মেঘের আড়ালে রোদ পর্ব ২৮

0
93

#মেঘের_আড়ালে_রোদ
#পর্ব_২৮
লেখিকা #Sabihatul_Sabha

ছোঁয়া সব শপিং মেঘলার হাতে ধরিয়ে দিয়ে বললো,’ সবার গুলো তুমি নিজ হাতে সবাইকে দিবে৷ বাড়ির বড় বউ বলে কথা। ‘

মেঘলা লাজুক হাসলো পরক্ষনেই একটু আগের সামিয়ার হাত শ্রাবণের হাতে ছিলো মনে হতেই চোখ মুখ শক্ত করে শ্রাবণের দিকে তাকালো।

________

সবার সব কিছু মেঘলা সবাইকে দিতেই সবাই অনেক অনেক খুশি হলো।

আমেনা বেগম শাশুড়ীর কাছে থাকবে সাথে দেবর, স্বামী যাবে না তাদের জন্য কাউকে থাকতে হবে। সেই জন্য আমেনা বেগম যাবে না।

মেঘলা আমেনা বেগমের দিকে ব্যাগ এগিয়ে দিতেই উনি সাফ সাফ নিষেধ করে দিলেন। উনার প্রয়োজন নেই।

মেঘলা হাসলো। হেঁসে শাশুড়ী সামনে গিয়ে বলে উঠলো, ‘ আর মাত্র এক মাস, এই এক মাস কষ্ট করে আমাকে আর আমার জিনিস গুলোকে সহ্য করে নেন। এইগুলো কোনো অন্যায় পথে আনা টাকার নয় আমার নিজের ইনকামের টাকায়।ভালোবেসে এনেছি। ভালোবাসার জিনিস ফিরিয়ে দিতে নেই।

আমেনা বেগম মেঘলার হাত থেকে ব্যাগটা নিলেন।
মেঘলার চোখে পানি টলমল করছে ।
আমেনা বেগমের হঠাৎ এক উদ্ভুত ইচ্ছে হলো৷ ইচ্ছে করলো মহুয়ার মাথায় হাত রাখতে কিন্তু তিনি তা করলেন না।

_________

সময় থেমে থাকে না। দিন গিয়ে রাত নেমেছে সবাই খাওয়া দাওয়া করে নিজেদের রুমে চলে গেছে।

ছোঁয়া হেলতে দুলতে ছাঁদে গিয়ে ভেতর দিয়ে দরজা লাগিয়ে দিলো।
আজ আকাশে চাঁদ নেই৷ বাহিরে বাতাস নেই, অন্ধকার রাত, নিশ্চুপ চারপাশ ছোঁয়ার চুল ছাড়া।
ছোঁয়া মোবাইলের ফ্লাশ লাইট জ্বালিয়ে রেলিং ঘেঁষে বসলো৷ লাইট বন্ধ করে চোখ বন্ধ করে নিলো৷ দুই চোখে হাজারো স্মৃতি ধরা দিচ্ছে। বুকের ভেতর তুলফাল শুরু হচ্ছে, শূন্যতা চারপাশ ঘিরে ধরেছে। ছোঁয়া ডুকরে কেঁদে উঠলো। আসতে আসতে কান্না বাড়তে লাগলো।

আহনাফ কে সে কখনো ভাইয়ের নজর দেখেনি চেষ্টা করেছি তাও ওর মন কখনো আহনাফ কে ভাই মানতে চায় না। এতো এতো ছেলে থাকতে এই মন কেন পাষাণ পুরুষটির দিকেই গেল!! আজ দুইদিন কেউ জানে কিভাবে ছোঁয়ার রাত, দিন যাচ্ছে!!?
যতোবার মহুয়ার দিকে তাকাচ্ছে হৃদয় পুড়ছে, হিংসে হচ্ছে। আজ তো ওর জায়গায় ছোঁয়া থাকতো! নিজের মনকে বুঝাতে ব্যার্থ এখানে তো মহুয়ার দোষ নেই। মন বলে তাহলে কেন এই মহুয়া আমাদের মাঝ খানে আসলো!.? কেন আপনাকে নিয়ে গেল!.? আমি নিজেকে সামলাতে আর পারছি না আপনি এতো পাষাণ কেন!.? এতো কাছে থেকেও ভালোবাসা বুঝতে পারলেন না.? অনুভব করতে পারলেন না.? আমি তো শুধু রেজাল্টের অপেক্ষায় ছিলাম তারপর আমি নিজেই আপনাকে বুঝিয়ে দিতাম কিন্তু তার আগেই আপনি আমার থেকে দূরে সরে গেলেন!! ছোঁয়া হেঁচকি তুলে কাঁদতে শুরু করলো। এই কান্না যে কেউ দেখে না! ছোঁয়ার কষ্ট যে কেউ বুঝতে পারে না। কেউ বুঝতেও পারবে না, ছোঁয়া যে ছোট থেকে পাক্কা অভিনেত্রী। না হয় এতো ভালোবাসা কিভাবে গোপন রাখলো!?

