মেঘের আড়ালে রোদ পর্ব ১৯

0
65

#মেঘের_আড়ালে_রোদ
#পর্ব_১৯
লেখিকা #Sabihatul_Sabha

মেঘলার মাথার চারপাশ ঘুরছে তাও সে থামছে না, দ্রুত পা ফেলছে সাথে এক টাকাও নেই যে গাড়ি করে বাসায় যাবে। অনেকটা দূর আসার পর দূর থেকে একটা গাড়ি আসতে দেখে ঝাপসা চোখে তাকালো, হাত তুলে থামার ইশারা দিলো কিন্তু গাড়িটা থামল না, দ্রুত ওর পাশ দিয়ে চলে যেতেই মেঘলা মাথা ঘুরে পড়ে গেলো রাস্তার পাশে।

গাড়িটা কিছু দূর গিয়ে আবার ফিরে আসলো। গাড়ি থেকে নেমে আসলো শ্রাবণ। গাড়িটাতে শ্রাবণ ছিলো প্রথম খেয়াল করেনি পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় মনে হলো মেঘলাকে দেখেছে। একবার মন বললো ” মেঘলা হলে ওর কি..? চলে যাবে, আবার মনে হলো, মেয়েটা এতো রাতে এখানে কি করছে.? বিপদে পড়েনি ত.? বিপদে না পড়লেও এখানে আর কিছু সময় থাকলে বিপদে পড়ে যাবে, এই জায়গাটা একদম নিরাপদ নয় মেয়েদের জন্য । এইসব ভাবতে ভাবতে আনমনে আবারও ফিরে আসলো।

চুল গুলো সামনে এসে মুখ ঢেকে আছে৷ শ্রাবণ দ্বিধায় পরে গেলো! আসলেই কি এটা মেঘলা নাকি অন্য কেউ.? সে কি মেয়েটাকে রেখে চলে যাবে.? কিন্তু মন সায় দিলো না। কিন্তু এখনি তো দেখলো দাঁড়িয়ে আছে, মেয়েটা কি অভিনয় করছে.??
শ্রাবণ মেয়েটার মুখ থেকে চুল সরাতেই চোখ বড় হয়ে গেলো। বুকের ভেতর ধক করে সুচের মতো কিছু একটা বিঁধল। মেঘলার হাত পা ঠান্ডা হয়ে গেছে। দাঁতের সাথে দাঁত খিঁচে রেখেছে বাহিরে প্রচুর ঠান্ডা বাতাস বইতে এখনি বৃষ্টিও নামতে পারে।
শ্রাবণ কোনো কিছু না ভেবে মেঘলাকে কোলে তুলে নিলো। গাড়িতে বসিয়ে ড্রাইভিং সিটে নিজে বসলো, পাশেই মেঘলা। দ্রুত গাড়ি স্টার্ট দিলো হসপিটালের দিকে। বেশি সময় লাগলো না পাশেই একটা হসপিটাল ছিলো সেখানে নিয়ে গেলো।

