পরাণ দিয়ে ছুঁই পর্ব ৮

0
66

#পরাণ_দিয়ে_ছুঁই
#পর্বঃ৮
#Jhorna_Islam

“একদম খা’মচি দেওয়ার চেষ্টা করবে না। এইবার আর ছেড়ে দিবো না।নখ সহ আঙ্গুল কে’টে ফেলবো।”

নূর আর ইসরাত সামনে তাকিয়ে দেখে সৌন্দর্য দরজার সামনে দাঁড়িয়ে। তার মানে তারা যাকে ভেবেছে সে দরজা খুলেনি।খুলেছে সৌন্দর্য। নূর হাত সামনে নিয়ে যে ভাউউ বলে ছিলো সামনে তাকিয়ে সৌন্দর্য কে দেখে একই ভাবে আছে।

স’রি স্যার আমরা বুঝতে পারিনি আপনি দরজা খুলবেন।আসলে হয়েছে কি আমরা ভেবেছি তালা স্যার না মানে ইয়ে তালহা স্যারের ভাতিজি দরজা খুলে দিবে। আমরা আরো কয়েকবার এসেছি সে দরজা খুলে দিয়েছে তো,তাই ভাবলাম এবার ও বুঝি দরজা খুলবে।
ইসরাত কথা গুলো বলে সৌন্দর্যের থেকে দৃষ্টি সরায়। তারপর নূরের দিকে তাকিয়ে নূরের হাতগুলো নিচে নামায়।

নূর খুব অস্বস্তি তে পরে যায়। মনে মনে তার একটাই প্রশ্ন কেন,কেন কেন? এই লোকটার সামনেই কেন এমন হতে হবে? পৃথিবীতে তো কতো লোক আছে ওদের সাথে তো এমন কিছু হয় না। তাহলে এই লোকটার সামনেই কেন।

এরমধ্যে পিছন থেকে তালহা বলে উঠে, কিরে সৌন্দর্য দরজা খুলতে এসে তুই দেখি এখানেই পরে আছিস। কে এসেছে? বলেই সৌন্দর্যর পিছন থেকে উঁকি দিয়ে দেখে দরজার বাইরে নূর আর ইসরাত দাঁড়িয়ে আছে।

ওহ তোমরা এসে গেছো? ভিতরে এসে বসো। এই সৌন্দর্য সাইড দে ওদের। দরজার সামনে এমন ভাবে দাঁড়িয়ে থাকলে ওরা ভিতরে প্রবেশ করবে কিভাবে?

সৌন্দর্য তালহার কথায় সাইড হয়ে দাঁড়ায়।

ইসরাত ভিতরে আগে আগে ঢুকে পরে।পিছন পিছন নূর গুটি গুটি পায়ে যায়।

ইসরাতের কানের কাছে মুখ নিয়ে নূর বলে,, ইশু এমন ভাবে কেউ ভিতরে ঢুকে নাকি? কি ভাব্বে উনারা লজ্জা শরম নেই তোর।

চুপ যা বোন। নিজের শ্বশুর বাডিতে আবার কিসের লজ্জা শুনি?

—” শ্বশুর বাড়ি মানে?”

— শ্বশুর বাড়ির মানে জানিস না? এটা তো তালহা স্যারের বাড়ি। আর উনি তোর দুলাভাই। বলেই ওড়নার কোনা টা দুই হাতে কচলাতে কচলাতে লাজুক হাসে যেনো সে লজ্জা পেয়েছে খুব।

ওদের কথার মাঝখানেই তালহা বলে,,তোমরা একটু বসো। আম্মু বাড়িতে নেই।ভাবিকে নিয়ে একটু বেরিয়েছে। দাদি আছে তবে উনি ঘুমোচ্ছে। আমি একটু রান্না ঘরে ছিলাম।

ইসরাত ভালো করে তালহার দিকে তাকিয়ে দেখে কপালে আর গালে আটা লেগে আছে। দেখেই ফিক করে হেসে দেয়।

ইসরাতের হাসি দেখে সকলেই ইসরাতের দিকে তাকায়। নূর হাত দিয়ে খোঁচা দেয় যেনো না হাসে। এরমধ্যে পোড়া গন্ধ এসে নাকে লাগে। তালহা স্যার মনে হচ্ছে কিছু পুড়ে যাচ্ছে। কেমন পোড়া গন্ধ পাচ্ছি।

তালহার এতক্ষনে মাথায় আসে সে চুলায় সিঙ্গারা ভাজতে ছিলো।কড়াইয়ে দিয়ে ও এসেছে।

ওহ নো আমিতো সিঙ্গারা দিয়ে এসেছি বলেই তালহা দৌড় দেয় রান্না ঘরে।

সৌন্দর্য চুপ করে পকেটে হাত দিয়ে দাড়িয়ে আছে। ইসরাত আর নূর সোফায় বসতে যাবে এমন সময় রান্না ঘর থেকে তালহা স্যারের চিৎকার শুনে আর ওদের বসা হয় না। সকলেই রান্না ঘরের দিকে ছুটে।

সিঙ্গারা পুড়ে যাওয়ায় তালহা ভুলবশত তারাতাড়ি করে হাত দিতে গিয়ে হাতে ছেঁকা খায়।

নূর,ইসরাত আর সৌন্দর্য রান্না ঘরে গিয়ে দেখে হাত ধরে তালহা লাফালাফি করছে।

ইসরাত তালহা কে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে যায়। কি হয়েছে আপনার স্যার? লাফালাফি করছেন কেন? আপনি ঠিক আছেন?

