প্রিয়তার প্রহর (দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ) পর্ব ১৬

0
75

#প্রিয়তার_প্রহর (২য় পরিচ্ছেদ)
পর্ব সংখ্যা (১৬)

[ প্রাপ্তমনস্কদের জন্য উন্মুক্ত। বাকিরা স্কিপ করতে পারেন ]

ইহানের বিরক্তি আকাশসম। কথা বলতেও কেমন বিরক্তি ঠেকছে তার। সামনে থাকা মেয়েটা তার শখের নারী। ইহান ভালোবাসে এই মেয়েটাকে। সেই প্রথম থেকে। কিন্তু ভালোবাসা প্রকাশে ইহান সর্বদাই কুণ্ঠিত বোধ করে। তানিয়াকে সে ভালোবাসে। কিন্তু ভালোবাসি কথাটি তানিয়ার সম্মুখে বলতে চায় না ইহান। বাড়িতে তানিয়ার মা এবং বাবা দুজনেই আছেন। তাদের সামনে কিভাবে তানিয়াকে কোলে তুলে নিবে সে? নির্লজ্জের মতো তানিয়াকে কোলে তুলতে সংকোচ হচ্ছে ইহানের। তানিয়ার এহেন জেদে রুষ্ট হলো সে। বলল,

” তোমার কি পা নেই? কোলে তুলতে হবে কেন?

তানিয়া উঠে দাঁড়ায়। এখনো ব্রাশ করা হয়নি তার। ক্লোজআপের পেস্ট ব্রাশে লাগিয়ে দাঁত ব্রাশ করতে করতে তানিয়া বলে,

” পা আছে বলে কি কোলে নেয়া যাবে না?

ব্রাশ করা অবস্থায় তানিয়ার কথা বলা পছন্দ নয় ইহানের। তানিয়ার কথা বলাটা ভালো লাগল না ইহানের। চেঁচিয়ে বলে উঠল,
” অ্যাই ফাজিল। আগে ব্রাশ করো দ্যান কথা বলো।

তানিয়া ভেংচি কাটে। বাথরুমে গিয়ে ব্রাশ করে ফিরে আসে ঘরে। ইহান তাড়া দেয়। বলে,

” চলো এবার। আম্মাকে কথা দিয়েছি তোমায় নিয়ে যাবো।

দুষ্টু হাসে তানিয়া বলে,
” কোলে না নিলে যাবো না।

ইহান কি করবে ভেবে পায় না। বলে,
” বেশ কোলে নিবো। একটি শর্ত আছে। বাইরে গিয়ে সবাইকে বলবে বাথরুমে পড়ে গিয়েছিলে, পায়ে ব্যথা পেয়েছো সেজন্য আমি তোমায় কোলে নিয়েছি। ঠিক আছে?

ভড়কায় তানিয়া। রাগ হয় খানিক। বলে,
” মিথ্যে বলবো কেন? আমার পা ঠিক আছে। আপনি বলবেন তানিয়া যেতে চাইছে না। তাই জোর করে নিয়ে যাচ্ছি।

হতাশ হয় ইহান। তানিয়া এতটা জেদি ছিল না। এতটা বাচ্চামোও করতো না। সবসময় ভয় পেত তাকে। সব কথা অক্ষরে অক্ষরে পালন করতো। বিয়ের পর মেয়েটা পাল্টে গেছে। জেদি, একগুঁয়ে স্বভাবের হয়েছে। ইহানকে এখন আর ভয় পায় না তানিয়া। স্বামীর মতো ট্রিট করে। অথচ ইহান ভেবেছিল তানিয়া তার সাথে কখনো ফ্রি হতে পারবে না। মানতে পারবে না তাকে স্বামী হিসেবে। কিন্তু ইহানের থেকে তানিয়াই দ্রুত কদমে এগোচ্ছে। সম্পর্কটা নিয়ে ইহানের চেয়ে তানিয়াই বেশি ভাবছে, গুরুত্ব দিচ্ছে। তানিয়ার নিকট এগিয়ে আসে ইহান। স্বাভাবিক কণ্ঠে বলে,
” তুমি তো আগে এত জেদি ছিলে না তানিয়া। আমাকে ভয় পেতে।