___________

নির্জনের ঘুম ভাঙার পর থেকেই দেখছে ছোঁয়া ফ্যাঁচফ্যাঁচ করে কাঁদছে আর নাক টানছে।

নির্জন খুব ভালো করে জানে ওর এই অবস্থার জন্য ছোঁয়া দায়ী।

ছোঁয়া নির্জনের দিকে স্যুপ এগিয়ে দিলো।
নির্জন ওর দিকে না তাকিয়ে বললো,’ খাব না।’
ছোঁয়া তাও চামচে স্যুপ নিয়ে ওর মুখের সামনে ধরল।
নির্জনঃ ফ্যাঁচফ্যাঁচ করা বন্ধ কর আমি মরে যাইনি যে তোর অভিনয় করতে হবে।
ছোঁয়াঃ আমার এতো যত্নের চোখের পানি পড়ছে আর তুই সান্ত্বনার জায়গায় বলতেছস আমি অভিনয় করি!.?
নির্জনঃ যেটা সত্যি সেটাই বলেছি।এখন আমার সামনে থেকে যা। এখানে কেন তুই.? আম্মু,ভাবি,ফুপি,বড় আম্মু তারা কই.?
ছোঁয়াঃ আমি তাদের বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছি।
নির্জনঃ গুড, আমিও এখন বাসায় যাব।
ছোঁয়াঃ একদম না তুমি এখানে থাকবে, আজ রাত থাকতেই হবে আরও চিকিৎসা বাকি।
নির্জন একবারও ছোঁয়ার দিকে তাকায়নি।
ছোঁয়া বুঝতে পেরেছে নির্জন বুঝে গেছে ছোঁয়ার জন্য ওর এই অবস্থা।
ছোঁয়াঃ সরি নির্জন ভাইয়া।
নির্জন উঠে নিজের শার্ট ঠিক করে মোবাইল হাতে নিলো।
ছোঁয়াঃ তুমি কোথায় যাচ্ছ। চুপচাপ শুয়ে পড়।তোমার শরীর এখনো ঠিক হয়নি। ভাইয়া চলে আসবে এখনি আমি ডাক্তার আপুে ডাকছি। তোমার মেডিসিন খাওয়া বাকি।
নির্জনঃ আমাকে নিয়ে তোর ভাবতে হবে না। নাকি এখানেও আমাকে মা-রার প্লেন কষে রেখেছিস! সেই জন্য আমাকে রাখার এতো তারা।
ছোঁয়া হেঁচকি তুলে কান্না শুরু করলো।
~ আমার ভুল হয়ে গেছে ভাইয়া।
নির্জন দরজা টেনে বের হয়ে যেতে নিলে ছোঁয়া পেছন থেকে শার্ট খামচে ধরলো।
নির্জন থামলো পেছনে না ফিরে বললো,’ শার্ট ছাড় ছোঁয়া আমার জরুরি কাজ আছে যেতে হবে।’
ছোঁয়া হেঁচকি তুলতে তুলতে বললো,’ এতো রাতে কিসের কাজ!.? কোথাও যাবে না তুমি..।
নির্জনঃ এমন ভাব করছিস যেনো আমি মরে যাচ্ছি নাকি সবাইকে বলে দিব সেই ভয় পাচ্ছিস!.? সবাইকে বুঝাতে চাচ্ছিস আমার প্রতি তোর ভালোবাসা ভীষণ গভীর! আমার জন্য তুই খুব চিন্তা করিস!।
ছোঁয়া মাথা নিচু করে রেখেছে। সে তো মজা করে এমনটা করে ছিলো। ও তো নির্জনকে এতোটা কষ্ট দিতে চায়নি। এখনো নির্জনের শরীরে ছোটো ছোটো লাল লাল হয়ে আছে।

নির্জনঃ শার্ট ছাড়।
ছোঁয়াঃ না।
নির্জন বিরক্ত হয়ে পেছন ফিরলো, ছোঁয়ার দিকে তাকাতেই বুকটা কেঁপে উঠল। কান্না করে চোখ মুখের কি অবস্থা করেছে! নির্জন নিজেও জানে ছোঁয়া মজা করে এমন করেছে। ছোটো থেকেই ছোঁয়া হাজার ঝগড়া করলেও নির্জনের অসুখ হলে, খেলতে গিয়ে ব্যাথা পেয়ে আসলে, কলেজে ছেলেদের সাথে ঝামেলা, মারামারি করে আসলে ছোঁয়া নির্জনের ব্যথায় নিজে কান্না করে ফেলত। যত্ন করে খাবার মেডিসিন এগিয়ে দিত, আবার মিনিটও যেত না দুইজন ঝগড়া শুরু করতো।

নির্জন ছোঁয়ার একদম কাছে এসে শান্ত কন্ঠে বলে উঠলো, ‘ উপরের অসুখ সরাতে এতো ব্যস্ত,কিন্তু ভেতরের অসুখে যে তিলে তিলে শেষ হয়ে যাচ্ছি সেই খবর কি রাখিস..?’

ছোঁয়ার কান্না বন্ধ হয়ে গেলো। অবাক দৃষ্টিতে তাকালো নির্জনের দিকে। কথাটাতে কি কিছু ছিল!?.

নির্জন ছোঁয়াকে অবাক করে দিয়ে, ওর হাত নিয়ে নিজের বুকের পাশে রেখে বলে উঠলো, ‘ আমি সুস্থ হতে চাই ভেতর থেকে ছোঁয়া, না হয় এই অসুখ দিন দিন বেড়েই চলবে আমার হৃদয়ে, মনে,শরীরে, তুই কি আমার ডাক্তার হবি..?’

