ত্রিধারে তরঙ্গলীলা পর্ব ৫৮

0
192

#ত্রিধারে_তরঙ্গলীলা
|৫৮|
বন্ধু মহলের আড্ডা কিছুক্ষণ স্থগিত। সকলে উৎসুক নয়নে তাকিয়ে। খোলা দরজার সামনে কখন সৌধর হবু বউ এসে দাঁড়াবে। সেই প্রতীক্ষায় রয়েছে প্রত্যেকে। নিধির ভেতর অদ্ভুত অস্বস্তি চলছে। সে চাচ্ছে না এই অস্বস্তিতে ভুগতে। যথাসম্ভব নিজেকে স্থির রাখার চেষ্টা করছে। তবু মনটা নিয়ন্ত্রণে থাকতে চাইছে না৷ নিধির অস্বস্তি সর্বপ্রথম ধরা পড়ে আইয়াজের চোখে৷ এরপর থেকেই আইয়াজ খেয়াল রাখতে শুরু করে নিধির দিকে। সবার মতো সৌধও বারবার দরজার দিকে তাকাচ্ছে। সুহাস খেয়াল করে বলল,

‘ প্রাচীকে না পাঠিয়ে তুই যেতে পারতিস। আমাকেও বলতে পারতিস৷ বোন আমার, আমিই নিয়ে আসতাম। ‘

সৌধ মহাবিরক্তি নিয়ে চিবিয়ে চিবিয়ে বলল,

‘ বোন ভক্তি খুব দেখাতে পারিস তাই না? তোর বোন এখন শুধু তোর বোন নেই। আমার হবু বউও৷ সো, আমি তাকে কীভাবে ট্রিট করব সেটা তোর থেকে শিখতে হবে না৷ শোন সুহাস, সাবধান করে দিচ্ছি আমার আর সিনুর মধ্যে ঢুকার চেষ্টা করবি না। বন্ধু আমার তুই, সেই সম্পর্কটায় চিড় যেন না ধরে। আর সিনুর বড়ো ভাই। সম্মানের জায়গাটা ঠিক রাখিস৷ আমি জানি তুই সম্পর্কের মূল্য কম বুঝিস। তার মানে এই না আমি সিনুর সঙ্গে কী করব, কীভাবে করব এসবে তুই ইন্টারফেয়ার করবি! ‘

বিস্ময়ে হতবুদ্ধি সুহাস। সে সম্পর্কের মূল্য কম বুঝে? শেষ পর্যন্ত তার ভাঙা হৃদয়ে আঘাত করল সৌধ! আর কী বলল? সিনুর সাথে কী করবে, কীভাবে করবে ওর ব্যাপার। সে হস্তক্ষেপ করতে পারবে না। সিনু তার বোন একদম নিজের বোন৷ আদরের ছোটো বোন। তা কি সৌধ ভুলে গেছে। ক্রোধে গজগজ করতে করতে সুহাস বলল,

‘ ও তোর বউ হওয়ার আগে আমার বোন। আমি অবশ্যই ওর ব্যাপারে নাক গালাব৷ ‘

সৌধর চোখ দু’টো ছোটো ছোটো হয়ে গেল। মনে মনে বলল, ‘ বুঝেছি তোর নাকের ডগা বেশি উঁচু হয়েছে। ওয়েট নিচু করে দিচ্ছি। ‘ এরপর আশপাশে তাকিয়ে দেখল সবার মনোযোগ কোনদিকে। তার দিকে নেই৷ তাই দুর্বোধ্য হেসে সুহাসের দিকে ঝুঁকে বসে ফিসফিস করে বলল,

‘ তাহলে তো মুশকিল হয়ে গেল সুহাস। আমার বউকে আমি ওপেন ফ্রেমে লাভ বাইট দিতে পারব না। তার নির্লজ্জ, বেহায়া ভাইয়ের চোখে পড়ে গেলে আমার কলার ধরে ইন্টারফেয়ার করতে আসবে! ডিপজলের ফরমে চলে গিয়ে বলবে, মাথা নষ্ট, তুই কোন সাহসে আমার বোনকে অমন গাঢ় চুমু খেলি? ‘