ইহানের চোখে চোখ রাখে তানিয়া। বলে,

” আগে আপনি স্যার ছিলেন। ঘরে-বাইরে সব ক্ষেত্রে স্যার ছিলেন। কিন্তু এখন সম্পর্কে ভিন্নতা এসেছে। এখন আপনি আমার স্বামী।

শেষ কথাটুকু বলাস লজ্জা পেল তানিয়া। নতজানু হলো। পুনরায় বলে উঠল,

” বিয়েটায় আমার অমত ছিল। রাজি হতে চাইনি আমি। বাবা আর আন্টির কথায় রাজি হয়েছি বিয়েতে। তাই বলে যে আপনাকে অবজ্ঞা করবো, আপনাকে অপমান, অবহেলা করবো এমন মেয়ে আমি নই। সবচেয়ে বড় কথা বিয়েটা হয়ে গিয়েছে। এখন আমাদের উচিত সম্পর্কটাকে গাঢ় করা, টিকিয়ে রাখা। একে অপরকে সময় দেওয়া, একে অপরকে স্বাভাবিক হতে চেষ্টা করা। কি তাই নয় কি? আপনার আম্মা আমাকে বলেছে আপনি আমাকে ভালোবাসেন। কবে থেকে ভালোবাসেন তাও জানতে পেরেছি। অবাক হয়েছিলাম খুব। বছর খানেক ধরে একজনের প্রতি আসক্ত থাকা মানুষকে কিভাবে মন থেকে সরিয়ে দিই বলুন। কিভাবে দুরে রাখি? আপনি যতই বদ,রাগী, ঝগড়ুটে হন না কেন আমা তো জানি আপনি কেমন। কতটা দায়িত্ববান।

হাসে ইহান। প্রগাঢ় হাসি। তানিয়ার গালে হাত বুলায়। চুমু খায় সশব্দে। ললাটের মধ্যিখানে কম্পিত ওষ্ঠজোড়া রাখে। চোখ বুজে নেয় তানিয়া। রাঙা হয় মুখ। শিরা উপশিরা বেয়ে শীতল স্রোত বয়। সরে আসে ইহান। হুট করে এমন কাজ বোধহয় করতে চায়নি সে। থতমত খেয়ে পরিস্থিতি এড়াতে বলে,

“চলো। বাড়ি ফিরতে হবে।

তানিয়া চটপট আয়নায় নিজেকে দেখে নেয়। অতঃপর ইহানের নিকট এসে বাচ্চা কণ্ঠে বলে,

” নিন কোলে নিন।

হাসে ইহান। তানিয়ার বাচ্চামো উপভোগ করে। পেটে দৃঢ় চাপ প্রয়োগ করে পাজোকোলে তুলে নেয়। তানিয়া ততক্ষণাৎ জড়িয়ে ধরে ইহানের কাঁধ। বাইরে গিয়ে তানিয়ার বলা কথাটাই জানায় ইহান। খানিক লজ্জা পেলেও পরে সামলে নেয় নিজেকে। প্রেয়সীর জন্য একটু নির্লজ্জ হওয়াই যায়।

______

নিধি আর আরহাম বেরিয়েছে দুপুরে। নিধির কলেজে প্রোগ্রাম আছে। আরহামকে নিয়ে সেখানেই গিয়েছে। সেজেগুজে একদম নতুন বেশে আরহাম বেরিয়েছে। ছেলেটার সময় বদলেছে। নতুনত্ব এসেছে জীবনে। হাসিখুশি থাকে আরহাম। প্রিয়তার ভালো লাগে ভাইকে এমন সুখে থাকতে দেখে। প্রহর হাঁটছে পাশেই। প্রিয়তার গায়ে হালকা গোলাপী রঙের শাড়ি। প্রহরের পরণে ম্যাচিং শার্ট। হাঁটতে হাঁটতে প্রেয়সীর পানে তাকিয়ে পুনরায় সামনে তাকায় প্রহর। আইসক্রিমের দোকানে ছুটে যায় প্রিয়তা। দুটো আইসক্রিম কিনে। বিল পরিশোধ করে প্রহর।

