মায়াবতী পর্ব ১৪+১৫

0
787

#মায়াবতী
#পর্ব:১৪
#তানিশা সুলতানা

সাগর রীতিমতো আকাশে উড়ছে। তার চোখে মুখে খুশি উপচে পড়ছে৷ ঠোঁটের কোণে থেকে হাসি সরছেই না। তন্নি হাত রেখেছে সাগরের কাঁধে। হার্ট বিট রীতিমতো লাফাচ্ছে সাগরের।
আর তন্নি কাচুমাচু হয়ে বসে আছে। ভীষণ অস্বস্তি হচ্ছে তার সাগরের কাঁধে হাত রাখতে। কিন্তু কি করবে? এমনিতেই ভীষণ ভয় পায় তারওপর আবার পেছনে ধরার মতো কিছু নেই। তাই বাধ্য হয়েই সাগরের কাঁধে হাত রেখেছে। আর আল্লাহ আল্লাহ করছে যাতে রাস্তাটা দ্রুত শেষ হয়।

বাড়ি থেকে একটুখানি দূরে বাইক থামায় সাগর। তন্নি তাড়াহুড়ো করে নেমে যায়। সাগর হেলমেট খুলে চুল ঠিক করতে থাকে।

“ধন্যবাদ ভাইয়া

মুচকি হেসে বলে চলে যেতে নেয় তন্নি।

” শুনো তন্নি

সাগরের ডাকে দাঁড়িয়ে যায় তন্নি। পেছন ঘুরে সাগরের দিকে তাকায়।

“তোমার কি আমার সঙ্গ খারাপ লাগে? আই মিন বিরক্ত লাগে?

” না না এটা কেনো হবে?

“তাহলে ভালো লাগে?

সাগরের ঠোঁটের কোণে হাসি ফুটে ওঠে।

” হুমম লাগে

বলেই তন্নি চলে যায়। সাগর লাফিয়ে ওঠে। চুল গুলো দুই হাতে পেছনে ঢেলে দুই হাত মেলে দিয়ে আকাশের দিকে তাকায়।
“খুব তাড়াতাড়ি তোমাকে আমার করে নিবে তন্নি৷ তুমি শুধু আমার। বুকের ভেতর লুকিয়ে রাখবো তোমায়। কাউকে নজর দিতে দিবো না।

বিরবির করে বলে সাগর।

অর্ণব ওদের পেছন পেছন এসেছিলো সব কিছু শুনে এবং দেখে। রাগে লাল হয়ে গেছে অর্ণব। কাটা হাত বেয়ে রক্ত পড়ছে। তবুও তার কোনো হুশ নেই।

তন্নি বাড়িতে ঢুকে দেখেইতি আর তামিম বাড়িতে নেই। ফোনটা বিছানার ওপর রাখা। ভাত বেরে বিছানার ওপর ঢেকে রেখে গেছে। গেলো কোথায়?
চিন্তায় পড়ে যায় তন্নি।
বিছানার এক পাশে একটা প্যাকেট দেখে। সেটা খুলে ফেলে তন্নি। ভেতরে ছিলো একটা পাতলা টিশার্ট আর প্লাজু। খুশি হয়ে যায় তন্নি। নতুন জামা পড়তে তার ভীষণ ভালো লাগে।
ফোনটা অন করে দেখে বড়মামার নাম্বার থেকে অনেক গুলো কল এসেছে।
তন্নি আবার কল ব্যাক করে

ইতি বেগম জানান
সে গেছিলো তার অসুস্থ মাকে দেখতে। এবং আজকেই ফিরে আসতে চেয়েছিলো। কিন্তু মায়ের শরীরের অবস্থা বেশি খারাপ হওয়াতে সে আসতে পারবে না। খাবার রাখা আছে তন্নি যেনো খেয়ে নেয়। আর পাশের বাসার পারুলকে বলে এসেছে। রাতে পারুল থাকবে তন্নির সাথে।

তন্নি দীর্ঘ শ্বাস ফেলে ফোন রাখে। নতুন জামাকাপড় হাতে নিয়ে কল পাড়ে যায়। তন্নিদের বাড়ির এক পাশে টিবওয়েল। সেখানেই গোছল করতে হয়।
গোছল শেষে গামছা দিয়ে চুল পেঁচিয়ে জামাকাপড় উঠোনে মেলে দিয়ে রুমে যায় তন্নি।
রুমে ঢুকতেই চমকে ওঠে। কারণ অর্ণব বসে আছে খাটের এক পাশে।