সহসা চোখ বড়ো বড়ো হয়ে গেল সুহাসের। কেশে ওঠল খুক খুক করে। অবিশ্বাস্য দৃষ্টিতে সৌধকে আপাদমস্তক দেখে ঢোক গিলল। জীবনে প্রথমবার বোধহয় লজ্জা পেল ছেলেটা। স্তম্ভিত মুখ তার কিংকর্তব্য বিমূঢ়। সৌধ খেয়াল করল সুহাস লজ্জায় লাল হয়ে যাচ্ছে। মনে মনে দারুণ মজা পেল সে। সুহাসকে জব্দ করার জম্পেশ অস্ত্র তাহলে এটাই।

ইচ্ছে করে সৌধ তাকে জব্দ করল টের পেল সুহাস। আচম্বিত ওঠে বেরিয়ে গেল ঘর থেকে। সুহাসের অবস্থা দেখে মিটিমিটি হাসতে লাগল সৌধ। হাসির ফাঁকে যেই ডানদিক, সম্মুখে দৃষ্টি গেল অমনি হাওয়াই মিঠাইয়ের মতো মিলিয়ে গেল হাসিটা৷ বন্ধুর সঙ্গে দুষ্টুমির ছলে যে কথাটা বলেছে মনের মাঝে তা টিপটিপ বৃষ্টির মতো ঝড়তে লাগল। একদিকে নিধির অদ্ভুত দৃষ্টি অপরদিকে মনের মাঝে টিপটিপ বৃষ্টি। বৃষ্টির উৎসর্গ তার হবু বউ সিমরান। মৃদু কেশে ওঠল সৌধ। নিধির দৃষ্টিকে উপেক্ষা করে পা বাড়াল বাইরের দিকে। প্রাচী এখনো ভেতরে আসছে না যে? কোনো সমস্যা হলো না তো? ভাবতে ভাবতে দরজা পর্যন্ত যেতেই প্রাচী আর সিমরানের মুখোমুখি হলো।

সিমরানের মুখশ্রীতে আঁধার নেমেছে। যা দেখে সৌধর ভ্রু কুঁচকে গেল। প্রাচী কপালে ভাঁজ ফেলে চাপা গলায় বলল,

‘ সুহাস বকেছে সিনুকে। তুই নাকি কিসের লাইভ দেখেছিস ও কোন সিগারেট খোর বান্ধবীর সাথে আড্ডা দিচ্ছিল! তাই সুহাসও বকল আর বলল তুইও নাকি ঝাড়বি। ‘

আশ্চর্যান্বিত হয়ে গেল সৌধ। সুহাসের মাথা কি একেবারেই খারাপ হয়ে গেল? সে কখন বলেছে, সিনুকে বকবে? তাও এই ভরা জলসায়? দাঁতে দাঁত চেপে ধরল সৌধ। সিমরানের দিকে তাকাল তীক্ষ্ণ চোখে। বলল,

‘ আমি সুহাসের মতো মাইন্ডলেস না। বউ ডেকে এনে বন্ধুদের সামনে ঝাড়ার পিণ্ড নিয়ে জন্মায়নি আমি। ‘

অকস্মাৎ চমকে নত দৃষ্টি উঁচু করল সিমরান। সৌধর ভারিক্কি মুখাবয়ব, গভীর, তীক্ষ্ণ দৃষ্টিজোড়ায় দৃষ্টি মিলতেই সর্বাঙ্গ শিউরে ওঠল৷ নিমেষে দৃষ্টি সরিয়ে নিল, ভয় শূন্য হৃদয়ে। শরীরের প্রতিটি ইন্দ্রিয় যেন জানিয়ে দিল ‘ এ দৃষ্টি ভয়ের নয় সিনু, এ দৃষ্টি প্রথম প্রহরের প্রণয়াবেগের। ‘ এমনিতেই রোদ মাথায় এসেছে। ফর্সা ত্বকে রোদ পড়ে লালচে হয়েছিল৷ তার ওপর সৌধর মুখে হবু বউ থেকে সোজা বউ শুনে বুকের ভেতর ঢেউ খেলে গেল। বুক ভর্তি পানিতে যেন ছলাৎ ছলাৎ তরঙ্গ বইছে। কান দু’টোয় ছুঁয়ে দিচ্ছে উষ্ণ বাতাস। চারপাশে এত মানুষ। অথচ সিমরানের সেদিকে হুঁশ নেই। সে বিগলিত চিত্তে লজ্জা মাখা মুখশ্রীতে ঠাঁই দাঁড়িয়ে রইল। সৌধ কখন প্রাচীকে ইশারা করে তাকে ভেতরে নিয়ে বসাতে বলেছে খেয়ালই করল না। যখন হুঁশ ফিরল নিজেকে আবিষ্কার করল পরিচিত, অপরিচিত বহু চোখের সম্মুখে। নেই শুধু সৌধ আর সুহাস।