_____

শ্রাবণ পাঞ্জাবি, শাড়ি আলমারিতে তুলে রাখলো।
মেঘলা একবার তাকিয়ে চোখ ফিরিয়ে নিলো। মোবাইলের দিকে তাকিয়ে নিজের কাজ শুরু করলো। একটু পর পর কল আসছে সেই জন্য ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে কথা বলছে।

ফাহিম কল দিলো।
মেঘলা সব সময় স্বাভাবিক ভাবে প্রয়োজনীয় কথা বলে ফোন রেখে দেয়। আজ ফাহিম ভয়ে ভয়ে বললো,’ মেডাম একটা কথা বলি..?
মেঘলাঃ হুম বলো..
ফাহিমঃ ম্যাডাম আপনি তো মেয়ে একটু বলবেন কি করলে মেয়েরা খুশি হয়..? কিভাবে মেয়েদের সারপ্রাইজ দিলে ওরা ইমপ্রেস হবে.? বলতে পাড়েন আমি জানতে চাচ্ছি কি করলে একটা মেয়ে একটা ছেলের প্রেমে পড়ে.!?

মেঘলা হাসলো। নিশ্চয়ই এই আবুল ছেলে কোনো মেয়ের প্রেমে পড়েছে।

মেঘলা প্রথম জিজ্ঞেস করলো, ‘ কি ব্যাপার ফাহিম তুই কি কারো প্রেমে পড়েছিস!!.??
ফাহিম ভয় পেলেও সাজ্জাদের মুখের দিকে তাকিয়ে ভয় গিলে বলে উঠলো, ‘ জ…জ্বি ম্যাডাম।’
মেঘলা খুব সুন্দর করে ফাহিম কে বুঝিয়ে দিলো কি করলে, কিভাবে করলে মেয়েরা সহজে পটে যাবে।

ফোন রেখে ফাহিম রেগে সাজ্জাদের দিকে তাকালো সাজ্জাদ ফাহিমের গাল টেনে বলে উঠলো, ‘ আমাদের বিয়েতে সবচে প্রথম দাওয়াত দিব তোমাকে,ফ্রী তে খাবারও দিব, সাথে আমার ছোট শালিটাকেও দিব।’
ছোট শালির কথা শুনতেই ফাহিম লজ্জা পেল।

শ্রাবণ বিছানায় বসে ল্যাপটপে কাজ করছে কম ব্যালকনির দিকে কান পেতে আছে। মেঘলা এতো কার সাথে কথা বলে!.?? ওর বয়ফ্রেন্ড আছে.??

মেঘলা কথা শেষ করে রুমে এসে পানি খেয়ে দরজা খুলে বের হতে নিলে শ্রাবণ পেছন থেকে থামতে বললো।
মেঘলা থামলো না নিজের মতো রুম থেকে বের হয়ে গেল।
শ্রাবণ অবাক হলো এই প্রথম মেঘলা ওর কথা শুনেনি,ওর ডাকে সারা দেয়নি। ওকে ইগ্নোর করছে।

মেঘলা প্রায় আধা ঘণ্টা পর রুমে আসলো।
শ্রাবণ ল্যাপটপের দিকে তাকিয়ে মেঘলার কাছে কফি চাইলো।
মেঘলা শুনেও না শোনার মতো বালিশ ঠিক করে ওয়াশরুমে গেলো, ফ্রেশ হয়ে এসে চুল আঁচড়ে রুম থেকে বের হতে নিলে শ্রাবণ মেঘলার হাত ধরে নিজের সামনে দাঁড় করায়।
মেঘলা নিচের দিকে তাকিয়ে আছে।
শ্রাবণঃ কি হয়েছে.?? ইগ্নোর কেন করছো.??
মেঘলা কিছু না বলে হাত ছাড়িয়ে নিতে চায় শ্রাবণ কোমর জড়িয়ে নিজের সাথে মিশিয়ে নেয় জমে যায় মেঘলা, বুকের ভেতর ধুকপুক বাড়ে, শরীরও কি কাঁপছে!.? এই প্রথম শ্রাবণ এভাবে স্পর্শ করেছে।

