মেঘের আড়ালে রোদ পর্ব ২৭

0
59

#মেঘের_আড়ালে_রোদ
#পর্ব_২৭
লেখিকা #Sabihatul_Sabha

সকাল সকাল ভূত দেখার মতো সবাই মহুয়ার দিকে তাকিয়ে আছে।
মহুয়া ঘোমটা টেনে হাসার চেষ্টা করল।
আহনাফ চুল ঠিক করতে করতে নিচে এসে খাবার টেবিলে বসলো।

আমেনা বেগম এগিয়ে এসে বলে উঠলো, ‘ আরেএ মহুয়া তুমি..? ‘
মহুয়া কি বলবে বুঝতে পারছে না একবার আহনাফ আরেকবার নিজের কচলানো হাতের দিকে তাকিয়ে রইলো।

আহনাফ ধীরে সুস্থ বলে উঠলো, ‘ আম্মু এদিকে আসো…’
আমেনা বেগম ছেলের দিকে গেলেন।
হালিমা বেগম সবার জন্য নাস্তা বানাচ্ছে। নিরুপমা ভ্রু কুঁচকে মহুয়ার দিকে তাকিয়ে আছে।

আহনাফ মায়ের হাত ধরে সামনে বসালো।
মহুয়া মাথা নিচু করে আছে।

শ্রাবণের পিছু পিছু মেঘলা নেমে আসলো।
ছোঁয়া সবে মাত্র ঘুম থেকে উঠে হেলতে দুলতে নামছে।

আনোয়ার চৌধুরী সোফায় বসে আছে।
আনোয়ার চৌধুরী সবটাই জানে। কাল আহনাফ আনোয়ার চৌধুরীর থেকে পারমিশন নিয়েই এতো বড় একটা কাজ করে বসেছে।

শ্রাবণ মহুয়াকে দেখে একবার তাকালো। কি স্নিগ্ধ শান্ত সেই চাহনি।

পেছন থেকে নির্জন শ্রাবণের গলা জড়িয়ে বলে উঠলো, ‘ ভাই তোমার বউ পেছনে, অন্যের বউয়ের দিকে না তাকিয়ে নিজের বউয়ের দিকে তাকাও। পুরাই চিকনি চামিলি তোমার বউ, আর শাড়িতে তো ঐশ্বরিয়াকে হার মানায়।’

শ্রাবণ রেগে তাকাতেই নির্জন দাঁত কেলিয়ে বলে উঠলো, ‘ এইসব আমি বলিনি, আমার বন্ধু বলেছে আমি তো ভাবির নজরে দেখি।
শ্রাবণ রেগে মেঘলার দিকে তাকায়। যতো যাই হবে সব দোষ গিয়ে পড়বে মেঘলার উপর, রাগও দেখাবে মেঘলার উপর, ও কেন শাড়ি পড়ে ছেলেদের সামনে যাবে.?
নির্জনঃ ভাই এভাবে তাকালে বউ পালাবে, সুন্দর করে ভালোবাসা দিয়ে তাকাও, না হয় আমার দিকে তাকাও শিখিয়ে দিচ্ছি।
শ্রাবণঃ বেশি জ্ঞান না দিয়ে সর।
নির্জনঃ জ্ঞান কোথায় দিলাম, আমি তো হেল্প করছি। তুমি চাইলে এক সপ্তাহে পটিয়ে দিতে পারি।
শ্রাবণ রেগে তাকাতেই নির্জন দাঁত কেলিয়া মেঘলার পেছনে চলে গেল।

আহনাফ ওর আম্মুর হাতে হাত রেখে বলে উঠলো, ‘ আম্মু আমি যদি হঠাৎ কোনো সিদ্ধান্ত নেই তুমি মেনে নিবে!.?? তুমি তো জানো কোনো কারণ ছাড়া তোমার ছেলে কিছু করে না।
আমেনা বেগম হেঁসে আহনাফের মাথায় হাত রাখল।।

আহনাফঃ আম্মু আমি…

মহুয়া আহনাফ কে থামিয়ে বলে উঠলো, ‘ আন্টি…..’
আহনাফ থেমে গেল, এই মুহূর্তে মহুয়ার উপর ভীষণ রাগ উঠলো তাও নিজেকে শান্ত করে বলে উঠলো, ‘ আমি কথা বলছি তো!’
মহুয়া ভয়ে ভয়ে বলে উঠলো, ‘ আমি তো ছোঁয়া কে ভীষণ মিস করছিলাম সেই জন্য রাতে চলে এসেছি। আপনাদের সমস্যা হলে আমি আজ……