ভালোবাসা এক তৃপ্ত বাসনা। সবাই ভালোবেসে প্রিয় মানুষকে নিজের করতে পারে না। যারা পারে তাদের অনেকেই আবার সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে পারে না। প্রিয়তা আর প্রহর, এরা দুজনের কেউই কাউকে সেভাবে ভালোবাসার সুযোগ পায়নি। দুরত্ব তাদের বুঝিয়েছে ভালোবাসা আসলে কি? ভালোবাসা প্রয়োজন কেন?

হাঁটতে হাঁটতে প্রিয়তা মুচকি হেসে বলে,
“ভাবিনি আপনার সাথে আবার দেখা হবে, ভাবিনি এক হবো আমরা।

প্রহর নিজেও হাসে। বলে,
” আমিও ভাবিনি।

এলাকার রাস্তাঘাট উন্নত হয়েছে। পাকা রাস্তায় দুজন মানব-মানবী হেঁটে চলেছে। প্রিয়তাকে মিষ্টি লাগছে ভিষণ। গোলগাল চেহারায় খুশি খুশি ভাব। ফুচকার গাড়ি দেখে আবার ওবায়না ধরে প্রিয়তা। বলে,

” চলুন ফুচকা খাই।

মুখ কুঁচকে ফেলে প্রহর। বলে,
” একদম না। রেস্টুরেন্টে গিয়ে কিছু খাওয়া যাবে। ফুচকা খেয়ে পেট খারাপ করতে হবে না।

মন খারাপ হয় প্রিয়তার। ঘাড় ঘুরিয়ে তাকিয়ে থাকে অন্যদিকে। হঠাৎ একটি বড়সড় লাঠি এসে প্রিয়তার পায়ের কাছে লুটায়। অবাক হয় প্রিয়তা। আতঙ্কে আর শব্দে লাফিয়ে ওঠে। মোটাসোটা লাঠিটা আরেকটু হলেই তার পিঠে লাগতো। লাঠিটার মতো প্রিয়তা লুটিয়ে পড়তো রাস্তায়। চিৎকার করে উঠতো। কিংবা লাঠিটা প্রহরের মাথায় লাগতে পারতো। ভয়ে ঘন শ্বাস ফেলে প্রিয়তা। প্রহরের দিকে তাকায় বড় বড় চোখ করে। প্রহরের তীক্ষ্ম চোখ তখন সামনে। আট-ন জন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ একত্রে এগিয়ে আসছে তাদের দিকে। চোখে অসম্ভব আক্রোশ। হাতে লাঠি, বাঁশ, কাঠের টুকরো। অনেকটা দূর থেকেই এরা লাঠিটা ছুড়েছে তাদের দিকে। প্রহর প্রিয়তার হাত ধরে। প্রিয়তার দিকে তাকিয়ে গম্ভীর স্বরে বলে,

” বিপদ এগিয়ে আসছে প্রিয়তা। পালাতে হবে।

প্রিয়তার চোখে অনেক প্রশ্ন। পরিস্থিতিটা বুঝে উঠতে পারল না। প্রহর বুঝল প্রিয়তার অভিব্যক্তি। কঠিন স্বরে বলল,
” আপনার প্রশ্নের উত্তর পরে দিচ্ছি। দৌঁড়ান।

