড়ি একটু ভেতরের দিকে। বাড়ির রাস্তায় নামতেই চন্দ্রর কেমন ভয় ভয় লাগছিলো। মনে হচ্ছিলো আশেপাশে কে আছে যেনো।

টগর নরম সুরে বললো, “ভয় পেয়েছেন না-কি?আপনি তো যথেষ্ট সাহসী মেয়ে,এভাবে ভয় তো আপনার পাওয়ার কথা না। ”

চন্দ্র চমকে বললো, “আপনি কিভাবে জানলেন?”

টগর হেসে বললো, “যেই মেয়ে রাতের অন্ধকারে আমার আর নিয়াজের পিছু নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের নিয়ে ডকুমেন্টারি করতে পারে, একটা টপ চ্যানেলের ক্রাইম রিপোর্টার হতে পারে। সে ভয় পাবে এটা আমি বিশ্বাস করবো?”

চন্দ্র ভয়াবহভাবে চমকালো এবার।ইতস্তত করে বললো, “আপনি কিভাবে জানলেন? ”

টগর হাসতে লাগলো। হাসতে হাসতে বললো, “আপনি যে একজন শখের মিতিন মাসী সেটা আমি সন্দেহ করেছি যেদিন ইন্সপেক্টর নির্ঝরের সাথে আপনি আমার বাড়িতে এসেছেন।তারপর যেদিন টিভিতে একটা ডকুমেন্টারি প্রচার হলো সেদিন আমার সর্বপ্রথম সন্দেহ হলো আপনাকে।আর সেই সন্দেহ দৃঢ় বিশ্বাসে রূপ নিলো তারপরই।আপনি যখন আমার বাসায় ক্যামেরা ফিট করে রেখেছিলেন।”

চন্দ্র ভীষণ বিব্রত হলো।এতটা সে আশা করে নি। সে যে ক্রাইম রিপোর্টার এটা সে কাউকে জানায় নি। অথচ এই মানুষটা জেনে গেলো!
কিভাবে?

টগর হেসে বললো, “আচ্ছা বলুন, এতো রাতে কি মনে করে? নিশ্চয় সিরিয়াস কিছু হয়েছে! ”

চন্দ্রর ভীষণ অবাক লাগলো। এই মানুষটাকে সে এতো যেমন মাতাল,ছন্নছাড়া,লাগামহীন ভেবেছিলো এখন মনে হচ্ছে এই মানুষটা যথেষ্ট বুদ্ধিমান।
মনে হচ্ছে সব তার ভান।নয়তো কিভাবে জানবে সে চন্দ্রর সম্পর্কে!

নিজেকে সামলে চন্দ্র বললো, “আপনার অনেক বড় বিপদ। আমার মনে হচ্ছে আপনার মৃ//ত্যু ঝুঁকি আছে। ”

টগর হেসে বললো, “আমার বিপদের কথা চিন্তা করে আপনি এতো রাতে ছুটে এসেছেন? ”

চন্দ্র কিছু বললো না। কিছুক্ষণ তাকিয়ে থেকে বললো, “আপনার কাছে আমার কিছু জানার আছে। ”

টগর বললো, “কি বলুন।”

চন্দ্র ছবিটা বের করলো। তারপর টগরের দিকে বাড়িয়ে দিলো ছবিটা।
এক দৃষ্টিতে টগর ছবিটার দিকে তাকিয়ে রইলো।
তার মাথা ঝিমঝিম করছে।

এই ছবি চন্দ্রর কাছে কিভাবে গেলো!
চন্দ্র কি তাহলে!

হতচকিত হয়ে টগর চন্দ্রর দিকে তাকালো।

চন্দ্র বললো, “এই ছবিতে আপনি কিভাবে এলেন?আমার পাশের এই ছেলেটা কে?আপনি এই ছবিতে কেনো?”

টগর মুচকি হাসলো। তারপর উঠে গিয়ে নিজের এলবাম নিয়ে এলো।
এলবাম খুলে একটা ছবি বের করলো। চন্দ্র অবাক হয়ে তাকিয়ে রইলো সেদিকে।

টগর ম্লানসুরে বললো, “আপনি যাকে আমি ভেবেছেন, তা আমার না আমার বাবার ছবি।আমি দেখতে হুবহু আমার বাবার মতো হয়েছি।”

চন্দ্রর হুঁশ হলো ততক্ষণে। আসলেই তো!এটা তো তার ছোট বেলার ছবি।সেখানে যদি টগর এখনকার বয়সী হয়ে থাকে তাহলে তো এতো বছরে টগরের আরো বয়স্ক হয়ে যাওয়ার কথা।তার বাবার বয়সী হওয়ার কথা।আর আব্বা মা ও তো এই ছবিতে ভীষণ অল্পবয়সী।
এই ব্যাপারটা চন্দ্রর মাথায় এলো না কেনো?

টগরের বের করা ছবিতে চন্দ্র এবার স্পষ্ট টগরের মুখ দেখতে পাচ্ছে। এই একটা ছবিতে টগরের শুধু মুখে রুমাল দেওয়া নেই।

টগর বললো, “আমার মা আমাকে কখনো বলেন নি মেয়েটি আপনি ছিলেন।সবসময় বলতেন খুব ছোট বেলায় আমাকে একটা পরীর সাথে বিয়ে করায়।
তারপর পরীটা উড়ে উড়ে তার পরীর রাজ্যে চলে যায়।ঠিক কেনো পরীটা আমাকে ছেড়ে চলে যায় মা আমাকে তা জানায় নি।এই ছবিটি ছাড়া আমার কাছে আর অন্য কোনো ছবি নেই।আপনার আব্বা মা সহ কোনো ছবি ও নেই।আমি অনেক খুঁজেছি একটা সময় জানতে যে কে সেই মেয়েটা যে আমার বউ।ছোট বেলায় বিয়ে হওয়ার পর কেনো সে হারিয়ে গেলো আমি জানি না।”

চন্দ্রর পায়ের নিচের মাটি সরে যাচ্ছে যেনো।কি শুনছে সে এসব!
আব্বা কেনো এতো কিছু লুকাচ্ছে তার কাছ থেকে?
আব্বার সাথে তাহলে টগরদের সাথে ও ভালো সম্পর্ক ছিলো।অনেক ভালো সম্পর্ক না থাকলে তো ছেলে মেয়েদের বিয়ে দিতেন না ছোট বেলাতেই।
তাহলে কি এমন হয়েছিলো যে সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায়!

টগর মুগ্ধ চোখে তাকিয়ে আছে চন্দ্রর দিকে। চন্দ্রর ইচ্ছে করছে পাখি হয়ে উড়ে যেতে এখান থেকে। লজ্জায় টগরের দিকে তাকাতে পারছে না চন্দ্র।
আচমকা সাঁই করে একটা গুলি ছুটে এলো তীরের বেগে। চোখের পলকে টগর চন্দ্রকে নিয়ে ডিগবাজি দিয়ে ফ্লোরে পড়ে গেলো। গুলি এসে দেয়ালে লাগলো।

চলবে…..
রাজিয়া রহমান

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here