আমেনা বেগমঃ এইসব কি বলছো! তুমি ফিরে আসাতে আমরা অনেক খুশি হয়েছি। তুমি আমার মেয়ের মতো।আমার মেয়েনেই আমি সেই জায়গাটা ছোঁয়া আর তোমাকে দিয়েছি।

উনার কথা শেষ হতেই মেঘলা বলে উঠলো, ‘ আর আমাকে.???’
আমেনা বেগম থেমে গেলেন থমথমে মুখে অন্য দিকে ফিরে তাকিয়ে রইলেন।

হালিমা বেগম রান্না ঘর থেকে হাত মুছতে মুছতে বের হলো।মেঘলার সামনে এসে বলে উঠলো, ‘ তুমি আমার মেয়ে। বড় আপা তো দুইজনকে দিয়েছে আমি আমার মেয়ের জায়গা সবটা তোমাকে দিয়ে দিলাম ।’

মেঘলা খুব সুন্দর করে নিজের চোখের জল আড়াল করে হালিমা বেগম কে জড়িয়ে ধরলো। তাও অনেক আশায় তাকিয়ে রইলো শাশুড়ীর দিকে।

আহনাফ,শ্রাবণ, নির্জন সবাই দর্শক হয়ে বসে বসে তা দেখলো। আহনাফের আর কিছু বলার সুযোগ হলো না।

আনোয়ার চৌধুরী সবাইকে ডাকলো।

উনার বড় ছেলে ছোট ছেলেও উপস্থিত হলো।

আনোয়ার চৌধুরী সবাই কে বললো, কাল গ্রামে যেতে হবে। ওখানে একসপ্তাহ থাকতে হবে। উনার ভাতিজার মেয়ের বিয়ে।

এই কথা শুনতেই খুশিতে লাফালাফি শুরু করলো ছোঁয়া। সেই ছোট থাকতে একবার গ্রামে গিয়ে ছিল আর যাওয়া হয়নি।

শ্রাবণ, আহনাফ নিষেধ করলো ওরা যেতে পারবে না।

আহনাফের হসপিটাল আর শ্রাবণের অফিস আছে।

নির্জন ভাইয়েরা যাবে না শুনে আনোয়ার চৌধুরীকে বলে উঠলো, ‘ দুই ভাই যাবে না আমি গিয়ে কি করবো!.? একা একা মন টিকবে না, আমার সাথে কি সাজ্জাদকেও নিতে পারি দাদু!.??
আনোয়ার চৌধুরী হেঁসে বললো,’ নিয়ে নাওও।’

শ্রাবণ গম্ভীর কণ্ঠে বলে উঠলো, ‘ এই ছেলে ওখানে কেন যাবে!.?
নির্জনঃ ভাইয়া ও আমার বন্ধু।
শ্রাবণঃ তাহলে মেয়েরা বাড়িতে থাক।
ছোঁয়াঃ এটা কেমন কথা ভাইয়া! তোমরা যাবা না ঠিক আছে তাই বলে আমরা কোন কারনে যাব না!.?
শ্রাবণঃ আমি বলেছি মানে যাবে না কেউ। আম্মু, ফুপি, ছোট আম্মু তোমরা আর আব্বু চাচ্চু, দাদু যাক।

আজাদ চৌধুরী এখন না বিয়ের দিন যাবে বললো আর মিরাজ চৌধুরী একটা কেইসে আঁটকে গেছে যেতে পারবে না।

আনোয়ার চৌধুরী এবার ছেলের বউদের দিকে তাকিয়ে বললো,’ তোমাদের কোনো বাহানা আছে.??

