রুপের তরী পর্ব ৯

0
499

#পর্ব_৯
গল্পঃ #রূপের_তরী🍁🌷
writer: #Ashura_Akter_Anu
………….
তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে পুকুরপাড়ের পাশে বানানো চরাটের ওপর চোখ রেখে আছে তরী।

রূপের পাশে বসে মাঝে মাঝে গায়ে হাত দিয়ে কথা বলছে সুইটি।পাশে অবশ্য মিলিও আছে। তবে ওর ধান্দা এসবের মাঝে নেই। রূপের চেহারা দেখে মনে হচ্ছে সে অনেকটা বিরক্ত, তাও সুইটি জোর করে ওকে ধরে রেখেছে। ওদের পেছন গিয়ে দাড়িয়ে খুক খুক করে কেশে ওঠে তরী। পেছন ফিরে তাকিয়ে তরীকে দেখতে পেয়ে অনেকটা স্বস্তি পায় রূপ। সুইটির চেহারা তখন দেখার মত হয়েছিল।অনেকটা বিরক্তি নিয়েই সুইটি বলে,

–তুই এখন এখানে কি করছিস তরী?

–কেন? এসে কি তোর খুব সমস্যা হয়ে গেল?

–না নাহ, সমস্যা কেন হবে।

–তাহলে এক কাজ কর,মিলিকে নিয়ে বাড়ির ভেতরে যা,মা তোদের ডাকছে।

–পরে যাব, বাদ দে তো।

–বলছিনা ডাকছে?(রাগীসুরে)যা বলছি।
সুইটি মুখ ভাঙিয়ে দিয়ে মিলিকে নিয়ে চলে গেল। রূপ তরীর হাত ধরে চরাটে বসিয়ে বলে,

–বাচালেন রুপের তরী। না হলে যে ওর কবলে পড়ে,আমিও পুকুরে ঝাপ দিতাম একটু হলেই। আর আমি সাঁতারও জানিনা।

–হয়েছে,এখন এগুলো খেয়ে নিন।(মিস্টির প্লেটটি এগিয়ে দিয়ে।

–এত্তগুলো মিস্টি আমি একা খাব?

–তা নয়তো কি?আর এমনিতেও এতগুলো কোথায়?মাত্র তো উমম(প্লেটে থাকা মিস্টিগুলো গুনতে গুনতে)বারোটার মত মিস্টি রয়েছে।

–না আমি একা খাবনা।সাথে আপনিও খাবেন কেমন?

দুজনে মিলে পুকুরপাড়ে বসে গল্পগুজব করতে থাকে।
বিকেলের দিকে ওরা সবাই নদীর তীরে বেড়াতে যায়।সন্ধ্যার দিকে বাড়ি ফিরলে সবাই ক্লান্ত শরীর নিয়ে বিছানায় গা এলিয়ে দেয়।তরী রূপকে রুমে গিয়ে ঘুমোতে দেখার পর নিজে হাতমুখ ধুতে যায়। এই সময়ের মাঝে সুইটি তরীর রুমে ঢোকে। এবং রূপকে শোয়া অবস্থায় গিয়ে জড়িয়ে ধরে। রূপ হালকা চোখ খুলে যখন দেখতে পায় সুইটি ওকে জড়িয়ে আছে তখন ওকে ধাক্কা দিয়ে দূরে সরিয়ে দেয়।

–প্লিজ রূপ, আমায় নিজের করে নিন।আমি আপনাকে তরীর চেয়েও বেশি ভালোবাসবো। আপনাকে প্রচন্ড ভালোবেসে ফেলেছি যে।

–সুইটি!ডোন্ট ক্রস ইয়োর লিমিট। তুমি আমার বোনের মত। এত নোংড়া ধারনাও মাথায় কিভাবে নিয়ে আসলে?

–আমায় ভুল বুঝোনা প্লিজ।নিশ্চয়ই ওই তরী তোমার কাছে আমার নামে খারাপ কথা বলেছে। দেখো রূপ ওর কথায় বিশ্বাস করো না। ও তো অনেক খারাপ একটা মেয়ে। তুমি আমায় বিয়ে করে নাও (আকুতির স্বরে)

এসব কথার পরই একটা থাপ্পড়ের আওয়াজ শোনা যায়। রূপ সামনে তাকাতেই দেখে সুইটি গাল ধরে দাড়িয়ে আছে,এবং পাশেই অগ্নিচক্ষু দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে তরী। তরী বলতে শুরু করে,

–আমি কল্পনাও করতে পারিনি তুই এতটা নিচে নামতে পারবি কখনো ছিঃ!। বোনের স্বামীর সাথে এমন নোংড়ামি করতে তোর একটুও মনে বাধলো না?তোকে তো আজ উচিত শিক্ষা দিতে হবে। চল খালার কাছে।তোর সব কুকৃত্তির কথা বলবো।

