পরাণ দিয়ে ছুঁই (২য় পরিচ্ছেদ) পর্ব ৮

0
201

#পরাণ_দিয়ে_ছুঁই (২য় পরিচ্ছেদ)
#পর্বঃ৮
#Jhorna_Islam

এক্সাম শেষ হওয়ার পর অবসর সময় কাটছে নূরের। অবশ্য অবসর বললে ভুল হবে বইয়ের ভিতর মুখ গুজেই কাটিয়ে দেয় বেশির ভাগ সময়। মাঝে মাঝে ইচ্ছে হলে বিকেলের দিকে একটু ছাদে গিয়ে বসে।ছাদ বাগানে সময় কাঁটায়। যদিও বা নূর এই বাগান করেনি করেছে নূরের বোন তূর।তার আবার বাগান করার সখ অনেক।

মাঝে মাঝে ইসরাত এসে দেখা করে যায়। নূর বাবা মার সাথে এখনো ভালো করে কথা বলে না। দশটা জিজ্ঞেস করলে একটা উত্তর দেয়। বিশেষ করে বাবার উপর বেশি অভিমান হয়েছে। বাবা যতক্ষন বাড়িতে থাকে নূর রুম থেকে বেরই হয় না। আজ শুক্রবার বাবার অফিস ছুটির দিন। নূর ঘুম থেকে সেই সকাল ৬ টায় উঠেছে, এখন বাজে ৯:৩০। নূর এখনো রুম থেকে বের হয় নি। এতো সকালে ঘুম থেকে উঠায় প্রচুর খিদে লেগেছে। বাড়িতে শুক্রবার দিন সকলে এক সাথে সকালের নাস্তা করে ৯:৩০ এ। তূর এসে একবার ডাক দিয়ে গেছে খাওয়ার জন্য কিন্তু নূর বলে দিয়েছে তোরা খেয়ে নে। আমার খিদে লাগেনি খিদে লাগলে খেয়ে নেবো।

তূর আরো কয়েকবার জোরাজোরি করে নূরের সাথে না পেরে চলে যায়। নূর একটা উপন্যাসের বই নিয়ে বৃথা মনোযোগ দেওয়ার চেষ্টা চালায়, কিন্তু পেটে খিদে থাকলে কিছুই ভালো লাগে না। নূরের ও এখন পড়তে ইচ্ছে করে না।

এরমধ্যে আবার দরজায় টো’কা পরে। নূর তূরের উপর বেশ বিরক্ত হয়।এই মেয়ে টা কি কিছু বুঝে না নাকি।

উফফফ তূর একদম বিরক্ত করবি না বলে দিচ্ছি। আমার ভালো লাগছে না। খিদে লাগলে খেয়ে নিবো তোকে কয়বার বলতে হবে?

ওপর পাশ থেকে কিছু সময় নীরবতায় কেটে যায় কোনো সারা শব্দ পাওয়া যায় না। নূর ভেবেছে হয়তো চলে গেছে কিন্তু এর মাঝেই কানে এসে লাগে কারো কন্ঠ স্বর,,,,

নূররর?

নূরের বাবার ডাক শুনে সোজা হয়ে বসে নূর,কিন্তু বাবার দিকে তাকায় না।

নূর বাবা ডাকছি মা শুনতে পাচ্ছিস না?
,,,,,,,,,,,,,,

আম্মা? এই আম্মা!

এরকম ডাকে কি চুপ থাকা যায়? অন্তত বাবার এইরকম ডাক নূর কখনো উপেক্ষা করতে পারবে না আর না কখনো করেছে।

বাবার দিকে ছলছল দৃষ্টিতে তাকায়। নূরের বাবা এসে নূরের পাশে বসে।মাথায় হাত রেখে বলে,, খাবি চল আম্মা।

নূর অন্য দিকে তাকিয়ে নিজের চোখের পানি লোকানোর চেষ্টা করে বলে,,তোমরা খেয়ে উঠো আমার খিদে নেই।

বাবার সাথে মিথ্যা কথা বলা শিখে গেছিস আম্মা? সেই সকালে ঘুম থেকে উঠছিস আর বলছিস খিদে নেই? আমি কি জানিনা সকালে ঘুম থেকে উঠলে যে তোর খিদে লাগে?