সৌধর বন্ধুরা খুবই বিনয়ের স্বরে কথা বলছে সিমরানের সাথে। যারা চেনে তারাও আজ যেন নতুন করে আলাপে মেতেছে। ভাবি, ভাবি ডাকে পুরো ঘরটা মুখরিত। সিমরান লজ্জায় টইটম্বুর। এত সম্মান, এত প্রাধান্য। কার জন্য? ডক্টর সৌধ চৌধুরীর জন্যই তো। এতকিছুর ভীড়ে সিমরান ভুলেই গিয়েছিল, এখানে ছেলে সমেত নিধি উপস্থিত আছে৷ সবার সঙ্গে আলাপচারিতা, আজিজের দুষ্টুমি উপভোগ করতে করতে হঠাৎ নিধির দিকে দৃষ্টি পড়ল। নিধি তাকিয়েই ছিল তার দিকে। তাই চোখাচোখি হতেই মৃদু হাসল নিধি। সিমরানের এত্ত অপরাধবোধ হলো। মনে মনে ইশ বলেই ওঠে গিয়ে নিধির পাশে বসল। জিজ্ঞেস করল,

‘ কেমন আছো নিধি আপু? তোমার ছেলে! ওয়াও কী কিউট। ‘

অনিরূপের গালে আলতো করে ছুঁয়ে দিল সিমরান। নিধি বলল,

‘ ভালো আছি। তুই? ‘

সে জানে সিমরান খুব ভালো আছে৷ ভালো থাকারই কথা৷ তবু আনুষ্ঠানিকতার খাতিরে জিজ্ঞেস করল। সিমরান অমায়িক একটা হাসি দিয়ে বলল,

‘ ভালো আছি। বাবুকে কোলে নিই? ‘

অনিরূপকে এগিয়ে দিল নিধি। সিমরান ওকে কোলে নিয়ে গুলুমুলু গালে চুমু খেল সযত্নে। নিধি অপলকভাবে তাকিয়ে দেখল মেয়েটা৷ কী স্নিগ্ধ, কী প্রশান্তিমাখা হাসি। কী দারুণ সুখী একটা মেয়ে। যেন পৃথিবীর সমস্ত প্রাপ্তি তার হাতের মুঠোয়।

সত্যিই কি তাই? স্বয়ংসম্পূর্ণ মানুষ কি আদতেও পৃথিবীতে আছে? সিমরান কি স্বয়ংসম্পূর্ণ? একদমই না। তবু তাকে সবচেয়ে সুখী সরূপ দেখছে নিধি। নিজের আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী একটা প্রাপ্তি গোটা সিমরানকেই বদলে দিয়েছে। বড্ড লোভ জাগে, ঈর্ষা হয়। তৎক্ষনাৎ নিজেকে দমিয়ে নেয়। মস্তিষ্কে মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে সেদিনের সেই দৃশ্যটা। যেদিন, সিমরান তার পায়ে ধরে সৌধর ভালোবাসা ভিক্ষা চেয়েছিল। অনুরোধ করেছিল সৌধকে ফিরিয়ে না দিতে৷ সিমরানের কোনো দোষ নেই। সৌধর কোনো দোষ নেই৷ তাহলে সে কেন লোভী হয়ে ওঠছে? কেন ঈর্ষা হচ্ছে তার? না এখানে আর এক মুহুর্ত থাকা যাবে না৷ নিজের ব্যক্তিত্বের বাইরে চলে যাওয়ার ভয়ে কুঁকড়ে গেল নিধি। দোষী তো সে নিজেও না। সবটাই ভাগ্যের দোষ। ভাগ্যকে মেনে নেয়া ছাড়া এখন আর উপায় নেই। দীর্ঘশ্বাস ফেলল সে। সিমরান অনিরূপকে রূপ নামে ডেকে ডেকে আদর করছে। নিধি নিতে চাইলে সিমরান দিল না। এমতাবস্থায় সৌধ আর সুহাস এলো। দুপুরের খাবার আয়োজন হয়ে গেছে। একটু পরই খাবার পাঠিয়ে দেবে। সৌধ এসে দেখল নিধির পাশে বসে সিমরান৷ অনিরূপকে আদর করছে। সে গিয়ে সিমরানের মুখোমুখি চেয়ারটায় বসল। তাকিয়ে রইল সিমরান আর অনিরূপের দিকে। অনিরূপ ভীষণ মিশুক বাচ্চা। যে কোল পাতে তার কোলেই চলে যায়৷ আর কী সুন্দর মিশে যায়। সিমরানের সাথে খেলা করতে করতে একবার ওর চুল মুঠো ধরছে, আরেকবার ওড়না টেনে মুখে দিচ্ছে। সমস্তই খেয়াল করছিল সৌধ। এক পর্যায়ে অনিরূপ সিমরানের চুল এমন করে টেনে ধরল ব্যথায় চোখ কুঁচকে ফেলল মেয়েটা।