সুইটি এখন বাচার আর কোন উপায় না পেয়ে তরীর পা চেপে ধরে।

–তরী বোন আমার, ভুল হয়ে গেছে৷ এবারের মত মাফ করে দে..তোর পায়ে ধরি।প্লিজ আমায় মাফ করে দে। আমি আর জীবনে কারও সাথে এমন কিছু করবোনা।

–তোকে তো শাস্তি দিতেই হবে। না হলে তুই কখনো শুধরাবি না।

–তরী প্লিজ এভাবে বলিস না।আমি কথা দিচ্ছি তোকে আমি আর কখনো এমন করবোনা। আমায় ক্ষমা করে দে বোন।।।প্লিজ।। (কেঁদে কেঁদে)

–তরী, ও যখন বলছে মাফ করে দিন।আমার মনে হয় বাড়ির কাউকে এ ব্যাপারে না বলাটাই ভালো হবে। বললে সবাই এমনিতেই নানান রকম চিন্তা করবেন।

তরী রূপের কথামতো সুইটিকে যেতে দেয়। রূপের সাথে আর কোন কথা না বলে হাত মুখ মুছে বিছানার এককোনে শুয়ে পড়ে। রূপ তরীর সাথে কথা বলার জন্য দু একটা কথা জিজ্ঞেস করতে চাইলেও তরী কোন জবাব দেয় না।
পরদিন সকাল সকাল ওরা ঢাকার উদ্দেশ্য বেরিয়ে পড়ে।
মধ্যম গতিতে গাড়ি চালাচ্ছে রূপ। তরী জানালার বাইরে মুখ দিয়ে বসে আছে। ওদের দুজনেই অনেক কিছু চিন্তাভাবনা করছে। তবে ওদের চিন্তাটা একই বিষয় নিয়েই। তবে ওরা কেউই জানেনা।
তরী ভাবছে,লজ্জা হোক আর যাই হোক ওনাকে আমার মনের কথা সবকিছু খুলে বলব। উনি তো আমারই স্বামী। ওনাকে এসব বলবোনাতে কাকে বলবো?এমনিতেও স্বামী স্ত্রী কখনো এমন দূরে দূরে থাকে? আজ বাড়ি ফিরে সবকিছু বলব ওনাকে। উনি কিছু বলুক আর না বলুক, তাতে কি আসে যায়?যদি আমাকে ভালোনা বাসে তাহলে ওনার ঘার ভালোবাসবে। দেখ যাবে সবকিছু।
এসব ভেবেই তরী একবার রূপের দিকে তাকায়। দেখে রূপ সামনের দিকে তাকিয়ে মনযোগ সহকারে ড্রাইভ করছে। যেন এটাই ওর ইমপরট্যান্ট কাজ।
তরী মনে মনে ভাবছে,
“ইশশ দেখোনা কি ভাবে গাড়ি চালাচ্ছে। পাশে যে বউ বসে আছে তার দিকে খেয়াল নেই। নিজে তো মুখ ফুটে কিছু বলতে পারেনা, আবার আমায়ও কিছু জিজ্ঞেস করেনা। আরে আমায় জিজ্ঞেস করলে তো আমিই বলে দেই সব। হুহ।”

তরী তো আর যানেনা যে রূপও ওরই মত একই চিন্তায় মগ্ন। সেও এসব কথাই ভাবছে। অনেক হয়েছে। এখন তরীকে মনখুলে ভালোবাসি বলতেই হবে।।।।
তরীর দিকে একনজর তাকিয়ে বলে ওঠে, তরী!
রূপের গলার আওয়াজটা তরীর কাছে নতুন নয়। তবে এখন তরীকে রূপ যেভাবে ডাকল সেই গলার স্বরটা তরীর কাছে অনেকটা নতুন।এই আওয়াজটায় একটা আবেগ মেশানো আছে,কিছু অনুভুতি জড়ানো আছে, অনেকটা ভালোবাসা মোড়ানো আছে।
তরী রূপের দিকে নরমভাবে তাকিয়ে উত্তর দেয়,
“জ্বি বলুন”
“তরী একটা কথা বলবো?রাগ করবেনা তো?”
রূপের মুখে তুমি শোনাটা তরীর কাছে যেন হৃদয়ে শীতল বাতাস বয়ে যাওয়ার মত মনে হলো। উৎসুক দৃষ্টিতে রূপের চোখে দিকে তাকিয়ে বলল সে,
“রাগ করবো কেন?আপনি বলুন”
“…….”
কথাটি বলার আগেই রাস্তার উল্টো দিক থেকে আসা একটি ট্রাক ওদের গাড়িটিকে হিট করে। রূপ ও তরীর গাড়িটি ট্রাকের ধাক্কায় উল্টোতে উল্টোতে রাস্তার পাশের বড় বটগাছটির সাথে গিয়ে ধাক্কা লেগে থেমে যায়, গাড়ির ভেতরে থাকা রূপ ও তরী রক্তাক্ত…….””””””