ছোঁয়া আনোয়ার চৌধুরীর গলা জড়িয়ে বলে উঠলো, ‘ আমরা যাব দাদু এই রোবট মানব গুলোর কথা শুনবো না।
শ্রাবণঃ কে রোবট..?
ছোঁয়াঃ তুমি আর আহনাফ ভাই।
আহনাফঃ এখানে আমাকে কেন টানছিস..?
ছোঁয়াঃ ভাই শ্রাবণ ভাইয়াকে তুমি একটু বুঝাও, আমরা বাসায় থেকে কি করবো!.? আমি গ্রামে যাব।

মেঘলা আনোয়ার চৌধুরীর দিকে তাকিয়ে বলে উঠলো, ” দাদু আপনি কি আমাদের নিবেন..? আমি, ছোঁয়া মহুয়া..?
আনোয়ার চৌধুরী হেসে বলে উঠলো, ‘ হ্যাঁ হ্যাঁ অবশ্যই, এরা রোবট হতে পারে আমরা তো আর রোবট না।’

মেঘলা খুশি হয়ে বললো,’ গ্রাম আমার অনেক ভালো লাগে, অনেক বার গিয়েছি কয়েকটা কেইস সল্ভ করতে।

সবাই অবাক হয়ে বললো,’ কিইই..!!???’

মেঘলা ভয় পেয়ে গেল। বেশি উত্তেজিত হয়ে এটা কি বলে দিল!.
মহুয়া সবার দিকে তাকিয়ে বললো,’ আমি বড় হয়েছি গ্রামে। গ্রামের পরিবেশ খুব সুন্দর। ‘
ছোঁয়াঃ আজ বিকেলে আমরা মার্কেটে যেতে হবে। শ্রাবণ ভাইয়া তুমি নিয়ে যাবে।।।
শ্রাবণ নিষেধ করলো সে পাড়বে না, আহনাফেরও সময় নেই। এবার নির্জনকে ধরলো, নির্জনেরও কেনাকাটা করতে হবে সে রাজি হয়ে গেল।

মেঘলা শান্তির নিশ্বাস ফেললো। ওর কথাটা যাক কেউ গুরুত্ব দেয়নি।
_____

বিকেলে মার্কেটে যাওয়ার জন্য বেরিয়ে পড়লো সবাই। মার্কেটের সামনে এসে দেখা পেল সাজ্জাতের। নির্জন বলেছে সাজ্জাতকে আসতে।

সবাই মার্কেটের ভেতরে গেল।
সাজ্জাদ মেঘলার পাশাপাশি হাঁটছে।

এক ঘন্টা চলে গেল কাপড় পছন্দ করতে করতে নির্জন, সাজ্জাদের কেনাকাটা শেষ কিন্তু মেয়েরা এখনো কিছুই কিনেনি।

নির্জন রেগে ছোঁয়ার দিকে তাকাতে মেঘলা বলে উঠলো, ‘ আরেএ দেবরজী মাত্রই তো আসলাম। যখন বিয়ে করবেন বউয়ের আঁচল ধরে দশ ঘন্টাও ঘুরতে পারবেন বিরক্ত লাগবে না, আজ বোন বলে এক দুই ঘন্টাও ঘুরতে পারছেন না। এটা কিন্তু ঠিক না’
নির্জনঃ ভাবি তখন বউ থাকবে, বউয়ের আঁচল ধরে ঘুরার ফিলিংসটাই অন্য রকম।
সাজ্জাদ নির্জনকে থামিয়ে বলে উঠলো, ‘ মেঘলা বউ তো নেই এখন আপনারা চাইলে নিজেদের আঁচলটা আমাদের হাতে বেঁধে দিতে পারেন জামাই,জামাই, প্রেমিক প্রেমিক ফিলিংস আসবে দশ ঘন্টা কেন সারাজীবন এখানে কাটিয়ে দিতে পারবো।

ছোঁয়া হেঁসে বলে উঠলো, ‘ আরেহ্ বাহ্ ভাইয়া তো হেব্বি রোমান্টিক চাইলে আপাতত আমার ওড়না কে আঁচল বানিয়ে চালিয়ে নিতে পারেন…
ছোঁয়া মজা করে বললেও নির্জন রেগে সাজ্জাদ আর ছোঁয়ার দিকে তাকিয়ে রইলো।
সাজ্জাদ সেটা বুঁজে নির্জন কে রাগানোর জন্য ছোঁয়ার ওড়না ধরতে গেলেই নির্জন ওর হাত চেপে ধরে বলে উঠে,’ দূরে থাক। ‘
সাজ্জাদঃ আমাকে ছোঁয়া বলেছে।
নির্জন রেগে সাজ্জাদের হাত আরও শক্ত করে চেপে ধরতেই সাজ্জাদ আরেক হাত দিয়ে কানে ধরে বলে উঠলো, ‘ আরে ভাই মজা করছিলাম হাত তো ভেঙে ফেলবি, আমার বউ কি তখন তোর হাত ধরে হাঁটবে!.? ছাড় না বাপ।