তালহা কিছুই বলছে না।

এবার সৌন্দর্য ব্রু কোচকে বলে, তোর ব্যাঙের মতো লাফালাফি শেষ হলে বলবি কি হয়েছে? আমাদের বললে খুবই উপকার হতো।

হাতে গরম ছেঁকা লেগেছে ভাই।

ইসরাত তালহার কথা শুনে কাউকে পরোয়া না করে তালহার হাত ধরে টেনে বসার ঘরে নিয়ে যায়। তারপর টেবিল থেকে গ্লাস এনে হাত টা ডুবিয়ে দেয়। তালহা কে জিজ্ঞেস করে ফাস্ট এইড বক্স টা নিয়ে এসে বার্ণ ক্রিম লাগিয়ে দিতে থাকে হাতে। সৌন্দর্য বসার রুমে এসে দেখে ইসরাত সুন্দর করে চিকিৎসা করছে তার বন্ধুর। তালহা চুপচাপ শুধু দেখে চলেছে কিছু বলছে না।
সৌন্দর্য ওদের সামনের সোফায় বসে পরে।

নূর রান্না ঘরেই আছে। রান্না ঘর কে যাচ্ছেতাই অবস্থা করে ফেলেছে। এসব নূরের একদম ভালো লাগছে না। হাতের ব্যাগটা সোফাতেই আছে। নূর আর কিছু না ভেবে আগে চুলার আগুন টা নিভিয়ে ফেলে। তারপর ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সব কিছু এক-এক করে গোছাতে থাকে। সব কিছু গোছানো শেষ করে। পোড়া সিঙ্গারা গুলো তুলে ফেলে দেয়। তারপর নিজে বানাতে থাকে। সাথে কফিও বসিয়ে দেয়।

তালহা নিজের হাতের দিকে তাকিয়ে তারপর আশেপাশে চোখ বুলিয়ে বলে,,নূর কোথায় চলে গেলো?

ইসরাত ও তাকিয়ে দেখে নূর নাই।তাই ডাক দেয় নূর কোথায় তুই?

নূরের কোনো সারা শব্দ না পেয়ে তালহা আর ইসরাত দেখতে যায় কোথায় আছে। গিয়ে দেখে রান্না ঘরে। তালহা অনেক করে বারণ করেছে এসব করতে হবে না। কোনো দরকার নেই এসবের কিন্তু তালহার কথা নূর শুনেনি।বেশি সময় লাগবে না হয়ে গেছে প্রায়। আর ওর রান্না করতে ভালোই লাগে। অগত্যা কি আর করার তালহা রান্না ঘর থেকে বের হয়ে আসে। ইসরাত নূরের পাশে দাঁড়িয়ে থাকে।

তালহা বের হয়ে সৌন্দর্যের দিকে তাকায়। সৌন্দর্য যেখানে বসে আছে সেখান থেকে রান্না ঘর পুরোটা দেখা যায়। তালহা গিয়ে সৌন্দর্যের পাশে বসে। তারপর কাঁধে হাত রেখে বলে উঠে,,, আমি তোর মতিগতি কিছু বুঝতে পারছি না ভাই।

কিসের মতিগতি?

এইযে আমরা নূর কে খুঁজতে ছিলাম।তোর এখান থেকে সব দেখা যাচ্ছে নূর কি করছে।এখন এটা বলিস না তুই দেখিস নি। তাও তুই আমাদের বলিস নি।আর না তাকে আটকেছিস।

আমি আটকাবো কেন?

কি ধরনের কথা বলিস তুই সৌন্দর্য?

কিছুই না শা/লির হাতের রান্না খাওয়ার সুযোগ পেলি তাই আর কিছু বলিনি।

তুই মুখে এটা বললেও তোর মুখের এক্সপ্রেশন অন্য কিছু বলছে।সে যাই হোক।

নূর হাতে কফি আর ইসরাত সিঙ্গারা নিয়ে আসে।এনে টেবিলের উপর রাখে।হাত দিয়ে ইসরাত বাতাস করতে করতে তালহার দিকে তাকিয়ে বলে,, মানবতা আজ কোথায় ছাত্রীদের ডেকে এনে কাজ করায়।

তুমি কি কাজ করেছো শুনি? সব তো নূরই করলো।

আমার টা এমনিতেও চোখে পরবে না। এই যে সিঙ্গারা গুলো এনে দিলাম রান্না ঘর থেকে এটা কি কাজ না?