শাড়ি পড়ে হাঁটতেই অসুবিধে হয় প্রিয়তার। দৌড়ানো তার জন্য অসম্ভব একটি কাজ। তবুও প্রহরের কথার পরিপ্রেক্ষিতে ছুট লাগাল সম্মুখে। হাত ধরে প্রিয়তা আর প্রহর ছুটতে লাগল ফুটপাত দিয়ে। প্রিয়তার পা শাড়িতে পেঁচিয়ে আসে বারবার। নিজেকে সামলে প্রহরের সাথে সাথে দৌড়ানোর চেষ্টা চালায় প্রিয়তা। প্রহরের সাথে তবুও পেরে ওঠে না। কোনরকমে ছুটে চলে মৃত্যুর ভয়ে। স্বেদজল গড়ায় গা বেয়ে। দৌড়াতে গিয়ে বারংবার থেমে যায়। হাঁপিয়ে ওঠে খুব। পুনরায় ছুটে প্রহরের হাত ধরে। ছুটতে ছুটতে বিরক্তি নিয়ে প্রিয়তা বলে,
” পালাচ্ছি কেন? আমরা কি কোনো অন্যায় করেছি?

প্রহর এক পলক প্রিয়তার দিকে তাকিয়ে প্রিয়তার সামনের রাস্তায় পরে থাকা ইটের টুকরো পা দিয়ে সরিয়ে দিয়ে বলে,
” অন্যের স্বার্থে আঘাত করেছি। এতটুকুই জানুন। কথা বলবেন না। সময় নেই।

প্রিয়তা পিছু ফিরে। লোকগুলো তখন ও দৌড়ে আসছে তাদের দিকে। প্রিয়তা চোখ বুজে নেয়। না আর পারবে না সে। আর পালাতে পারবে না। এত ভয় নিয়ে বেঁচে থাকতে পারবে না সে। দোষ করেনি সে, কেন লোকগুলো তাদের মারতে আসবে? কেন তারা পালাবে? প্রিয়তা থেমে যায় ততক্ষণাৎ। ঘন ঘন শ্বাস ফেলে বলে,
” আমি আর দৌড়াতে পারবো না।

প্রহর ও থামে। চোখেমুখে ফুটে ওঠে হতাশা। নিজের অপারগতা মেনে নিতে কষ্ট হয়। বলে,

” এতগুলো মানুষের সাথে আমি একা লড়াই করতে পারবো না প্রিয়তা। আমি বুঝতে পারছি আপনার কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু দৌড়ানো ছাড়া এখন আর উপায় নেই। ওরা সংখ্যায় বেশি। হাতে অস্ত্র ও আছে। আপনাকে নিয়ে আমি কোনো রিস্ক নিতে চাই না প্রিয়তা।

প্রিয়তা হাসে এত এত লোকের ভিড়ে রাস্তার এক পাশে দাঁড়িয়ে জড়িয়ে ধরে প্রহরের বাহু। ওরা এগিয়ে আসছে নিকটে। প্রিয়তা দ্রুত বলে ওঠে,
” আপনি একা কেন হতে যাবেন? আমি আছি তো। মার্শাল আর্ট জানি আমি। ওদের সাথে লড়তে পারবো।

আর কথা বলার সময় পায় না প্রিয়তা। দলবল এগিয়ে আসে। শক্ত মোটা কাঠ দ্বারা আঘাত করতে চায় প্রহরকে। প্রহর ট্রেনিং নিয়েছে। মোকাবিলা করার শক্তি আছে তার। প্রহর আঘাত পাওয়ার আগেই লোকটার হাত ধরে মুচরে দেয়। প্রিয়তা থেমে থাকে না। ঢাকায় ফেরার দুদিন পর প্রিয়তা বাসে করে ফিরছিল বাড়িতে। সন্ধ্যের মাঝামাঝি তখন। প্রিয়তার তখন ভয়-ডর অনেক। জীবনে নতুন যাত্রা শুরু করেছে সবে। বাসের সিটে বসে থাকাকালীন প্রিয়তা খেয়াল করে সিট না পেয়ে দাঁড়িয়ে থাকা প্রাপ্তবয়স্ক যুবকটি টাল সামলাতে না পেরে বারবার পড়ে যাচ্ছে। কাঁচুমাচু ভঙ্গিতে অপরাধীদের ন্যায় আশপাশে তাকাচ্ছে। চেষ্টা করেও নিজেকে ঠিকমতো গাইড করতে পারছে না। সন্দেহ হয় প্রিয়তার। কিছু না ভেবেই জিজ্ঞেস করে,

” আপনি আগে কখনো বাসে উঠেননি?