ছোঁয়া সেই আগের মতোই তাকিয়ে আছে। সে কি বলবে.?? নির্জনের ভেতরে কি রোগ.? কোনো বড় ধরনের রোগ নয়তো.?? ছোঁয়া ত ডাক্তার নয়!।
ছোঁয়া কিছু জিজ্ঞেস করার আগেই নির্জন চলে গেলো। ছোঁয়া পিছু ডাকতে গিয়েও থেমে গেল। কি একটা মনে করে ছুটল নির্জনের পিছু কিন্তু পেল না। কোথায় হারিয়ে গেলো.? এখনই তো এখানে ছিল!!.? মাথায় হাজার চিন্তা নিয়ে বসে পড়লো। নির্জনের কি রোগ হয়েছে.?? ওকে যেভাবেই হোক আহনাফের কাছে আনতে হবে। ভালো কিছু টেস্ট করাতে হবে। ভালো চিকিৎসা দিলে নির্জন সুস্থ হয়ে যাবে, দরকার হলে দেশের বাহিরে নিয়ে চিকিৎসা করবে। ছোঁয়া যেভাবেই হোক নির্জনের অসুখ সারিয়ে সুস্থ করে তুলবে সিদ্ধান্ত নিয়ে নিলো।

_________

মহুয়ার জ্ঞান ফিরতেই নিজেকে অচেনা রুমে দেখে ধীরে ধীরে উঠে বসলো। শরীর দূর্বল লাগছে সারাদিন পানিও খাওয়া পড়েনি যার জন্য শরীর অনেকটা দূর্বল।
মহুয়া আশেপাশে ভালো করে তাকিয়ে অবাক হলো এটা আহনাফের রুম। বেশ কয়েক বার এই রুমে এসেছে সে যার জন্য চিনতে ভুল হলো না। কিন্তু এই রুমে কেনো.?? সারাদিনের সব কিছু মনে পড়লো এক এক করে তখন ভয় পেলেও এখন ভয় করছে না। শেষ সময় আহনাফ ওকে জড়িয়ে ধরে ছিলো। ভাবতে গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠলো। নিশ্চয়ই সবাই অনেক খুঁজেছে ওকে, আহনাফ হয়তো বুঝতে পেরেছিল মহুয়া পড়ে যাবে তাই জড়িয়ে ধরে ছিলো। হাজার কিছু ভেবে এটাকে সাধারণ ভাবে উড়িয়ে দিলো। ধীর ধীরে বিছানা থেকে নিচে নামল। আস্তে আস্তে হেঁটে দরজার কাছে গেলো। সারা শরীর কেমন ব্যথা করছে।সারাদিন হাত পা বাঁধা অবস্থায় এক জায়গায় পড়ে ছিলো হয়তো এইজন্য শরীর ব্যথা করছে।

মহুয়া দরজা খুলবে তখনি পেছন থেকে পুরুষালী গম্ভীর কণ্ঠ ভেসে আসলো।

মহুয়ার হাত থেমে গেলো, গলা শুকিয়ে আসলো। আহনাফ কি বাড়িতে!..? উনার তো হসপিটালে এখন থাকার কথা!! এই কন্ঠ চিনতে সে ভুল করতে পারে না,এটা আহনাফ এর রসকষহীন গম্ভীরকন্ঠ।

মহুয়া চুপচাপ পেছন ফিরতেই আহনাফ গম্ভীর কণ্ঠে বলে উঠলো, ‘ চোরের মতো কোথায় যাচ্ছেন!.??’
মহুয়া মাথা নিচু করে বলে উঠলো, ‘ চোরের মতো যাব কেন!.? আমি তো আমার রুমে যাচ্ছি। ‘
আহনাফঃ আপনার রুম..? এই বাড়ির প্রতিটা রুম আমাদের আপনি মেহমান আপনাকে যখন যেই রুম দেওয়া হবে সেই রুমেই থাকতে হবে।
মহুয়া এখনো মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে আছে, এক হাতে মাথার ঘোমটা টেনে নিল। আহনাফ ভুল বলেনি তবুও ধীরে শান্ত কন্ঠে বলে উঠলো, ‘ আমি জানি এটা আপনাদের বাড়ি,রুমও আপনাদের। এখন তো একটা রুম আমাকে থাকতে দেওয়া হয়েছে আমি সেখানেই যাচ্ছি। ‘