নির্জন ঝাড়ি মেরে সাজ্জাদের হাত ছাড়লো।
সাজ্জাদ বেচারা হাতের দিকে তাকিয়ে বলে উঠলো, ‘ লাল করে ফেলছস।’
নির্জনঃ চুপচাপ পিছে পিছে হাট।
মহুয়া হেঁসে বললো, ‘ আপনারা ঝগড়া না করে হেল্প করলেও তারাতাড়ি হবে।’

সাজ্জাদের চোখ গেল একটা সুন্দর শাড়ির দিকে। চোখ বন্ধ করে ভাবলো শাড়িটায় মেঘলাকে কেমন লাগবে।

সাজ্জাদ খুশি হয়ে মেঘলা কে ডাকলো।
মেঘলা ফিরতেই সাজ্জাদ শাড়িটা দেখিয়ে বলে উঠলো, ‘ আপনাকে খুব সুন্দর মানাবে..’

মেঘলারও শাড়িটা বেশ পছন্দ হয়েছে, মেঘলা খুশি মনে শাড়িটা হাতে নিতেই পেছন থেকে কেউ বলে উঠলো, ‘ শাড়িটা আপনার জন্য একটু বেশি কড়া গোলাপি হয়ে গেল না!.??
মেঘলা পেছন ফিরে শ্রাবণকে দেখে অবাক হলো। আরও অবাক হলো শ্রাবণের সাথে একটা মেয়ে দেখে।
মেঘলা মেয়েটার দিকে শান্ত চোখে চেয়ে থাকলেও ভেতর ভেতর রাগে ফেটে পড়ছে। মেয়েটা শ্রাবণের হাত ধরে আছে।

মেঘলা রাগ করে শাড়িটা সাজ্জাদের দিকে দিয়ে বললো,’ আপনার পছন্দ হলে নিয়ে নেন।’
সাজ্জাদঃ আমার গার্লফ্রেন্ড নেই, আমি কার জন্য নিব..?’
মেঘলা দাঁতের সাথে দাঁত বলে উঠলো, ” যার জন্য মন চায়।’

শ্রাবণ মেয়েটার দিকে তাকিয়ে বললো,’ শাড়িটা তোমাকে মানাবে সামিয়া। তুমি শাড়িটা সাজ্জাদের থেকে নিয়ে নাও আর সাজ্জাদ তুমি তো দেখছি খুব ভালো মেয়েদের জিনিস চেনো প্লিজ সামিয়ার বাকি জিনিস গুলো পছন্দ করে দাও, তোমার পছন্দ খুব সুন্দর।

সামিয়া মেয়েটা শ্রাবণের হাত ছেড়ে সাজ্জাদের হাত শক্ত করে ধরে নিলো।
সাজ্জাদ থতমত খেয়ে গেল। কারেন্টের শর্ট খাওয়ার মতো দূরে সরে যেতে চাইলো কিন্তু সামিয়া ওর হাত শক্ত করে জড়িয়ে ধরে আছে।
সাজ্জাদ ইনোসেন্ট মুখ করে শ্রাবণের দিকে তাকিয়ে দেখলো সামনে শ্রাবণ নেই বেচারা ভালোই ফেঁসেছে।

শ্রাবণ মেঘলার পিছু পিছু গেল। মেঘলা ছোঁয়া আর মহুয়ার পেছনে গিয়ে চুপচাপ দাঁড়িয়ে রইলো। কিছু কিনার রুচি একদম চলে গেছে। আমাদের শপিংয়ে নিয়ে আসতে পারবে না কি সুন্দর বলে দিল অথচ গার্লফ্রেন্ড কে শপিং করাতে নিয়ে চলে আসল৷ পুরুষজাতি এমনি। ঘরে বউ থাকতে বাহিরে মেয়ে নিয়ে রংঢং না করলে শান্তি লাগে না। মেঘলা বিরবির করে হাজারো গালি দিচ্ছে পুরুষ জাতিকে।

ছোঁয়া মহুয়ার দিকে তাকিয়ে মোবাইল হাতে নিলো। আহনাফ কে ভিডিও কল দিয়ে একের পর এক শাড়ি, কাপড় দেখাচ্ছে আর বলছে কোনটা মহুয়াকে ভালো মানাবে।
মহুয়া রেগে ছোঁয়ার দিকে তাকালেও ছোঁয়া তাতে পাত্তা দিল না৷ আহনাফ ছোঁয়ার পাগলামি দেখে হাসছে। ছোট বোনরা বুঝি এমনি হয়!.?