নূর চুপ করে রয়।কোনো উত্তর দেয় না।

নূরের বাবা মেয়ের মুখের দিকে তাকিয়ে রয়।মুখটা কেমন শুকিয়ে গেছে। ঠিক মতো খাওয়া দাওয়া ঘুম কিছুই করছেন না যে মেয়ে তা খুব ভালো করেই জানে। নূরের বাবা নূরের মাথায় হাত রেখে বলে বাবার উপর খুব অভিমান হয়েছে তাই না আম্মা?

আমার কিছু ভালো লাগছে না বাবা প্লিজ।

বাবার উপর সব সময়ের মতো একটু ভরসা রাখ না আম্মা।

ভরসার ফল তুমি আমাকে দিয়েছো বাবা। আমি এখনও তোমাকে ভরসা করি,বিশ্বাস করি আর সব সময় করবো। কিন্তু মনের ভিতর যে দাগ সৃষ্টি হয়েছে সেটা কিছুতেই মুছতে পারছি না আমি। আমার মনে হচ্ছে আমার সব শেষ সব। আমার লাইফটা ধ্বংস হয়ে গেছে। হুট করে একটা লোকের সাথে কি করে কি বাবা? আমার ইচ্ছে অনিচ্ছার কি কিছু দাম আছে? সারাজীবন তুমি আমাদের স্বাধীনতা দিয়ে এসেছো।যখন যা চেয়েছি সব পেয়েছি তুমি কোনো অভাব রাখোনি,সব সময় পাশে ছিলে।কিন্তু জীবনের সবচেয়ে বড় ডিসিশন টা তুমি এভাবে দিয়ে দিলে? আমাকে তুমি একটা ব’দরা’গী যে কি না প্রতি সেকেন্ডে সেকেন্ডে পারলে আমাকে অপমান করে। নিচু করে তার সাথে? আর কেউ কি ছিলো না পৃথিবীতে? সবচেয়ে বড় কথা ফাতিহা? লোকটা আগে থেকেই বি,,,, নূর আর কিছু বলার আগেই তার বাবার ফোনে কল আসে। গুরুত্বপূর্ণ কল হয়তো নূরের বাবা তারাতাড়ি রুম থেকে বের হয়ে যায়।

নূর বাবার দিকে ছলছল চোখে তাকিয়ে রয়। রাগে অভিমানে হুঁশ হারিয়ে ফেলেছে নূর। এতো সময় ধরে কি বলেছে কি করেছে নিজেও বুঝতে পারে নি। মাথায় এখন খেলে গেলো এটা ঠিক হয়নি একদম ঠিক হয়নি। যে বাবার সাথে জীবনে কোনোদিন গলা উঁচু করে কথা বলেনি সে বাবা কে আজ কতোগুলো কথা বলেছে। বাবা নিশ্চয় অনেক কষ্ট পেয়েছে। এ আমি কি করলাম? বলেই নূর নিজের মাথার চুল ধরে টেনে শব্দ করে কেঁদে উঠে। অনেক সময় নিয়ে কাঁদতে থাকে, কাঁদতে কাঁদতে এক পর্যায়ে নূর ঘুমিয়ে যায়।

,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,

এক্সামের পর কয়েকদিন অফ ছিলো নূরদের ভার্সিটির ক্লাস। এখন আবার শুরু হয়েছে। বাবার সাথে ঐদিন ঐভাবে কথা বলার পর নূর আরো কেমন জানি নিজের ভিতর নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছে। বাবার কাছে ঐভাবে কথা বলার জন্য ক্ষমা চাওয়া উচিৎ কিন্তু কোন মুখে চাইবে? অনুশোচনায় সামনে ও যেতে বাঁধছে। দুই দিন ধরে বাবা কে দেখছে না নূর।তূর কে অবশ্য জিজ্ঞেস করেছে এ নিয়ে, তূর বলেছে বাবার শরীর টা তেমন ভালো না আর অফিসে কাজের অনেক প্রেসার যাচ্ছে।