আহনাফ মহুয়ার দিকে তাকিয়ে আবার চোখ সরিয়ে নিল। মেয়েটার মুখটা কেমন সাদা হয়ে ফেঁকাসে হয়ে আছে। শরীর মৃদু কাঁপছে।
আহনাফঃ চুপচাপ বিছানায় এসে বসুন।
মহুয়া এবার চোখ তুলে তাকালো আহনাফের দিকে। খুব বিরক্ত আর অসহ্য লাগছে আহনাফের কথাগুলো। ওর এখন কিছু খাওয়া দরকার সাথে বিশ্রাম। মহুয়া জানে শুধু আহনাফ নয় এখন বাড়ির সবাইকে এক এক করে বিস্তারিত খুলে বলতে হবে কি হয়ে ছিলো। কেউ জানতে চাইবে না মহুয়া এখন বলতে চায় কি না!!? আহনাফ ও হয়তো এখনি আবার জিজ্ঞেস করবে, কিভাবে ওখানে গেলো.? ওরা কি কিছু করেছে.? ওরা কেন ওকে নিয়ে গেলো.? আরও হয়তো অনেক কিছু!!

আহনাফ ওর এইসব ভাবনায় এক বালতি জল ঢেলে বলে উঠলো, ‘ আপনাকে একটা কথা বার বার কেন বলতে হয়.?’
মহুয়া নিজের ভাবনা থেকে বের হয়ে আহনাফের দিকে তাকালো।
আহনাফঃ আপনি নিজ থেকে আসবেন নাকি কোলে করে আনতে হবে। যদিও আপনি অনেক ভাড়ি।আমার হাত ব্যথা হয়ে গেছে আপনাকে কোলে নিয়ে। আপনার ওজন কতো.?
আহনাফের কথা শুনেই মহুয়া চোখ বড় করে তাকালো৷
আহনাফ নিজেকে কঠিন দেখাতে গিয়েও হেঁসে ফেললো। কি সুন্দর সেই হাসি।সুদর্শন পুরুষরা হাসলে বুঝি এতোটা সুন্দর লাগে!? মহুয়া মুগ্ধ হয়ে সেই হাসি দেখলো। শ্যামবর্ন এক সুদর্শন পুরুষ, 6ফুট লম্বা, সব চেয়ে আকর্ষণীয় হলো আহনাফের চুলগুলো। সিল্ক চুলগুলো কপালে এসে লেপ্টে আছে, সাথে হাল্কা চাপ দাড়ি,চোখগুলোও খুব সুন্দর। একটা পুরুষ এতটা সুন্দর হওয়া একদম উচিত নয়। পুরুষ মানুষ এতোটা সুন্দর, আকর্ষণীয় কেন হবে..? তাকালেই চোখ আঁটকে যায়,চোখ সরাতে গিয়েও থমকে যায় মহুয়া বার বার।

আহনাফ মহুয়াকে ওর দিকে এভাবে তাকিয়ে থাকতে দেখে মুখ আবার আগের মতো গম্ভীর করে নেয়।
~ আমি জানি আমি হ্যান্ডসাম তাই বলে এভাবে তাকিয়ে থাকবেন না। আমার লজ্জা লাগে।
আহনাফের কথাটা কানে যেতেই মহুয়ার ইচ্ছে করলো হুঁ হুঁ করে হেঁসে ফেলতে। মহুয়া চোখ সরিয়ে বলে উঠলো, ‘ আমি কিছু ভাবছিলাম সেই জন্য খেয়াল ছিল না কোনদিকে, কারদিকে তাকিয়ে আছি।
আহনাফঃ হ্যাঁ চুরি করতে গিয়ে ধরা পড়লে কতো অযুহাত বের হয়।
মহুয়া কিছু বললো না সত্যি তো হ্যাবলার মতো তাকিয়ে ছিলো। কতোটা নির্লজ্জ হয়ে গেছে। দ্বিতীয় বার সে কখনো কারো প্রশংসা করবে না,আর না কারো প্রেমে পড়বে। সে অনেক আগেই প্রতিজ্ঞা করে নিয়েছে জীবনে আর যাই হোক ” ভালোবাসা নামক বি*ষ সে পান করবে না,কখনো না।”

মহুয়া রুমে বসে আছে আহনাফ রুম থেকে বের হয়েছে দশ মিনিট হয়ে গেছে।

আমেনা বেগম হাতে খাবার নিয়ে মহুয়ার কাছে আসলো। খাবার দেখে খিদে যেন আরও বেড়ে গেল।
আমেনা বেগম মহুয়াকে ফ্রেশ হয়ে আসতে বললো।
মহুয়া ফ্রেশ হয়ে এসে বসলো।
আমেনা বেগমঃ খেয়ে বিশ্রাম নিবে।
মহুয়া খুশি হল কেউ ওকে কিছু জিজ্ঞেস করছে না।

আহনাফ বাসায় এসেই সবাই কে নিষেধ করেছে মহুয়া কে জেনো কিছু জিজ্ঞেস না করা হয়। কেউ জেনো এই বিষয় বাড়িতে কথা কখনো না তুলে।

খাবার খেয়ে বসে আছে এখন সে কি করবে.? নিজের রুমে যাবে.? ওফ্ফ নিজের রুমও তো বলা নিষেধ!..