আহনাফ যা যা বললো সব গুলোই নিল ছোঁয়া সাথে ম্যাচিং করে আহনাফের জন্য পাঞ্জাবিও নিয়ে নিলো।

শ্রাবণ মেঘলাকে যা দেখাচ্ছে মেঘলা তাই নিতে নাকচ করে দিচ্ছে।
শ্রাবণ মেঘলার দিকে তাকিয়ে রইলো। এই মেয়ের আবার হলোটা কি!.?
ছোঁয়া ইচ্ছে মতো শপিং করলো সাথে নিজের পছন্দ মতো, আহনাফ, শ্রাবণের পছন্দ মতো ওদের বউয়ের জন্য নিয়ে নিলো। মামি,আম্মু সবার জন্য নিল।

মেঘলা শুধু দাঁড়িয়ে চুপচাপ সবার কেনাকাটা দেখলো। ওর মাথায় এখন শুধু ঘুরছে কে সেই মেয়ে । মেয়েটাকি শ্রাবণের গার্লফ্রেন্ড!.? গার্লফ্রেন্ড মনে হতেই বুকের ভেতর চিনচিন ব্যাথা অনুভব হলো। তাহলে কি এই বিয়ের খেলায় মেঘলা ভুল করে শ্রাবনকে ভালোবেসে বসলো!!.? ভেজা চোখে তাকিয়ে রইলো শ্রাবণের মুখের দিকে। শ্রাবণ তাকাতেই চোখ সরিয়ে নিল। মুচকি হাসলো শ্রাবণ।

মহুয়া মেঘলার পাশে গিয়ে বলে উঠলো, ‘ চোর পুলিশের খেলা শেষ হলে বাড়িতে চলো। ‘
মেঘলা এদিক ওদিক তাকিয়ে চুল কানের পেছনে গুঁজে বলে উঠলো, ‘ কিসের চোর পুলিশ!.? ‘
মহুয়াঃ আমাকে বাচ্চা ভেবোনা আমি সব বুঝি।
মেঘলাঃ হ্যাঁ তুমি তো বুড়ি হয়ে গেছ।
মহুয়াঃ হুম তাই। বাড়িতে গিয়েও ভাইয়াকে সামনে বসিয়ে ইচ্ছে মতো দেখতে পারবে, জামাই তো তোমারি,এখন চলো।
মেঘলাঃ আমি তো কিছুই কিনলাম না।
মহুয়াঃ তুমি না কিনলেও ভাইয়া প্রচুর কিনেছে।
মেঘলাঃহুহ ওই মেয়ের জন্যই কিনেছে আমি জানি।
মহুয়াঃ কোন মেয়ে.?
মেঘলাঃ কিছু না চল।

সবাই নিচে গিয়ে সাজ্জাদের জন্য অপেক্ষা করছে।

একটু পর কিছু একটা দেখে সবার চোখ বের হয়ে আশার মতো অবস্থা।

সাজ্জাদ দুই হাতে, গলায়, মাথায় শপিং ব্যাগ, বেচারার মুখও দেখা যাচ্ছে না। পেছনে সামিয়া সাজ্জাদ কে রেগে বলছে ওর এখনো শপিং শেষ হয়নি। বেচারা সাজ্জাদ পারলে এখানে বসে কান্না করে কোন পাগলের পাল্লায় পড়লো! এতো এতো শপিং করেও নাকি শেষ হয়নি।

শ্রাবণ আগে আগে গাড়িতে উঠে গেল ইশারায় সবাইকে বললো গাড়িতে উঠে বসতে। সাজ্জাদ সামিয়ার চোখ ফাঁকি দিয়ে গাড়ির দিকে আসতে নিলেই শ্রাবণ গাড়ি ছেড়ে দিল।

কিছু দূর গাড়ি যেতেই সবাই গাড়ি থেকে সাজ্জাদের দিকে তাকালো। সামিয়া টেনে শপিং করতে ভেতরে নিয়ে যাচ্ছে সাজ্জাদকে….

চলবে….
ভুলত্রুটি মার্জনীয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here