” আআআপনি

তন্নি ভয় পেয়ে চোখ বড়বড় করে বলে। অর্ণব তাকিয়ে থাকে তন্নির দিকে৷ পা থেকে মাথা পর্যন্ত দেখছে।একদম অন্য রকম লাগছে তন্নিকে। সদ্য গোছল করায় উজ্জ্বলতা অনেকটা বেরে গেছে। চোখে মুখে বিন্দু বিন্দু পানি জমেআছে। গামছা দিয়ে বেঁধে রাখা চুলগুলো থেকে কিছু চুল বেরিয়ে এসেছে। পাতলা টিশার্টটা খানিকটা ভিজে গেছে। ফর্সা গলা চুয়িয়ে পানি ভেতরে চলে যায়।

অর্ণবের রাগ পড়ে যায়। চোখ বন্ধ করে জোরে জোরে শ্বাস টানতে থাকে।

“ওড়না জড়াও বেয়াদব মেয়ে।

অর্ণব দাঁতে দাঁত চেপে ধমক দিয়ে চলে। তন্নি লজ্জায় মাথা নিচু করে ফেলে। চট করে চুল গুলো খুলে দেয়। ওড়না দেখতে পাচ্ছে অর্ণবের পেছনে।
গামছাটা একদম ভেজা।
চুল গুলো দুই পাশে ভাগ করে দেয় তন্নি।

” পারমিশন ছাড়া কোনো মেয়ের বেডরুমে ঢুকতে নেই জানেন না আপনি?

তন্নি অর্ণবের দিকে এগিয়ে এসে কোমরে হাত রেখে বলে।

“তুমি মেয়ে না কি?
নিচের দিকে চোখ রেখেই বলে অর্ণব।

” আমি মেয়ে না?

গাল ফুলিয়ে বলে তন্নি।

“নাহহ

” তাহলে আমি কি?

“মহিলা

তন্নি নাকের পাটা ফুলিয়ে আরও একটু এগিয়ে আসে। অর্ণব এবার তাকায় তন্নির দিকে। মেয়েটা কি পাগল করার ধান্ধা এঁটেছে?

” আমি মহিলা? ঠিক আছে তাই ই আমি।
এবার প্লিজ বাইরে বের হয়। কেউ দেখে ফেললে সর্বনাশ হয়ে যাবে। এমনিতেই আমার মা বাড়িতে নেই।

অর্ণব তন্নির হাত ধরে পাশে বসিয়ে দেয় তন্নিকে। তন্নি হতভম্ব হয়ে যায়। গলা শুকিয়ে আসে। এমন করছে কেন?
অর্ণব তাকিয়েই আছে তন্নির দিকে। তন্নি ওঠার চেষ্টা করে। অর্ণব তন্নির পিঠের ওপর দিয়ে হাত দিয়ে একটুখানি জড়িয়ে ধরে। তন্নি ভয় লজ্জা অস্বস্তিতে একদম কুঁকড়ে যায়।

“এএটাকি করছেন আপনি? প্লিজ চলে যান।

অর্ণব তন্নির কাঁধে নিজের মাথা ঠেকিয়ে চোখ বন্ধ করে ফেলে।

” তোমার সাথে থাকতে আসি নি। আমার রাখার যৌগ্যতা তোমার নেই। গাধা

গম্ভীর গলায় বলে অর্ণব। তন্নি শুকনো ঢোক গিলে। হাত পা কাঁপছে রীতিমতো। গলা শুকিয়ে কাঠ হয়ে গেছে।

“ভাইয়া প্লিজ

বলতে বলতে কেঁদে ফেলে তন্নি। তন্নির কান্নায় বিরক্ত হয় অর্ণব। তন্নির ঘাড় থেকে মাথা তোলে। মাথা নিচু করে কাঁদছে তন্নি।
অর্ণব ফোঁস করে শ্বাস টেনে উঠে দাঁড়ায়।
তারপর আচমকা তন্নিকে পাঁজা করে কোলে তুলে নেয়। তন্নি চমকে ওঠে। ভয়ে অর্ণবের গলা জড়িয়ে ধরে।