লম্বায় ছেলেটি পাঁচ ফুট পাঁচের উপরে। বয়স আঠারো কি উনিশ। অতি সুদর্শন না হলেও ছেলেটার চেহারা মায়াবি। অতিরিক্ত ফর্সা গায়ের রঙ। চোখের মণি বিড়ালের ন্যায়। প্রিয়তার এহেন কথায় ভ্যাবাচ্যাকা খায় ছেলেটি। বোকা হেসে বলে,

” এবারই প্রথম। আমার একটু জ্বর আসছে তো। দাঁড়িয়ে থাকতে পারছি না।

প্রিয়তার মায়া হয় ভিষণ। ছেলেটাকে নিজের সিটে বসিয়ে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়েই বাড়িতে ফিরে বাকিটা রাস্তা। নামার সময় প্রিয়তা দেখে ছেলেটা তাদেরই এলাকার। ধন্যবাদ জানাতে আসে ছেলেটি। অতঃপর কথাবার্তা বলে জানতে পারে ছেলেটি খ্রিষ্টান। নাম জুনিভো। বাবা-মা মারা গেছে ছোটবেলায়। দাদু জুলফিকার-এর কাছেই মানুষ হয়েছে জুনিভো। আগে ইন্ডিয়ায় থাকতো ওরা। দু বছর আগে বাংলাদেশে এসেছে। এখানে জুনিভোর দাদুর একটি মার্শাল আর্ট প্রশিক্ষণ কেন্দ্র আছে। প্রিয়তা শোনার পর খুব অবাক হয়েছিল। মার্শাল আর্টের একাডেমি এদিকে তেমন নেই। ছোটবেলা থেকেই মার্শাল আর্ট শেখার ইচ্ছে ছিল প্রিয়তার। মার্শাল আর্ট শেখার ইচ্ছে পোষণ করার পর জুনিভো প্রিয়তাকে নিয়ে গিয়েছিল তার দাদুর মার্শাল আর্ট একাডেমিতে। চার মাস ওখানেই মার্শাল আর্ট শিখেছে প্রিয়তা। জুলফিকার দাদু প্রচণ্ড ভালো মানুষ ছিলেন। প্রিয়তার সম্পর্কে সবই জানেন তিনি। প্রিয়তাকে তিনি নাতনির মতো ভালোবাসতেন। প্রিয়তা যখনই সময় পেয়েছে তখনই মার্শাল আর্ট শিখতে গিয়েছে ওখানে। পরিশ্রমী প্রিয়তা কঠোর মনোবল নিয়ে খুব শীঘ্রই কৌশল গুলো আয়ত্বে আনতে পেরেছে। ছোট ছোট কিন্তু প্রয়োজনীয় রণ কৌশলগুলোই শিখেছে সে। জুলফিকার বেশ ভালো ভাবেই প্রিয়তাকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। আজ সেই শিক্ষার যথাযথ প্রয়োগ করল প্রিয়তা। পা দিয়ে সজোরে লাথি দিল অচেনা ছেলেটিকে। গলায় চাপ দিয়ে মাথাটা ঘুরিয়ে ঘুষি দিল মেরুদণ্ড বরাবর। লুটিয়ে পরল ছেলেটি। প্রহর একের পর এক আঘাত করল ছেলেগুলোকে। দুজনে খুব কম সময়ে লড়াই করে নিজেদের প্রাণ বাঁচাতে জয়ী হলো। প্রহর ইহানকে ফোন দিয়ে ততক্ষণাৎ জানাল ফোর্স নিয়ে আসতে। প্রিয়তা দম নিল। ঠোঁটের কোণে ফুটে উঠল হাসি। বাইরে মোটামুটি মারামারি করেছে সে। তবে এমন যুদ্ধ এই প্রথম করল প্রিয়তা। প্রহর মুগ্ধ হলো প্রিয়তার লড়াইয়ে। পুলিশ ফোর্স এলো খুব শীঘ্রই। ধরা হলো সকলকে। প্রিয়তার ভয় বাড়ে। আজ এই কৌশলগুলো না জানলে ক্ষতি হতে পারতো তাদের। প্রহর পুলিশ হলেও মানুষ। হঠাৎ এতজন মানুষের আক্রমণের সাথে পেরে উঠতো না ছেলেটা।