আহনাফ অনেকক্ষন পর রুমে আসলো। শার্ট ভিজে শরীরের সাথে লেপ্টে গেছে,দেখেই বুঝা যাচ্ছে বৃষ্টিতে ভিজে এসেছে। এই সময় উনি কোথায় গিয়ে ছিলো..? বাহিরে প্রচুর বৃষ্টি হচ্ছে সাথে ঝড় তুফান । মহুয়ার দিকে একবার তাকিয়ে বললো, ‘ এখনো আছেন!।’
মহুয়ার ভীষণ রাগ হলো। সে কি ইচ্ছে করে আছে!? এই লোক তো বললো এই রুমে বসে থাকতে যতক্ষন না উনি ফিরে আসছে।
আহনাফ কিছু মনে করার ভঙ্গিতে বলে উঠলো, ‘ ওহ্ হে আমি তো বলে ছিলাম অপেক্ষা করতে। ‘
মহুয়া কিছু বললো না ওর অস্বস্তি হচ্ছে এই রুমে থাকতে।
আহনাফ গম্ভীর কণ্ঠে বলে উঠলো, ‘ রুমে যাও বিশ্রাম নাও। ‘

মহুয়া অবাক হলো একবারও কেউ ওকে কিছু জিজ্ঞেস করেনি। আজ বাড়িতে হলে মামি হাজারটা প্রশ্ন জিজ্ঞেস করত!!..কতো মিথ্যা অপবাদ ওর দিকে ছুড়ে মারতো। এই ঘটনার জন্য ওর খাওয়া দাওয়া বন্ধ করে দিত। এইসব ভাবতেই বুক চিঁড়ে এক দীর্ঘ শ্বাস বের হয়ে আসলো।
আহনাফ মহুয়ার হুট করে মহুয়ার অনেকটা কাছে চলে আসলো, ‘ আমি জানি আমার আশেপাশে মেয়েরা সারাক্ষণ থাকতে চায়,যেন আমি মধু আর মেয়েরা মৌমাছি। আমি কিন্তু আপনাকে মৌমাছি ভাবিনি মহুয়া আপনিও কেমন মৌমাছি হয়ে যাচ্ছেন।’

মহুয়া আহনাফের দিকে না তাকিয়ে বললো,’ বৃষ্টিতে ভিজে আপনার মাথা নষ্ট হয়ে গেছে, কাপড় চেঞ্জ করে নেন চিন্তা ভাবনাও চেঞ্জ হয়ে যাবে। বলেই বড় বড় পা ফেলে রুম থেকে বের হয়ে গেলো।

আহনাফ ওর যাওয়ার দিকে তাকিয়ে শব্দ করে হেঁসে উঠলো। জেনো ভীষণ মজা পেয়েছে।

আহনাফ তার ছেলেদের কল দিয়ে বললো সে কাল সকালে আসবে। এখন বাহিরে প্রচন্ড ঝড় বৃষ্টি হচ্ছে যাওয়া সম্ভব না।

ফোন রেখে বাহিরে বৃষ্টির দিকে তাকিয়ে বলে উঠলো, ‘ আমি আপনার বিষয় সবটা জানতে চাই মহুয়া একদম শুরু থেকে,..’

_______

ডাক্তারের সামনে শ্রাবণ বসে আছে।
ডাক্তার বলে উঠলো, ‘ রোগী আপনার কি হয়.?’
শ্রাবণ কিছুটা অস্বস্তি নিয়ে বলে উঠলো, ” আমার ওয়াইফ’
ডাক্তারঃ উনি হয়তো ঠিক মতো খাওয়া দাওয়া করে না,টেনশন করে বেশি, উনাকে রেস্টে রাখবেন কিছু দিন, একটুও টেনশন করা যাবে না, খাবারের দিকে খেয়াল রাখবেন।