দেখামাত্র সৌধ তড়াক করে ওঠে এসে রয়েসয়ে অনিরূপের হাত থেকে সিমরানের চুল ছাড়িয়ে দিতে লাগল। বন্ধুরা সবাই তা দেখে হৈহৈ করে ওঠলে সুহাস ধমক দিল। ধমক দিয়ে সে নিজেও অনিরূপের হাত থেকে বোনের চুল ছাড়াতে সাহায্য করল। সৌধ বলল,

‘ আস্তে জোরে টানিস না। তাহলে চুলে আঁচ লেগে রূপের হাত কেটে যাবে। কচি হাত তো…। ‘

নিধি খেয়াল করল সিমরান, সৌধ দু’জনই অনিরূপকে শুধু রূপ বলে ডাকল। সিমরান কেন শুধু রূপ বলল জানে না৷ তবে সৌধর বলায় ব্যাখ্যা বের করল, অনি নামটা তার আর অর্পণের সঙ্গে মিলিয়ে। তাই হয়তো সৌধ ওই নামে ডাকল না। দীর্ঘশ্বাস ফেলল নিধি। ওঠে এসে অনিরূপকে কোলে নিয়ে বলল,

‘ সরি সরি। ওর জন্য সিনুর কষ্ট হলো। ‘

সৌধ ভ্রু কুঁচকে ফেলে বলল,

‘ সরি বলার কী আছে? ও কি বুঝতে পারে নাকি আশ্চর্য! ‘

মুখ ঘুরিয়ে নিল সৌধ। দেখল সিনু হতভম্ব চোখে তাকিয়ে আছে। সৌধ গম্ভীর গলায় বলল,

‘ ওড়না ঠিক কর। পারলে মাথায় দে। ‘

সিমরানকে কথাটা বলেই সরে গেল সৌধ৷ পরিস্থিতি গুমোট। দম বন্ধ লাগছে নিধির। তাই সুহাসকে বলল,