নূর মনে মনে ঠিক করে নেয় আজ ভার্সিটি থেকে এসেই আগে বাবার সাথে কথা বলবে।সব ভুল বোঝাবুঝি মিটিয়ে নিবে।

নূর আর ইসরাত যথাসময়ে ভার্সিটিতে উপস্থিত হয়। ক্লাস শুরু হওয়ার জন্য সব ছাত্র ছাত্রী বসে আছে। ক্লাসের নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে আরো দশ মিনিট চলে গেলেও স্যার আসার কোনো নাম নেই।

ইসরাতের এমনিতেও ভালো লাগছিলো না ক্লাস করতে। মনে মনে ঠিক করে নিয়েছে আর কিছু সময় দেখেই নূর কে নিয়ে ক্লাস থেকে বের হয়ে যাবে। এরমধ্যে পিওন এসে জানায় আজ প্রথম ক্লাস হবে না। অফিসে জরুরি মিটিং চলছে,তবে অন্যান্য ক্লাসগুলো যথা সময়ে হবে।

ইসরাত বেশ খুশি হয়। এই নূর চল বাইরে থেকে হাটাহাটি করে আসি আর কিছু খেয়ে আসি।

নূরের ও খুব খিদে লেগেছে তাই না করেনি,এমনিতেও কিছু খেয়ে আসা হয়নি সকালে। দুই বান্ধবী তাই বেরিয়ে পরলো। ক্যানটিনে গিয়েই ইসরাত ফুচকা অর্ডার দেয়।নূর প্রথমে ভেবেছিলো অন্য কিছু খাবে কিন্তু ইসরাতের ফুচকা খাওয়া দেখে নিজেকে আর সামলাতে পারলো না। নিজেও বেশি করে ঝাল দিয়ে ফুচকা অর্ডার দিয়ে দেয়।

দুই বান্ধবী তৃপ্তি নিয়ে মজা করে তিন প্লেট করে খেয়ে নেয়।ঝালে একেকটার অবস্থা কা’হিল।মুখ আর কান দিয়ে যেনো ধোঁয়া বের হয়। এরমধ্যে ইসরাতের ঝাল কমে গেলেও নূরের মুখ থেকে ঝাল কমছে না।পানি খেতে খেতে শেষ। ২য় ক্লাসের সময় ও হয়ে গেছে। নূরদের ক্লাস ২য় ফ্লোরে, ঐখানে উঠে নূর ওয়াশরুমে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করলো আর হাতের বোতলের পানি ও শেষ। এইদিকে ক্লাসের সময় ও হয়ে গেছে তাই নূর ইসরাত কে বলল ক্লাসে যেতে নূর ওয়াশরুম থেকে আসছে।অবশ্য ইসরাত সাথে যেতে চেয়েছিলো নূর বারণ করলো। স্যার যা বলে তা নোটস করে রাখতে বলল।

নূর ওয়াশরুমে ঢুকে যায় এইদিকে ক্লাসে স্যার ও ঢুকে পরে।নূর জানতেও পারলো না আজকে তাদের সেকেন্ড ক্লাস টা এতোদিন যেই টিচার করতো আজ উনি করবেন না। মি.সৌন্দর্য ওয়াহিদ করবে।

সৌন্দর্য ক্লাসে ঢুকার সাথে সাথে সবাই দাঁড়িয়ে যায়,আর কানা ঘোষা করতে থাকে এই স্যার আজ হঠাৎ।

সিট সৌন্দর্য গম্ভীর গলায় বলে। সৌন্দর্যের কথায় সকলেই বসে। কিন্তু স্টুডেন্টদের কথার সাউন্ড সৌন্দর্যের কানে এসে লাগে।