ইসরাতের কথা শুনে সৌন্দর্য শব্দ করে হেসে উঠে। তালহা আহাম্মকের মতো তাকিয়ে আছে। নূর মিটমিটিয়ে হাসছে। সৌন্দর্যের হাসির শব্দে আড় চোখে সৌন্দর্যের দিকে তাকায়। কিছু সময় তাকিয়ে থেকে সন্তর্পনে নিজের চক্ষুদ্বয় সরিয়ে নেয়।

নূর এবার মিনমিনিয়ে বলে,,, সবাই কফি নিন নয়তো ঠান্ডা হয়ে যাবে। তারপর নিজেই একে একে সবার হাতে তুলে দেয়।সৌন্দর্য কে নিজে দিবে নাকি টেবিলে রেখে দিবে বুঝতে পারে না নূর। নিজে না দিলে কেমন দেখায় সকলেইতো হাতে হাতে এগিয়ে দিয়েছে। তাই একটু ইতস্তত বোধ হলেও সৌন্দর্য কে কফির কাপ টা বাড়িয়ে দেয়।

সৌন্দর্য বাধ্য ছেলের মতো কফি নিয়ে চুমুক বসায়।এর মধ্যে ফোন টা বেজে উঠে। পকেট থেকে ফোন হাতে নিয়ে দেখে বাড়ি থেকে ফোন এসেছে। কল রিসিভ করতেই অপর পাশ থেকে সৌন্দর্যের দাদি বলে উঠে,,

দাদু ভাই কোথায় তুই?

“কেন দাদি কি হয়েছে? আমি তো তালহার বাড়িতে। ”

— এখনই বাড়িতে আয় দাদু ভাই। ফাতিহা সেই স্কুল থেকে এসে দরজা লাগিয়ে বসে আছে। কিছুতেই খুলছে না।ডাকলাম সারা ও দিচ্ছে না। আমার খুব ভয় হচ্ছে দাদু ভাই। বাড়িতে কেউ নেই ও।

হোয়াটটট? এসব তুমি কি বলছো? আমি এখনই আসছি।কল টা কেটেই সৌন্দর্য কফির কাপটা টেবিলে রেখে উঠে পরে। যেতে যেতে তালহা কে বলে,,,আমার জরুরি কাজ আছে। আমি তোর সাথে পরে কথা বলে নিবো। বলেই সৌন্দর্য বেরিয়ে যায়।

সকলেই হুট করে কি হলো বুঝলো না। চিন্তিত ভঙ্গিতে সৌন্দর্যের যাওয়ার দিকে তাকিয়ে রয়।

আধা ঘণ্টার রাস্তা সৌন্দর্য মনে হয় দশ মিনিটে পারি দিয়েছে। কিভাবে যে সে গাড়ি চালিয়েছে শুধু সেই জানে।
গাড়ি থেকে নেমে দৌড়ে বাড়িতে ঢুকে। সৌন্দর্যের দাদি তার অপেক্ষাতেই ছিলো। সৌন্দর্য কে ফাতিহার রুমের দিকে দৌড়ে যেতে দেখে নিজেও পিছনে পিছনে যায়।

দরজার সামনে গিয়ে টোকা দিয়ে ডেকে উঠে,,

“মাম? এই মাম দরজা খুলো ভিতরে কি করছো? দেখো আমি ডাকছি তো।তোমার ছেলে তোমাকে ডাকছে।”

ফাতিহা কোনো সারা শব্দ করে না।

সৌন্দর্য দাদির দিকে তাকিয়ে আবার ডাক দেয়। মাম আমি বাইরে থেকে এসেছি।খুব পানি পিপাসা পেয়েছে আমার পানি দিবে না?

,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,

মাম আমি কিন্তু কষ্ট পাচ্ছি। সৌন্দর্য আবার দরজা টোকা দিতে যাবে এরমধ্যে দরজা খোলার আওয়াজ পায়। সৌন্দর্য স্বস্তির নিশ্বাস নেয়। দাদিকে চোখের ইশারায় আস্বস্থ করে রুমের ভিতর ঢুকে।

ফাতিহা দরজা খুলে আবার বিছানায় চলে গেছে। সৌন্দর্য ফাতিহার মুখের দিকে তাকিয়ে অবাক হয়ে যায়। কেঁদে কেটে চোখ মুখ ফুলিয়ে ফেলেছে।

মাম কি হয়েছে তোমার?

“সামওয়ান কলিং মি তিহা মি.ওয়াহিদ। ”

#চলবে,,,,

কার্টেসী ছাড়া কপি নিষেধ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here