____

ইহানের থানার সামনে দাঁড়িয়ে প্রহর। প্রিয়তাকে বাড়িতে রেখে এখানে এসেছে সে। ইহানের সাথে কিছু আলাপ আছে প্রহরের। সবকিছু খোলাসা করতেই তার এখানে আসা। থানার দারোয়ান প্রহরকে দেখেই হাসল দাঁত কেলিয়ে। শব্দ করে পা নাড়িয়ে ললাটে হাত রেখে সালাম জানাল। হাসল প্রহর। লোকটার এই এক অভ্যেস। তাকে দেখলেই এমনভাবে বিনয়ের সাথে সালাম দেয়। প্রহর সালামের উত্তর দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করল। থানাটা আগের মতোই আছে। কোনো পরিবর্তন হয়নি। আগের মতোই গোছালো, একই রঙ করা দেয়াল। প্রহর আজ এসেছে সাধারণ মানুষ হিসেবে। তবুও থানার সব কনস্টেবল আর প্রহরের চেয়ে জুনিয়র অফিসাররা প্রহরকে দেখে এগিয়ে এলো। সকলের চোখেমুখে প্রশান্তি। প্রহরের রিজাইন দেওয়ার খবরটা জানে তারা। খুব দুঃখ পেয়েছে প্রহরের নেওয়া সিদ্ধান্তে। প্রহরকে দেখে একে একে সকলে দু পাশে সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়াল। সালাম জানাল বিনয়ের সাথে। প্রহরের সাথে কুশল বিনিময় করল। একজন অফিসার বলল,

” আপনি কেন চলে গেলেন স্যার? আপনাকে ছাড়া থানাটা কেমন শান্ত শান্ত লাগে। কোনো আনন্দই নেই এখানে। ইহান স্যার তো এখন আর আমাদের সাথে আড্ডাই দেন না।

প্রহরের কণ্ঠে জড়তা কাজ করে।কাজের জায়গাটা তার প্রিয়। এখানকার মানুষগুলোকেও আপন করে নিয়েছে সে। সকলেই বেশ ভালোবাসে তাকে। অথচ সে সবার ভালোবাসার কথা ভাবেনি। নিজেকে ঠিক করে প্রহর বলল,
” জীবনে এমন এমন সব পরিস্থিতি আসে যে সে পরিস্থিতি আমরা চাইলেও মোকাবিলা করতে পারি না। তোমরা চিন্তা করো না। ভাগ্যে যদি পুলিশের চাকরি লেখা থাকে তো আবার জয়েন করবো। আবার তোমাদের সাথেই কাজ করবো।

প্রহর সকলকে রেখে ইহানের ডেস্কে গিয়ে বসে। বন্ধুর আগমনে খুশি হয় ইহান। তানিয়া গিয়েছে অন্য থানায়। কিছু ফাইল ট্রান্সফার করতে। ইহান হেসে বলে,

” কেমন আছিস? বিয়ের পরদিনই থানায়?

হাসে প্রহর। বলে,
” বিয়ের দিন তো তুইও থানায় এসেছিলি তানিয়াকে ফেলে।

থতমত খায় ইহান। বিয়ের কথাটা প্রহরকে এখনো জানানো হয়নি। তবে কি তানিয়া বিয়ের বিষয়টা জানিয়ে দিয়েছে প্রহরকে? অবাক কণ্ঠে ইহান প্রশ্ন করে,

” তুই জানিস?