‘ সুহাস বাবুকে নিয়ে আর বেশি দেরি করা ঠিক হবে না রে। আমি বিদায় নিই। ‘

সুহাস বলল,

‘ বাবুর তো কোনো সমস্যা হচ্ছে না। কী মাম্মা সমস্যা হচ্ছে? ‘

অনিরূপ ফোকলা দাঁতে হাসল। সুহাস বলল,

‘ দেখ ও খুব এনজয় করছে। দে আমার কোলে দে তুই ওদের সঙ্গে আড্ডা দে, চিল কর। ‘

বলেই খপ করে কোল থেকে অনিরূপকে নিয়ে পুরো ঘরময় ঘুরতে লাগল। একে একে সব বন্ধুরাই অনিরূপকে কোলে নিল। এমন ভাবে বাচ্চাটাকে মাতিয়ে রাখল যে মা এবং খিদে দু’টোর কথাই ভুলে গেল অনিরূপ।
.
.
খাবার দিয়ে গেলে ওরা সবাই মিলে খেতে বসল। খেতে খেতে গল্পও চলছিল ওদের। সৌধর পাশেই সিমরান বসেছে। নিধি আর প্রাচী ওদের সম্মুখীন হয়ে বসা। বাকি বন্ধুরাও আশপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসে খাচ্ছে। খেতে খেতে সৌধ আর সিমরানকে খেয়াল করছিল নিধি। এক বলিষ্ঠ সুদর্শন যুবকের পাশে ফিনফিনে দেহের অপরূপা যুবতী৷ দেখতে মন্দ লাগছে না৷ সৌধ যেমন সুদর্শন সিমরানও রূপ, লাবন্যে চোখ ধাঁধানো। পাশাপাশি দু’জনকে মেইড ফর ইচ আদারই লাগছে। হঠাৎ নিধির মনে পড়ল সৌধ সব সময় তাকে বলত, ‘ তুই সিম্পল মেয়ে নিধি৷ তোর এই সাধারণত্বই আমার ভালো লাগে। ‘ সে কথা মনে হতেই সিমরানকে সুক্ষ্ম চোখে দেখল। সিমরান তার মতো সাধারণ নয়৷ গর্জিয়াস মেয়ে।
সৌধর পছন্দ সাধারণ। তাহলে সিমরানকে কেন পছন্দ হলো? যে যেমন পছন্দ করে তার বিপরীত কাউকেই জীবনসঙ্গী হিসেবে পায়। কথাটির সত্যতা মিলল যেন। পরনে লেডিস জিন্সের সাথে হলুদ কামিজ পড়েছে সিমরান। মাথায় হলুদ রঙের জর্জেট ওড়না দিয়ে ঘোমটা দেয়া৷ নতুন বউয়ের মতোই লাগছে দেখতে। বিয়ের ফুল ফুটেছে বোধহয়। মনে মনে হাসল নিধি। শুনতে পেল আজিজ সিমরানকে ডাকছে,

‘ ভাবি ও ভাবি। ‘

সিমরান ডান দিকে তাকাল। লজ্জা লাগছে তার। সৌধ নিচু কণ্ঠে বলল,

‘ তাকাস না ফাইজলামি করছে। প্রয়োজনীয় কথা বলবে না। ‘

সঙ্গে সঙ্গে দৃষ্টি ঘুরিয়ে খাওয়ায় মন দিল সে। আজিজ থেমে রইল না৷ বলল,

‘ ও ভাবি আমাদের সৌধ কিন্তু মাছের কা টা বাছতে পারে না। আপনি কিন্তু বিয়ের পর এ দিকটা খেয়াল রাখবেন। যত্ন করে মাছের কা টা বেছে বেছে খাওয়াবেন। ‘

আঁতকে ওঠল সিমরান। সে শুনেছিল সৌধ ভাই খুব একটা মাছ খায় না৷ যেগুলোতে কা টা বেশি সেগুলো তো একদমই খায় না। তানজিম আন্টি ছোটো থেকেই ছেলেকে জোর করে মাছ খাওয়ায়। এখনো মাছ বেছে দেয় ছেলেকে। সে নিজেও তো এসবে কাঁচা। মুখ ভার হয়ে গেল। মনে মনে ভাবল, বাড়ি গিয়ে মাছ নিয়ে বসবে৷ মাছ বাছা শিখতে হবে তাকে। এতদিন সেও মাছ এড়িয়ে চলেছে। যখন খেয়েছে আম্মু বা ভাবি বেছে দিলে খেয়েছে। এখন আর ওভাবে চলবে না। নিজেকে পাকা করতে হবে। ছোট্ট একটি নিঃশ্বাস ছেড়ে সৌধর দিকে তাকাল সিমরান। বলল,

‘ এটা তো প্রয়োজনীয় কথাই। ‘

সৌধ কিছু বলল না৷ মনে মনে হাসল৷ আজিজ আবার ডাকল,

‘ ভাবি ও ভাবি। ‘

সিমরান একবার তাকিয়ে মৃদু হেসে মাথা নত করল। আজিজ বলল,

‘ সৌধর খেয়াল রাখিয়েন হ্যাঁ? ‘

সিমরান জবাব দিল না৷ প্রাচী ব কা দিয়ে ওঠল,

‘ কী শুরু করেছিস ফা জিল? ‘

আজিজ পাত্তা না দিয়ে ফের ভাবি ভাবি করলে সৌধ গরম চোখে তাকাল। আজিজ সঙ্গে সঙ্গে সচেতন হয়ে ঘুরে বসল। সৌধর খাওয়া শেষ। ওঠবে এমন সময় খেয়াল করল সিমরানের বা হাতের পিঠে লম্বা লাল দাগ। সদ্যই আঁচ লেগেছে বুঝতে পারল। ভ্রু জোড়া কুঁচকে হাতটা ধরে ওপরের দিকে ওঠিয়ে বলল,