“পরপুরুষের কাঁধে হাত রাখার সখ মিটিয়ে দিবো আজকে আমি।

বলতে বলতে তন্নিকে নিয়ে বেরিয়ে যায়। তন্নি চেঁচাতে গিয়ে চেঁচাতে পারে না। আশেপাশে লোক জড়ো হয়ে গেলে শেষ হয়ে যাবে তন্নি।
মনে মনে আল্লাহ আল্লাহ করছে যাতে কেউ না দেখে।
অর্ণব তন্নিকে গাড়িতে বসিয়ে দিয়ে লক করে দেয়। তন্নি কাঁপছে৷ কান্না করতেও ভূলে গেছে। মস্তিষ্ক কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছে। মাথা বনবন করছে। কি হচ্ছে এসব?
অর্ণব ড্রাইভিং সিটে বসে পড়ে। নিজপর সিট বেল্ট বাঁধতে গিয়ে তন্নির দিকে তাকায়। তন্নিকে কাঁপতে দেখে বাঁকা হাসে অর্ণব৷
তারপর তন্নির দিকে ঝুঁকে সিট বেল্ট বাঁধার জন্য তন্নি চোখ মুখ খিঁচে একদম সিটের সাথে মিশে যায়।
অর্ণব ভ্রু কুচকে তাকায় তন্নির মুখের দিকে। বেশ লাগছে দেখতে।
মুচকি হেসে সিট বেল্ট বেঁধে দূরে সরে আসার সময় নজর পড়ে তন্নি ঘাড়ে থাকা লাল তিলটার দিকে। দারুণ আকর্ষণীয় তিলটা। লোভ সামলাতে পারে না অর্ণব। হাত এগিয়ে দেয় তিলটার দিকে।
আর তখনই তন্নি চোখ পিটপিট করে দুর্বল গলায় প্লিজ বলে।
থেমে যায় অর্ণব। তন্নির মুখে ফু দিয়ে নিজের সিটে এসে বসে।
আর তন্নি আবার চোখ মুখ খিঁচে ফেলে। হার্ট বিট দ্রুত লাফাচ্ছে। অস্থির লাগছে৷

“বাঁদরে মতো কাচুমাচু না হয়ে ভালো করে বসো। তোমার সাথে বাসর করে ফেলি নি আমি।

অর্ণব ড্রাইভ করতে করতে বলে। তন্নি আবার চমকে ওঠে। চোখ খুলে জোরে জোরে শ্বাস টানে।
বুকে থু থু নেয়।

” এই লোকটা কবে জানি আমাকে মে*রে ফেলবে।

তন্নি বিরবির করে বলে।

“হ্যাঁ
আর সেটা খুব দ্রুত।
তোমাকে না মে*রে ফেলা পর্যন্ত আমি শান্ত হতে পারছি না।

অর্ণব বলে ফেলে। তন্নি অবাক হয়ে যায়।

” লোকটা শুনলো কি করে?

অর্ণব বাঁকা হাসে।

“আমাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছেন?

তন্নি মাথা নিচু করে রিনরিনিয়ে জিজ্ঞেস করে।

” সাগরের কাছে। ওর সঙ্গ তো তোমার ভালো লাগে। তাই ভাবলাম তোমাদের দুজনকে পাশাপাশি বেঁধে রাখবো।
শান্ত গলায় বলে অর্ণব। তন্নি বড়বড় চোখ করে তাকায় অর্ণবের দিকে।

চলবে

#মায়াবতী
#পর্ব:১৫
#তানিশা সুলতানা

বিকেল গড়িয়ে সন্ধা হয়ে আসছে। সূর্য পশ্চিম আকাশে ঢলে পড়েছে। তন্নি অর্ণবের দিকে তাকিয়ে বসে আছে। আর অর্ণব এক মনে ড্রাইভ করে যাচ্ছে।

এই পর্যন্ত একশত বার বলা হয়ে গেছে “আমাকে বাড়িতে দিয়ে আসুন” কিন্তু অর্ণব কানেই তুলছে না। যেনো সে শুনতেই পায় নি। এখন তন্নি বিরক্ত হয়ে অর্ণবের দিকে তাকিয়ে আছ। এই লোকটার মতিগতি কিছুই বুঝতে পারেনা তন্নি।

“ও ভাইয়া।

অর্ণব তাকায় না পর্যন্ত।

” জানালাটা খুলে দিন।
তন্নি মুখ গোমড়া করে বলে।

“তোমাকে হ*ট লাগছে। এভাবে সবাই দেখুক এটা চাইছি না আমি।

সোজা সাপ্টা উওর অর্ণবের। তন্নি লজ্জা পেয়ে মাথা নিচু করে। মনে মনে শখানিক গালি দেয় অর্ণবকে।
চুল গুলো ভালো ভাবে মেলে নিজেকে ঢাকতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে তন্নি।

আচমকা গাড়ি থামিয়ে ফেলে অর্ণব। তন্নি অর্ণবের থেকে চোখ সরিয়ে নেয়।

“কাজি অফিসে যাবে অথৈয়ের তন্নি?