মেঘলা ছুটতে চাইলে শ্রাবণ আরও নিজের সাথে চেপে নিচ্ছে।

মেঘলা শান্ত হয়ে গেল, ছুটাছুটি করার চেষ্টা বন্ধ করে শ্রাবণের দিকে তাকালো।
শ্রাবণ মেঘলা দিকে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে।
মেঘলাঃ ছা…ছাড়ুন আমাকে।
শ্রাবণঃ কি হয়েছে.? আমাকে ইগ্নোর কেন করছো.?
মেঘলাঃ আমি পাত্তা দিয়ে ছিলাম কবে যে আপনাকে ইগ্নোর করছি!.?
শ্রাবণঃ তাহলে এখন আমার তোমার থেকে পাত্তা পেতে হবে..??
মেঘলাঃ ছাড়তে বলছি!
শ্রাবণঃ ধরতেও তো বলনি কিন্তু আমি ধরে রেখেছি৷ এখন চুপচাপ লক্ষি বউয়ের মতো নিচে গিয়ে কফি বানিয়ে নিয়ে আসবে।

মেঘলা তাচ্ছিল্যের হাসি দিয়ে বলে উঠলো, ‘ কফি চাই.? তাহলে নিজের গার্লফ্রেন্ড কে ডাকুন আমি কারো কাজের লোক নই, আর না কারো……
শ্রাবণঃ থেমে গেলে কেন বলো.? ভালোই লাগছিল শুনতে..।
মেঘলাঃ আপনি আমাকে ছাড়বেন নাকি আমি চিৎকার দিব!.?
শ্রাবণঃ ভয় দেখাচ্ছ.? আমি আমার বিয়ে করা বউকে ধরে রেখেছি, দাও চিৎকার দাও…আর আমার গার্লফ্রেন্ড আসলো কোথায় থেকে.?
সাথে সাথেই শ্রাবণের মোবাইল বেজে উঠলো।

শ্রাবণ আঁড়চোখে একবার মেঘলার দিকে তাকালো।

মেঘলা রাগী দৃষ্টিতে মোবাইলের দিকে তাকিয়ে আছে।

মেবাইলের স্কিনে খুব সুন্দর করে ” সামিয়া” লেখা।

শ্রাবণ মেঘলা রিয়াকশন দেখে মনে মনে হাসলো৷
মেঘলার কোমর জড়িয়ে ধরে রেখেই কল রিসিভ করে কানে দিল।

~ হ্যাঁ সামিয়া বলো…?
………
~ কি বলছো সত্যি.?
………..
~ ঠিক আছে সময়মতো চলে আসবে।
…………
~ কি পড়ে আসবে তাও বলে দিতে হবে.??
…………..
~ শাড়ি সাথে চুলগুলো ছেড়ে কানে ফুল হাতে গোলাপ।

মেঘলা রাগে বিড়বিড় করে বলে উঠলো ” আল্লাহ এই মুহূর্তে আমার কান দুইটা বন্ধ করে দাও আমি এইসব আর নিতে পারছি না। আমি শাড়ি পড়ি একবার ফিরেও তাকায় না আর গার্লফ্রেন্ড কে কি সুন্দর শিখিয়ে দিচ্ছে হারামি একটা ”

শ্রাবণ কান থেকে ফোন সরিয়ে বলে উঠলো, ‘ কিছু বললে.??’
মেঘলাঃ কই না তো।

~ হ্যাঁ সামিয়া বাকিটা একটু পর আমি কল দিয়ে বুঝিয়ে দিব।
………

কল রেখে মেঘলার দিকে তাকাতেই টলমল চোখ জোরার দিকে তাকিয়ে বললো, ‘ তোমার চোখে পানি!!’
মেঘলা এদিক ওদিক তাকিয়ে বলে উঠলো, ‘ চোখে কি যেন পড়েছে.’
শ্রাবণঃ দেখি আমার দিকে তাকাও।
মেঘলাঃ না, প্লিজ এবার তো ছাড়েন।
শ্রাবণঃ এদিকে তাকাতে বলেছি।
মেঘলা শ্রাবণকে ধাক্কা দিয়ে দূরে সরিয়ে রুম থেকে বের হয়ে যায়।

শ্রাবণ মেঘলার যাওয়ার দিকে তাকিয়ে হাসে। ঠিক এতোটা আমারও জ্বলে যখন তোমার আশেপাশে সাজ্জাদ থাকে।