‘ কীভাবে লাগল? ‘

চমকে ওঠল সিমরান। আমতাআমতা করে বলল,

‘ রিকশা থেকে নামতে গিয়ে। ‘

সৌধ কা টা স্থানে বুড়ো আঙুল বুলিয়ে গম্ভীর কণ্ঠে বলল,

‘ রাস্তায় দেখেশুনে চলাফেরা করতে হয়। ‘

কথাটা বলেই বেরিয়ে গেল সৌধ। নিধি সবটাই খেয়াল করছিল। শেষ দৃশ্যে বুকের ভেতরটা ভার হয়ে ওঠল পুরোনো স্মৃতি মনে করে। চোখ দু’টো শত চেষ্টায়ও আর স্বচ্ছ রাখতে পারল না৷ ঝাপসা হয়ে ওঠল আপনাআপনি। সৌধ কতটা কেয়ারিং ছেলে সে জানে। সিমরানের প্রতি ওর ভালোবাসা কতটুকু তৈরি হয়েছে জানে না৷ কিন্তু আজ যে সব দৃশ্যের সম্মুখীন হলো, এতে স্পষ্ট বুঝতে পারল, সৌধ আর তার অভাবে ভুগছে না৷ সে অযথাই কষ্ট পাচ্ছে, অহেতুক নিজেকে অপরাধী করে বেঁচে আছে। বুকটা কেঁপে ওঠল তক্ষুনি। অহেতুক? অযথা? সে চোখ থাকতেও অন্ধ, বোধ থাকতেও নির্বোধ হয়ে অপরাধ করেনি? এই যে বুকের ভেতর তীক্ষ্ণ যন্ত্রণা। এই যে আফসোস নামক ঝড় বইছে এগুলোর দায় কার? তারই তো? গলা দিয়ে আর খাবার নামল না নিধির। অজান্তেই দুচোখ বেয়ে অশ্রু গড়াল। নিমেষে তা আবার মুছেও নিল। অঘটন অবশ্য ঘটে গেল একটা৷ আইয়াজ দূর থেকে তার কান্না দেখে ফেলল!
.
.
খাওয়াদাওয়া শেষে বন্ধুদের আড্ডা জমে ওঠেছে৷ পাশাপাশি বসে আছে সৌধ, সিমরান৷ ওদেরকে ঘিরেই সকল আনুষ্ঠানিকতা। নিজেকে খুব নিকৃষ্ট লাগছে নিধির। এতগুলো দিন ধরে নিজেকে বহুভাবে গুছিয়ে নিয়েছিল। আজ চোখের সামনে সৌধর পাশে সিমরানকে দেখে। দু’চোখ ভরে সিমরানের সুখ দেখে তার হৃদয়টা ছিন্নভিন্ন হয়ে যাচ্ছে। কষ্ট হচ্ছে তীব্র। অথচ সে কষ্ট পেতে চায় না৷ সে মন, প্রাণ ভরে সৌধ, সিনুর সুখ প্রার্থনা করে। নিজের মনের এই টানাপোড়েন থামাতে না পেরে শেষে মিথ্যার আশ্রয় নিল সে৷ হঠাৎ করেই বলল,

‘ অর্পণ ম্যাসেজ করেছে রে। ওর নাকি শরীর খারাপ। আমাকে এক্ষুনি যেতে হবে। ‘

আকস্মিক কথায় সকলে থমকে গেল৷ নিধি চলে যাবে এত তাড়াতাড়ি? সৌধ ভ্রু উঁচিয়ে তাকাল একবার৷ নিধির চোখ, মুখ দেখে মাথা নত করল। বিরবিরিয়ে বলল,

‘ লায়ার। ‘

পাশে বসা সিমরান স্পষ্ট শুনল শব্দটি। বিস্মিত চোখে তাকাল সৌধর পানে৷ সৌধ খেয়াল করল সিনু তাকিয়েছে তার দিকে। তাই ফোঁস করে শ্বাস ছেড়ে বলল,