তন্নি চমকে আবার তাকায় অর্ণবের দিকে।

” ভাইয়া আমার আঠারো হয় নি এখনো। শাক্ষি হিসেবে নেবে না আমায়।

তন্নি রিনরিনিয়ে বলে।
শেষের কথা কানে তুলে না অর্ণব।

“আঠারো হয় নি তো কি হইছে? আঠারোতে নাহয় বেবি হবে।

তন্নির হাতটা মুঠো করে ধরে বলে অর্ণব। তন্নি নিজের হাতের দিকে তাকায়।

” আমার সাথে এমন করেন কেনো আপনি? এমন তো নিধি আপুর সাথে করা উচিৎ।
আপনি এখন এখানেই বা কেনো? আপনার বাড়িতে তো নিধি আপু আর আপনার বিয়ের কথা বার্তা চলছে।

তন্নি নিজের হাতটা ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে রিনরিনিয়ে বলে।

“চলতে থাকুক।

” হ্যাঁ তাতো থাকবেই। আমার সাথে কেনো করেন এমন?

“কারণ তুমি আমার মায়াবতী

তন্নির হাতটা টেনে নিজের বুকে নিয়ে বলে অর্ণব। তন্নি চোখ ঘুরিয়ে তাকায় অর্ণবের দিকে৷ অর্ণব আপাতত চোখ বন্ধ করে আছে।

” দেখো মায়াবতী
জেলাসি ঠেলার মতো পাবলিক আমি না। তুমি অন্য ছেলেদের সাথে ঘেসাঘেসি করবে আমি সেটা দেখে জেলাস হবো। বিরহের গান গাইবো এটা কখনোই হবে না।
হয় তোমাকে শে*ষ করে দিবো নাহয় সেই ছেলেকে শে*ষ করে ফেলবো।

খুব শান্ত গলায় বলে অর্ণব। তন্নি মাথা নিচু করে শুনতে থাকে।

“আজকের পর থেকে তোমার যত মামাতো চাচাতো পড়াতো ভাই আছে তাদের সাথে কথা বলা তো দূর তাদের দিকে চোখ তুলে তাকালেও চোখ তুলে নিবো আমি।
তারপর সারাজীবন কোলে করে ঘুরবো। ওয়াশরুমেও কোলে করে নিবো যাবো।
মাইন্ড ইট

তন্নির হাতের আঙুলের ভাজে নিজের আঙুল ঢুকিয়ে দিয়ে বলে অর্ণব।
তন্নি শুকনো ঢোক গিলে।

” হাতটা ছাড়ুন ভাইয়া। আমার কেমন কেমন লাগছে।

অসহায় ফেস করে বলে তন্নি। অর্ণব বিরক্ত হয়। হাত ছেড়ে দেয়।

“বাসর ঘরেও বলে বসবে ভাইয়া ছাড়ুন প্লিজ আমি ফিটার খাই।
গাঁধা একটা।

অর্ণব দাঁতে দাঁত চেপে বলে।

” নিধি আপু বলবে না। উনি খুব স্মার্ট

তন্নি নিজের হাতের দিকে তাকিয়ে বলে।

“মুখ বন্ধ রাখো ইডিয়েট

বলেই আবার গাড়ি চালানো শুরু করে।

তন্নি চুপচাপ কিছুখন বসে ছিলো। তারপর আর ভাল্লাগছে না। কখন বাড়ি দিয়ে আসবে এটাই মাথা থেকে সরছে না। অস্থির লাগছে। তাই ফট করে প্রশ্ন করে ফেলে।

” ভাইয়া সন্ধা হয়ে গেলো। কোথায় নিয়ে যাচ্ছেন?

“তোমার শশুড় বাড়ি।
অর্ণব ফট করেই বলে ফেলে।

” কিন্তু আমার তো বিয়ে হয় নি।

“তুমি বেশি জানো না কি?
এতো ঢাকঢোল পিটিয়ে বিয়ে করতে হয় না। মনের বিয়েই বড় বিয়ে। তোমার বর তোমায় মনে মনে বিয়ে করে ফেলেছে।
ব্যাস হয়ে গেছে। এখন তুমি একজন বিবাহিত মহিলা।

অর্ণব ভ্রু কুচকে বোঝার চেষ্টা করতে থাকে অর্ণব কি বললো।

“যদি অনেক গুলো ছেলে আমায় মনে মনে বিয়ে করে ফেলে তাহলে আমি অনেকগুলো ছেলেরই বউ হয়ে যাবো?