_______

মহুয়া সেই কখন থেকে ছোঁয়া কে খুঁজছে কিন্তু কোথাও ছোঁয়া নেই।
ছোঁয়াকে খুঁজতে নিরুপমার রুমে যাওয়ার আগেই একটা হাত টান দিয়ে ওকে রুমে নিয়ে গেলো।
মহুয়া কিছু বুঝে উঠার আগেই দরজা বন্ধ করে মহুয়াকে দেয়ালের সাথে চেপে ধরলো।

মহুয়া ভয়ে চোখ বন্ধ করে আছে। পারফিউমের ঘ্রাণ নাকে আসতেই বুঝতে পারলো এটা আহনাফ।

মহুয়া ধীরে ধীরে চোখ খুলে আহনাফের দিকে তাকালো। কিন্তু রুম একদম অন্ধকার। মহুয়া অন্ধকার ভীষণ ভয় পায়। ভয়ে আহনাফের শার্ট খামচে ধরলো।

আহনাফ রেগে বলে উঠলো, ‘ সকালে আমার কথার উপর কথা বলার সাহস কে দিয়েছে তোমাকে!.?? বার বার বলেছি আমার কথার উপর কথা বলবে না।
মহুয়াঃ আমি চাই না বিষয়টা কেউ জানুক।
আহনাফঃ কতোদিন.?
মহুয়াঃ সারাজীবন।
আহনাফঃ বিয়ে বাড়ি থেকে সবাই আশার পরেই সবটা জানিয়ে দিব।
মহুয়াঃ বিয়ে বাড়ি থেকে এসেই আমি চলে যাব আর আপনাকে ডিভোর্স দিয়ে দিব।
আহনাফ রেগে দেওয়ালে একটা ঘুষি মেরে বলে উঠলো, ‘ একবার বলেছো দ্বিতীয় বার এই চিন্তা করলেও হাত পা ভেঙে ঘরে সাজিয়ে রাখবো।
মহুয়াঃ আপনি আমার সাথে এমনটা করতে পারেন না। জোর করে বিয়ে করেছেন। এখন জোর করে রাখতে পারবেন না।
আহনাফঃ আমি চাইলে সব পাড়ি।
মহুয়াঃ আমি সবার চোখে খারাপ হতে চাই না। উনারা আমাকে আশ্রয় দিয়েছে আমি তাদের বিশ্বাস ভেঙে তাদের বাড়ির ছেলের বউ হওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারি না। আমি তাদের কষ্ট দিতে চাই না। আর আমার আপনাকে পছন্দ না, আপনারও আমাকে পছন্দ না
আহনাফঃ বউ হওয়ার স্বপ্ন দেখতে কে বলেছে তুমি বাস্তবে বউ।
মহুয়াঃ আপনাকে এখন আমার সহ্য হচ্ছে না, আমার সামনে থেকে দূরে যান। আপনাকে দেখলেই আমার খু’ন করতে ইচ্ছে হয়৷ সব পুরুষ এক।
আহনাফঃ সেই জন্যই তো অন্ধকারে দাঁড়িয়ে আছি জেনো আমাকে দেখতে না পাও। খু’ন করতে করতে এখন আমার মতো নিষ্পাপ, ভদ্র, ইনোসেন্ট ছেলেকেও ছাড় দিচ্ছ না! এটা ঠিক না মেহু আমি তোমার বর। আমাকে খু’ন করলে তুমি বাসর রাতের আগেই বিধবা হয়ে যাবে। আমাদের ছেলে মেয়েদের কি জবাব দিবে!.?
মহুয়া আহনাফের কথা শুনে ভয় পেয়ে গেলো। খু’ন করতে করতে মানে.?? আহনাফ কি সব জেনে গেছে.?
আহনাফ আবার বলে উঠলো, ‘ আচ্ছা আমাকে কিভাবে খু’ন করতে চাও বলো.? আমি হেল্প করছি।
মহুয়া নিজের অজান্তেই বলে উঠলো, ‘ বুকের বা পাশে ছু’রি……

আর কিছু বলার আগেই আহনাফ বলে উঠলো, ‘ এ্যাঁই একদম না মেহু এখানে সব সময় তুমি থাক। এখানে আঘাত করলে আমি না তুমি ব্যাথা পাবে।