‘ ও মিথ্যা বলছে। ‘

সিমরানের বুকের ভেতর চিড়িক দিয়ে ওঠল। সে যে ভালোবাসে। তাই তো দেখতে পারে ভালোবাসার যন্ত্রণা। থমথমে গলায় সিমরান বলল,

‘ তুমি চাও নিধি আপু না যাক? ‘

সৌধ তাচ্ছিল্য হেসে বলল,

‘ থাকলেই কি না থাকলেই কী? ‘

‘ তুমি এখনো নিধি আপুকে ভালোবাসো? ‘

সহসা চোখ দু’টো দৃঢ় হয়ে ওঠল সৌধর। শক্ত, নিচু গলায় বলল,

‘ এখন এসব প্রশ্ন করার সময়? আমি তোর সাথে বেড রুমে আছি? ‘

‘ সরি। ‘

অভিমানে মুখ ঘুরিয়ে নিল সিমরান। এদিকে নিধি সকলের থেকে বিদায় নিয়ে সৌধ আর সিমরানের সামনে এলো। মুখে মিথ্যে হাসির রেখা ফুটালেও মন থেকে বলল,

‘ সৌধ, সিনু তোদের জন্য শুভকামনা। অনেক ভালো থাক তোরা৷ ‘

এরপর সিমরানের মুখোমুখি হয়ে সিমরানকে আলতো করে জড়িয়ে ধরল৷ কানে কানে বলল,

‘ সৌধকে ভালো রাখিস। সুখী হোস তোরা। ‘

আর এক মুহুর্ত দেরি করল না নিধি৷ সুহাসের থেকে অনিরূপকে কোলে তুলে নিল৷ সবাই ওকে নিচ পর্যন্ত এগিয়ে দিলেও রিকশা না পাওয়া পর্যন্ত পাশে থেকে গেল শুধু আইয়াজ।
.
.
হাঁটতে হাঁটতে অনেকটা দূরে এসে পড়েছে নিধি, আইয়াজ৷ নিধির সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ কথা আছে আইয়াজের। তাই সেই বলল, কিছুক্ষণ হাঁটতে। একটু অপেক্ষা করে বাসায় যেতে৷ এ মুহুর্তে একাকী কারো সঙ্গ প্রয়োজন ছিল নিধির৷ যে তাকে বুঝবে, সম্পূর্ণ মনোযোগ তাকে দিয়ে সময় দেবে। আইয়াজ বলল,

‘ অর্পণ স্যারের টেক্সট করার বিষয়টা মিথ্যা। বুঝেছিলাম আমি। ‘

বাঁকা হেসে নিধি বলল,

‘ এত বুঝিস ক্যান তুই? ‘

ঠোঁট কামড়ে আলতো হাসল আইয়াজ৷ অকস্মাৎ বলল,

‘ তুই এখন ফিল করছিস সৌধকে ভালোবাসিস রাইট? ‘

থমকে দাঁড়াল নিধি। অনিরূপকে কোলে নিতে ইশারা করল৷ আইয়াজ অনিরূপকে কোলে নিলে সে বসে পড়ল ডান পাশের বটগাছের শিকড়ের ওপর। বুকের ভেতর থেকে উপচে আসা কান্না গুলো গিলে ফেলে বলল,

‘ আমি মরে যাচ্ছি আয়াজ, আমি মরে যাচ্ছি। ‘

হাঁপ নিঃশ্বাস ছেড়ে আইয়াজ গিয়ে নিধির পাশে বসল। ধীরস্থির গলায় বলল,

‘ শান্ত হো নিধি। আমার কথা শোন। ‘

‘ এখানটায় ভীষণ জ্বলছে আয়াজ।
মরে যাচ্ছি আমি। দেখ নিঃশ্বাস নিতে পারছি না। ‘

বুকের বা’পাশে হাত রেখে নিধি ছটফট করছিল। আইয়াজ বলল,

‘ কিচ্ছু হচ্ছে না, কিছুই হবে না৷ জাস্ট শান্ত কর নিজেকে। আমার কথা শোন। ‘

ওড়নার কোণা মুখে চেপে হুহু করে কেঁদে ফেলল নিধি৷ বলল,

‘ আমি সৌধর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করিনি রে। আমি বিশ্বাসঘাতকতা করেছি আমার সাথে। আমি সৌধকে ঠকাইনি। আমি আসলে ঠকিয়েছি আমাকে।’