প্রশ্নটা করেই ফেলে তন্নি। আর ফট করে গাড়ি থেমে যায়। কিছু বুঝে ওঠার আগেই তন্নির গলায় ঠোঁটের ছোঁয়া পায়। খুবই অল্প সময়ের জন্য। কিন্তু ছোঁয়াটা একদম লেগে আছে। ভেজা গলায় হাত দেয় তন্নি। অর্ণব আবার গাড়ি চালানো শুরু করে দিয়েছে।
তন্নি চোখ মুখ খিঁচে বন্ধ করে আছে। শ্বাসও টানছে না। একদম স্টাচু হয়ে গেছে। পুরো শরীর কাঁপছে।

” শ্বাস টানো।

অর্ণব তন্নির দিকে আড়চোখে এক পলক তাকিয়ে বলে ওঠে।
কথাটা তন্নির কানে পৌছায় না। সে স্বাভাবিক হতে পারে না। ওভাবেই থাকে। অর্ণব বাঁকা হাসে।

বাড়ির সামনে গাড়ি থামিয়ে অর্ণব নেমে যায়। তন্নি এখনো একইভাবে বসে আছে।

ড্রয়িং রুমে এখনো আসর জমে আছে। আনোয়ার নিধির বাবাকে নিয়ে বেরিয়ে। নিধিকে ঘিরে ধরে গল্প করছে আশা আর্থি আর অথৈ।
অর্ণব সোজা গিয়ে অথৈয়ের পাশে বসে পড়ে।

“কোথায় ছিলি তুই এতোখন?

আশা জিজ্ঞেস করে।

” মম বউকে দেখতে গেছিলাম।

হেসে বলে অর্ণব। আশা চোখ পাকিয়ে তাকায়। নিধি রেগে থা*প্প*ড় মারে অর্ণবের পিঠে।

“গাড়িতে তোর তন্নি আছে। একটা ওড়না নিয়ে গিয়ে ওকে নিয়ে আয়।

অথৈয়ের কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিসফিস করে বলে অর্ণব।
অথৈ ভ্রু কুচকে তাকায় অর্ণবের দিকে।

” ডিটেইলসে পড়ে বলছি। আগে তার কাঁপা-কাঁপি বন্ধ কর গিয়ে।

অথৈকে কিছু বলতে না দিয়ে বলে অর্ণব। অথৈ এক দৌড়ে চলে যায়।
গাড়ির দরজা খুলে দেখে তন্নি স্টাচু হয়েবসে আছে। হালকা কাঁপছে মেয়েটা। গায়ে ওড়না নেই। চুল গুলো ছেড়ে দেওয়া। এভাবে কখনোই দেখেনি তন্নিকে অথৈ। কি হয়েছে আজকে।

“এই তন্নি
জান ঠিক আছিস তুই?

অথৈ তন্নির কাঁধে হাত রেখে বলে। তন্নি চোখ খুলে জিভ দিয়ে ঠোঁট ভিজিয়ে তাকায় অথৈয়ের দিকে।

” তোর ভাই আমার সাথে এমনটা কেনো করছে অথৈ?

বলতে বলতে কেঁদে ফেলে তন্নি। অথৈ জড়িয়ে ধরে তন্নিকে।

“কি করেছে ভাইয়া বল আমায়? আজকে আমি ওকে মে*রেই ফেলবো।

তন্নির মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে বলে অথৈ।

” আমাকে বাসা থেকে নিয়ে এসেছে। আবার কিস করেছে।

তন্নির কথা শুনে চোখ বড়বড় করে তাকায় অথৈ। কিস করেছে?
তন্নি মাথা নিচু করে ফেলে। দুই হাতে চোখের পানি মুছতে থাকে।

“কিসস করেছে?

তন্নি মাথা নারিয়ে হ্যাঁ বলে।

” আজকে ভাইয়াকে এর জবাব দিতেই হবে।
চল আমার সাথে।

তন্নির গায়ে ওড়না জড়িয়ে দেয় অথৈ। তারপর তন্নির হাত ধরে ভেতরে নিয়ে যায়।

চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here