ক্লাসের ঘন্টা বেজে ওঠার পর সকল স্টুডেন্টরা বাস্তব জগতে ফিরে আসে। ঢাকা মেডিকেল কলেজের কার্ডিয়াক বিভাগের লেকচারার ডা.শাহরোজ আদ্রিয়ান সকল স্টুডেন্টদের উদ্দেশ্যে বলেন,
“সরি গাইস,নাও ক্লাস আওয়ার ইজ ওভার। আই হ্যাভ টু গো। আজ কিছুই পড়ানো হলোনা শুধু তোমাদের সবার মন রাখতে। এবার আমার মন রাখতে একটা কাজ করবে সবাই, নেক্সট টার্মের জন্য ভালোভাবে প্রেপারেশন নাও। যেহেতু টার্মের আগে এটাই লাস্ট ক্লাস।”

ওনার কথার মাঝেই, স্টুডেন্টদের মাঝ থেকে সবচাইতে ব্রিলিয়ান্ট তবে ইমোশনাল একজন স্টুডেন্ট জান্নাতুল মাওয়া আরশ জলে ভেজানো চোখে বলে উঠলো,

–স্যার এরপর রূপ ও তরীর কি হলো?

বা হাতের কনিষ্ঠা আঙ্গুলটি দ্বারা ভ্রু চুলকে আদ্রিয়ান বললো,

–আরশ, আগের টার্মে তোমার রেজাল্টটা অনেকটা লো ছিল। সো এখন এসবকিছুর মাঝে না থেকে পড়াশুনায় মন দাও। আই থিংক ইউ হ্যাভ টু বি মোর অ্যাটেনটিভ অন ইওর লেসনস।

সো তাহলে আজকে এ পর্যন্তই, তোমরা সবাই ভালো থেকো। এবং ভালোভাবে টার্মটি শেষ করো। আবার দেখ হবে কয়েক মাস পরে। আল্লাহ হাফেজ।

কথাগুলো শেষ হতেই ডা.আদ্রিয়ান থার্ড ইয়ার মেডিকেল স্টুডেন্টদের ক্লাসরুম ত্যাগ করলেন। ওদিকে আরশ আদ্রিয়ানের ঝারি খেয়ে চুপচাপ বসে আছে।
–ওই হারামি,স্যার যখন টার্মের বিষয়ে বলছিল, তুই লাফালাফি করে আবার লাভ স্টোরি সম্পর্কে কেন জানতে চাইলি?তুই সবসময় নিজের দোষেই স্যারের কাছে ঝারি খাস।

তানিয়ার কথায় সম্মতি জানিয়ে আরশ উত্তর দিল,

–তো কি করব বল?তুই তো জানিস আমি কতটা ইমোশনাল। তার ওপর স্যার আজ ওই ইমোশনাল লাভস্টোরি শোনালেন। তাহলে কি আর চুপ করে থাকা যায় বল?কি সুন্দর লাভ স্টোরি রূপের তরী, আহা, নামটাতেই কেমন গা শিরশির করে ওঠে।

–ধ্যাত বাদ দে তো।ওসব লাভ স্টোরির চক্রে পড়লে টার্মে আর পাস করতে হবে না। তখন আদ্রিয়ান স্যার তোমায় ভালোমত সোজা করবে বলে রাখলাম। এমনিতেই আগের রেজাল্টের জন্য তোর ওপর রেগে আছেন উনি।

–ধু ভাল্লাগে না। এত স্টুডেন্ট থাকতে উনি কেন আমার পেছনে লাগেন বলতো?

তানিয়া আরশের কাধে বাড়ি মেরে বলে,

–বলেছিলাম না?কিছু আছে.(মুখ পাকিয়ে)

–একটা মারবো। চল হোস্টেলে। আজ তোকে আমি সোজা করবো। বেশি পাকা হয়ে গেছিস।

দূজন বেস্ট ফ্রেন্ড দুস্টুমি করতে করতে ক্লাসরুম থেকে বেরিয়ে হোস্টেলের উদ্দেশ্য হাটতে থাকে।
এদিকে ক্লাসরুমের নীরবতায় পরে থাকে রূপ ও তরীর অসমাপ্ত কাহিনিটা। 🍁

নাহ, এ কাহিনি যে অসমাপ্ত হওয়ার নয়। আরও কিছুদুর যে যেতে হবে। আরও কয়েক পৃষ্টা উল্টোতে হবে স্মৃতির পাতা থেকে। তবেইনা পূর্ন হবে রূপ ও তরীর গল্প। কারন গল্পটি যে ওদেরই,গল্পটি তো….
#রূপের_তরী🍁🌷
.
.
#চলবে___
.

.
★গঠনমূলক কমেন্ট আশা করছি আপনাদের কাছে,,,ভুলগুলো দয়া করে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন★
হ্যাপি রিডিং☺

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here