কিপ কোয়াইট!! জোরে বলে সৌন্দর্য। পুরো ক্লাসে এক নজর চোখ বুলিয়ে বলে,,আমি আমার ক্লাসে একটা অপ্রয়োজনীয় সাউন্ড ও শুনতে চাই না। খাতা কলম ছাড়া আর কোনো কিছুর আওয়াজ যেনো আমার কানে এসে না লাগে। অন্যথায় যে কথা বলবে তাকে এসে ক্লাস নিতে হবে।

সৌন্দর্যের কথায় সকলেই চুপসে যায়। এমন সুদর্শন স্যারের এমন কথা কারোই হ’জম হচ্ছে না। সকলের মুখই চুপসে আছে। সৌন্দর্য কে দেখে তাদের এখন প্রবাদ মনে আসছে,, উপর দিয়ে ভালো ভিতর দিয়ে কালো। কোথায় প্রথম দিন ক্লাসে এসেছে সকলের সাথে হাসি মুখে কথা বলবে।পরিচিত হবে নিজের পরিচয় দিবে তা না।

সৌন্দর্য বই বের করে পড়ানো শুরু করে। মার্কার নিয়ে বোর্ডে লিখতে থাকে। সকল স্টুডেন্ট চুপ।

সৌন্দর্য আজ ইংরেজি ক্লাস নিচ্ছে। সব কথা ইংরেজিতেই বলছে।কয়েকজনের মাথার উপর দিয়ে যাচ্ছে সৌন্দর্যের ইংরেজি। ইসরাত কিছুতেই ক্লাসে মন দিতে পারছে না। এই নূর এখনও আসছে না কেন। এইদিকে নড়তে ও ভয় করছে সৌন্দর্য স্যার যেই হুমকি দিয়েছে।

নূর ওয়াশরুম থেকে বের হয়ে ছোট ছোট কদমে ক্লাসের দিকে এগুতে থাকে। হাঁটতে খুব কষ্ট হচ্ছে। পেট ব্যাথায় নড়তে ও ইচ্ছে করছে না। কোনো মতে ক্লাসের সামনে এসে দাঁড়ায়। ক্লাসে সৌন্দর্য কে দেখে বেশ অবাক হয়। ইতস্ততবোধ করছে খুব।
তবুও কিছু করার নেই ক্লাসে ঢুকতে হবে, আর বসতে হবে নয়তো নিজের ব্যালেন্স ঠিক রাখতে পারবে বলে মনে হয় না।

মে-মে আই কা-কামিং স্যার?
সকলের দৃষ্টি এখন নূরের দিকে সীমাবদ্ধ। সৌন্দর্য বোর্ডে মার্কার ঘুরাতে ঘুরাতে না তাকিয়েই আনসার দেয় নো।
নিজের লিখা শেষ করে ঘড়ির দিকে তাকিয়ে নূরের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।

অলরেডি ফিফটিন মিনিটস লেইট। আর আসার দরকার নেই। বাইরেই দাঁড়িয়ে থাকুন আর হাওয়া খান।

স্যা-স্যার আ-আসলে,,,,,,(নূর)

নো মোর এক্সকিউজ। বলে সৌন্দর্য আবার ক্লাসে মন দেয়।

এইদিকে নূর আর সহ্য করতে পারছে না। পেট ব্যাথায় অবস্থা খারাপ। চোখ দিয়ে আপনা আপনি পানি ঝড়ছে। ক্লাস রুমের দেয়াল ঘেঁষে মেঝেতেই পেট ধরে বসে পরে।

নূরের নিশ্বাস কেমন বন্ধ হয়ে আসছে পেট ব্যাথায়। কিছু বলার শক্তি ও হারিয়ে ফেলে। হাত পা ছেড়ে মাথা দেয়ালে হেলিয়ে দেয়।

#চলবে,,,,,,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here