হাসে প্রহর। বলে,
‘ ঢাকায় বসেও এখানকার সব খবর রেখেছি। কটা কেস সলভড করেছিস? কজনকে এরেস্ট করেছিস? সব জানি।

মাথা চুলকায় ইহান। কথা এড়াতে প্রশ্ন করে,
” ওই লোকগুলোকে পিটিয়েছি। তুই যেটা ভেবেছিলি তাই ঠিক। মেইন কালপ্রিট ওই দীপা খন্দকার। আর ওর আসল নাম কিন্তু দীপা নয়। মিথিলা। এর আগেও এই মহিলার নামে কেস করা হয়েছিল।

বাকি কথা টুকু বলার আগেই প্রহরের ফোন বেজে ওঠে। ফোনের স্ক্রিণে বয়স্ক এ সি পি এর নম্বর ভেসে ওঠে। প্রহরের চোখ উজ্জল হয়। ফোনটা ধরে বলে,

” হ্যালো স্যার।

ওপাশ থেকে অফিসার বলে ওঠে,
” হাই। তোমার খবর কি প্রহর? কোনো খোঁজ নেই।

” ঠিক আছি স্যার।

” কবে জয়েন করবে?

” সময় আসুক।

” সময়টা কবে আসবে প্রহর? সবাই তোমাকে চাইছে, সবাই চাইছে তুমি আবার জয়েন করো। তোমার মতো দায়িত্ববোধসম্পন্ন অফিসার আমি আর কোথায় পাবো? ভুলে যেও না তুমি শুধু একজন অফিসার নও। সততা ও ন্যায়ের প্রতীক। তোমাকে দেখে বর্তমানে সকল পুলিশ ন্যায় শিখছে। দেশের জন্য কাজ করছে। তুমি যদি এভাবে চলে যাও..

প্রহর স্বাভাবিক ভঙ্গিতেই সব কথা শোনে। এ কথা সে প্রায়ই শুনে উপরমহলের লোকেদের মুখে। দৃঢ় কণ্ঠে বলে,

” আমি ব্রেক নিয়েছি, হারাইনি। ফিরতে আমাকে হবেই স্যার। আজ হোক বা কাল।

_____

আরহাম পড়তে বসেছে নিধির ঘরে। অ্যাপেল, বল, ক্যাট এগুলো ইংলিশে লিখছে খাতায়। প্রিয়তা বারবার মোবাইল চেইক দিচ্ছে। অনেক প্রশ্ন জমে আছে প্রিয়তার মস্তিষ্কে। প্রহরকে এখন দরকার প্রিয়তার। সব প্রশ্নের উত্তর জানা প্রয়োজন। রাত ও হয়েছে। প্রহরের না ফেরার কারণে চিন্তা হচ্ছে প্রিয়তার।

প্রহর ফিরে অনেকক্ষণ পর। প্রিয়তা নিচে প্রহরের কণ্ঠ শুনে দ্রুত দৌড়ে বের হয় ঘর থেকে। দুপুরে ঘটে যাওয়া ঘটনার কথা কাউকে বলেনি প্রিয়তা। বললেই সকলেই চিন্তা করবে। প্রহরকে দেখে জড়িয়ে ধরতে ইচ্ছে হয় প্রিয়তার। মাথা রাখতে ইচ্ছে হয় প্রহরের প্রশস্ত ব্যায়ামপুষ্ট বুকে। সকলের সামনে নিজেকে সামলে নেয় প্রিয়তা। প্রহর ঘরে ফেরার সাথে সাথে প্রহরের বুকে হামলে পরে প্রিয়তা। শব্দ করে কেঁদে ফেলে। ভিজিয়ে দেয় প্রহরের শার্ট। প্রিয়তার মাথায় হাত বুলায় প্রহর। বলে,

” কাঁদছেন কেন?