মহুয়া থমকে যায়, নিঃস্বাস বুঝি বন্ধ হয়ে আসবে!.? ছোট একটা কথা কিন্তু এটার গভীরতা কতোটুকু জানা নেই।
মহুয়াঃ আমি আপনাকে ঘৃণা করি।
আহনাফঃ প্লিজ ঘৃণা করো তবে ভালোবেস না। ভালোবাসলে আমাকে শেষ করতে পারবে আর ঘৃণা করলে নিজেই শেষ হয়ে যাবে।
মহুয়াঃ আমি শেষ হবো.?
আহনাফঃ হ্যাঁ.
মহুয়াঃ কিভাবে.?
আহনাফঃ সময় বলে দিবে।
মহুয়াঃ লাইট জ্বালান আমার অন্ধকার ভয় করে।
আহনাফঃ যার জীবন অন্ধকার সে অন্ধকার ভয় পায়!? অবাক হলাম।
মহুয়া অবাক দৃষ্টিতে অন্ধকারে সামনের দিকে তাকিয়ে রইলো।
আহনাফঃ এভাবে তাকাবে না। তোমার এই বড় বড় চোখের চাহনি এই অন্ধকার রুমে ডাইনীর মতো লাগছে।
মহুয়াঃ এই অন্ধকারে আমার চোখ কিভাবে দেখছেন.??
আহনাফঃ এতো প্রশ্ন কেন করো.? চুল ছেড়ে রাতে বাড়িতে হাঁটবে না হঠাৎ দেখতে ডাইনীদের মতো লাগে ।
মহুয়াঃ আমি জানি আপনার আমার মতো লম্বা চুল, বড় বড় চোখ মেয়েদের পছন্দ না তাই বলে বার বার ডাইনী বলবেন না।

আহনাফঃ তুমি একদিন চুল ছেড়ে, চোখে কাজল দিয়ে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে দেখবে তোমাকে দেখতে কেমন লাগে সম্ভব হলে সামনে একটা পাখা ধরবে চুল উড়বে বড় বড় চোখ একবার চোখ রাঙিয়ে তাকালে ভয়ে যে কেউ হিসু করে দিবে। বলেই আহনাফ হাসলো।

মহুয়াঃ আপনি ভূতের মুভি একটু বেশি দেখেন মনে হয়.?
আহনাফঃ হুম প্রচুর প্রতি রাতে দেখি, আগে দেখতাম মুভি আর এখন দেখি ছবি।
মহুয়াঃ দুইটা তো একি,ছবি মুভি।
আহনাফঃ নাহ্ দুইটা এক না। একটা মুভি আরেকটা কারো ছবি। কয়েকদিন পর থেকে আমার রুমেই হরর মুভির ডাইনী দেখতে পাব তাই মুভি দেখা বন্ধ করে দিয়েছি আপাতত তার ছবি দেখি।

মহুয়া ফিসফিস করে বলে উঠলো, ‘ প্লিজ লাইট জ্বালান আমার ভয় করছে..’
আহনাফঃ ঠিক আছে আগে হাত দাও।
মহুয়াঃ অন্ধকারে.?
আহনাফঃ হুম।
মহুয়া ভয়ে ভয়ে বলে উঠলো, ‘ হাত দিয়ে কি করবেন.?’
আহনাফঃ খু’ন করবো।
মহুয়াঃ কথায় কথায় খু’নের কথা কেন বলেন!.?
আহনাফঃ কেন ভয় পাও.?
মহুয়া থমথমে মুখে বলে উঠলো, ‘ না!’
আহনাফ মহুয়ার হাতে কিছু একটা দিয়ে দরজা খুলে চলে গেল।
মহুয়া জলদি লাইট জ্বালিয়ে আশেপাশে তাকালো আহনাফ নেই,চলে গেছে। হাতের দিকে তাকিয়ে দেখলো বেলীফুলের মালা।
বেলীফুলের মালা দেখেই মনে পড়ে গেল সেই দিনের কথা। আহনাফ কে না বলে ওর ব্যালকনি থেকে বেলীফুলের মালা ধরে ছিল বলে কতোগুলো কথা শোনালো আর সেই পুরুষ আজ নিজেই বেলীফুলের মালা এনে দিচ্ছে।

___________

ছোঁয়া কাঁদতে কাদতে রেলিংয়ে হেলান দিয়ে ঘুমিয়ে পড়েছে। রেলিংয়ের আরেক পাশ থেকে ধীরে হেঁটে একজন এসে ছোঁয়ার পাশে বসলো। গিটার পাশে রেখে ছোঁয়ার দিকে তাকিয়ে বলে উঠলো, ‘ একতরফা ভালোবাসা গুলো ভীষণ কষ্টের হয় তাই নারে ছোঁয়া!.?? এই যে তোর পাষাণ পুরুষের মতো তুইও পাষাণী হয়ে আমার ভালোবাসা বুঝতে পারিস না!…..

চলবে…
ভুলত্রুটি মার্জনীয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here