শ্রাবণ ডাক্তারের কাছ থেকে মেঘলার কাছে এসে বলে উঠলো, ‘ চলুন। ‘
মেঘলাঃ কোথায়।
শ্রাবণঃ জাহান্নামে।
মেঘলাঃ আমার আপনাকে নিয়ে জান্নাতে যাওয়া স্বপ্ন দেখি, আমি কেন জাহান্নামে যাব।?
শ্রাবণঃ আপনার জায়গা জাহান্নামেও হবে না।
মেঘলাঃ আপনার বুকে হলেই হবে।
শ্রাবণ থমকে গেলো, এমন জবাব আশা করেনি শ্রাবণ। মুখ গম্ভীর করে বললো,’ বাড়িতে চলুন।’

গাড়িতে বার বার মেঘলা শ্রাবণের দিকে তাকাচ্ছে।
শ্রাবণ এটা খেয়াল করে ইচ্ছে করে ব্রেক কষলো মেঘলা ভয় পেয়ে গেলো।
শ্রাবণঃ সমস্যা কি তোমার.?
মেঘলা অবাক হওয়ার মতো মুখ করে বলে উঠলো, ‘ আমার সমস্যা!!.? আমার তো কোনো সমস্যা নেই।
শ্রাবণঃ তাহলে চোখ গাড়ির বাহিরে রাস্তায় রাখুন। না হলে গাড়ি থেকে বের করে দেব।
মেঘলা ইনোসেন্ট মুখ করে বলে উঠলো, ‘এতো কিউট মুখে এমন তিক্ত কথা আমার নরম হৃদয় ছিদ্রকরে দিল প্রিয় স্বামী ।’

শ্রাবণ কথা না বাড়িয়ে গাড়ি স্টার্ট দিলো। এই মেয়ের সাথে কথা বলে লাভ নেই। কখন কি বলে হয়তো নিজেও জানেনা।
মেঘলা আবার বলে উঠলো, ‘ আপনি কখনো কাউকে ভালোবেসেছেন.???’
সাথে সাথে শ্রাবণের চোখের সামনে ভেসে উঠলো এক মায়াবতীর মুখ, যাকে প্রথম দেখায় ওর হার্ট বিট ফার্স্ট হয়ে গিয়ে ছিলো, যার হাসিতে হৃদয়ে বসন্তের ফুল ফুটে ছিলো,যার তাকানোতে ওর দুই চোখ আঁটকে গিয়ে ছিল, ঘোমটার আড়ালে লুকিয়ে রাখা মুখটার প্রেমে পড়ে গিয়ে ছিল, যেভাবে মেঘ আড়াল করে নেয় রোদ কে, সেভাবে সেই নারী নিজেকে আড়াল করে নেয় ঘোমটার ভেতরে।

মেঘলা প্রশ্নের উত্তর না পেয়ে গাড়ির বাহিরে তাকালো। আজ সারাদিন ব্যস্ততায় কেটেছে কাল সে এইসব কিছুর সমাধান বের করবে। কে এই মহুয়া? কোথায় থেকে এসেছে? ওর অতীত কি? কি হয়ে ছিলো ওর সাথে? সব কিছু জানতে হবে! পলাশকে হসপিটাল থেকে কিডন্যাপ করে নিয়ে গেছে সকালেই মেঘলা ওর লোকদের দিয়ে ।এইসব কিছুর উত্তর একমাত্র পলাশ দিতে পারবে।

মহুয়ার ঘুম আসছে না মাথায় শুধু ঘুরছে সেই আগুন্তকঃ এর কথাই। কে ছিলো? CID মেঘ!! কে এই মেঘ.?? মহুয়া চোখ বন্ধ করে ভাবল, এটা মেয়ে ছিল, মহুয়াকে জড়িয়ে ধরতেই মহুয়া বুঝে ছিল, মহুয়া আরও ভাবল, এক পর্যায়ে বিরক্ত হয়ে ব্যালকনিতে গেলো। বাহিরে প্রচুর বৃষ্টি, বৃষ্টির ছিটা এসে ভিজিয়ে দিচ্ছে ওকে।

মহুয়া ব্যালকনি থেকে দৌড়ে ছাঁদে গেলো। মিনিটে বৃষ্টির পানি ওকে ভিজিয়ে দিলো। মহুয়া হঠাৎ কাঁদতে কাঁদতে হাঁটু গেড়ে ছাঁদে বসে পড়লো চিৎকার দিয়ে বলে উঠলো, ‘ আল্লাহ আমাকে পথ দেখান, আমি মুক্তি চাই এই জীবন থেকে। এই জীবনের শেষ কোথায়!..????’

চলবে…..
ভুলত্রুটি মার্জনীয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here