প্রিয়তা চোখ উঁচিয়ে তাকায় প্রহরের পানে। বলে,
” ফোন দেননি কেন? সেই দুপুরে বেরিয়েছেন। এখন কটা বাজে খেয়াল আছে?

প্রিয়তার নরম গালে হাত বুলায় প্রহর। নাকে নাক ঘষে। চুমু খায় ঘাড়ে। জড়িয়ে ধরে প্রিয়তার মেদহীন কোমড়। কাছে টানে নিবিড়ভাবে। কানের লতিতে চুমু খায় বারংবার। প্রহরের গা থেকে মাদকীয় সুঘ্রাণ প্রিয়তার নাসারন্ধ্রে পৌঁছায়। অন্তঃস্থলে ভূকম্পন সৃষ্টি হয়। হীম শীতল হয়ে আসে গা। শিরশির কর উঠে শরীর। খাঁমচে ধরে প্রহরের কাঁধ। হাসে প্রহর। দুজনের ওষ্ঠাদ্বয় মিলিত হয়। স্ত্রীর ওষ্ঠের অমৃতসুধা পান করে প্রহর। আলিঙ্গনে আবদ্ধ হয়। হুট করে প্রহর ছেড়ে দেয় প্রিয়তাকে। থতমত খায় প্রিয়তা। লজ্জিত হয় বেশ। প্রহর দুর্বোধ্য হাসে। প্রিয়তার কপালে কপাল রেখে ঘনঘন শ্বাস ফেলে বলে,

” প্রিয়, আমার প্রিয়।

প্রিয়তা হাসে। এতক্ষণ ওষ্ঠে হওয়া ঝড়ে নেতিয়ে পরে। কাঁপা কাঁপা কণ্ঠে বলে,

” প্রিয় হলে কাছে টানছেন না কেন? হুহ্?

প্রহরের ঠোঁটে দুষ্টু হাসি প্রতীয়মান হয়। বলে,
” কাছে টানছি তো, আপনিই লজ্জা পাচ্ছেন।

” উঁহু এভাবে নয়।

” কিভাবে?

নত মুখ সোজা করে প্রিয়তা। প্রহরের রসিকতা ধরতে পেরে চোখ পাকায়। অভিমানী স্বরে বলে,

” মজা করছেন আমার সাথে?

প্রহরের হাসি গাঢ় হয়। চিকচিক করে ওঠে দন্ত। ফিসফিস করে বলে,

” মজা? না তো।

” বদ লোক কোথাকার। অসভ্য!

” এখনো তো অসভ্যতামো করলামই না ।

প্রিয়তা চলে যেতে চায়। দরজা অবধি পৌঁছাতেই হাত টেনে ধরে প্রহর। দরজা লাগিয়ে দেয়। প্রিয়তাকে এক হাতে আগলে নেয় বুকে। বক্ষস্থলে পীড়া অনুভব করে প্রিয়তা। গুঙিয়ে ওঠে। প্রহরের শক্তপোক্ত হাত প্রিয়তার শরীরের সর্বত্রে বিচরণ করে। নতজানু হয় প্রিয়তা। লাজে নুইয়ে যায়। ঘাড়ে মুখ ডোবায় প্রহর। কামড়ে ক্ষত সৃষ্টি করে সেথায়। “আহ্” জাতীয় শব্দ করে প্রিয়তা। চোখ বেয়ে চিকন নোনা পানি গড়ায়। প্রহরের মায়া হয়। ছেড়ে দিতে উদ্যত হলে বাঁধা দেয় প্রিয়তা। লজ্জিত কণ্ঠে বলে,

” উঁহু, যা..যাবেন না।

চলবে?
লেখনীতেঃ #বৃষ্টি _শেখ

[ কপি করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। লিংক কপি করতে পারেন।
পরবর্তী পর্বে শেষ হবে উপন্যাসটি ]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here