‘ আমরা সবাই সেটা জানি৷ সৌধ নিজেও জানে। ‘

চমকে গেল নিধি। বিস্মিত হয়ে বলল,

‘ সৌধ জানে! ‘

‘ এসব এখন বাদ দে। আমি তোকে কিছু কথা বলতে চাই। কথাগুলো যদি শুনতে চাস কান্না থামিয়ে চোখের পানি মোছ। ‘

বাচ্চাদের মতো অসহায় ভঙ্গিতে আইয়াজের কথা মেনে নিল নিধি। আইয়াজ খুব আহত হলো নিধির এই রূপ দেখে। কী সুন্দর প্রাণোচ্ছল, শক্তিশালী মেয়েটা কীভাবে মনের দ্বন্দ্বে অসহায় হয়ে পড়ল! দীর্ঘশ্বাস ফেলে বলল আইয়াজ,

‘ “Sometimes you don’t know what you’ve got until it’s gone!” মাঝে মাঝে তুমি জানো না যে তুমি কি পেয়েছো, যতক্ষণ পর্যন্ত না তা হারিয়ে যায়!’

‘ আমার সাথে এটাই হয়েছে। ‘

দৃঢ় স্বর নিধির৷ আইয়াজ স্মিত হেসে বলল,

‘ হয়নি তবে হতে পারে। যদি তুই তোর ভুল অনুভূতি থেকে সরে না দাঁড়াস। ‘

‘ মানে? ‘

‘ যা চলে গেছে, যা পাসনি তা নিয়ে আমি বলতে চাই না। আমি বলব, যা পেয়েছিস তাই নিয়ে। সৌধকে তুই পাসনি৷ সো ওই চ্যাপ্টার ক্লোজ। তুই কাকে পেয়েছিস বল? অর্পণ স্যার আর অনিরূপ। তুই ওদের মূল্যটা বুঝছিস না। অন্ধ হয়ে আছিস সেই মানুষটাকে ঘিরে। যে আজ বাদে কাল অন্য একজনের হয়ে যাবে। ‘

থামল আইয়াজ। নিধি স্তম্ভিত। আইয়াজ ফের বলল,

‘ আমি অত্যন্ত লজ্জিত সেই দিনটার জন্য। শুধু আমি না আমরা তিন বন্ধুই লজ্জিত। যেদিন না জেনে না শুনে স্যারের ওপর হাত তুলেছিলাম। এরজন্য একদিন তাকে সরি বলে দিব। অজানা ভুল ছিল ওটা। নিধি, আসল ভুল তোর ছিল। তুই আমাদের জানাসনি তোর বিয়ের কথা৷ যেভাবেই বিয়ে হোক। হয়েছে তো? আমরা বেস্ট ফ্রেন্ড। সৌধকে জানাতে অসুবিধা ছিল আমাকে বা সুহাসকে জানাতে পারতিস৷ যাক সে কথা। জানাসনি, প্রচণ্ড গোলমাল হয়েছে ফলসরূপ। কিন্তু এরপর থেকে যা সব হচ্ছে। তার জন্য আমরা মোটেও তোর ওপর সন্তুষ্ট নই। যে সৌধ ভেঙে পড়েছিল তোর বিয়ের কথা শুনে। যে সৌধ অর্পণ স্যারকে খু ন করার হুমকি দিয়েছে সেই সৌধও তোর ওপর অসন্তুষ্ট। কেন জানিস? তুই ওকে বাছাই না করে অর্পণ স্যারকে করেছিস এ জন্য না। হ্যাঁ এজন্য ও দুঃখ পেয়েছে। তীব্র যন্ত্রণায় ভুগেছে। যার রেশ আজো রয়ে গেছে। কিন্তু ও অসন্তুষ্ট এ জন্য যে অনেকগুলো বছর ধরে ও যাকে ভালোবেসে আসল। তাকে ও ভুল চিনেছে। তুই সব সময় তোর সিদ্ধান্তে অটুট থেকেছিস। সবসময় ন্যায়, অন্যায়, সঠিক, ভুল বিবেচনা করে চলেছিস। সেই তুই কীভাবে অর্পণ স্যারের প্রতি অন্যায় করিস। তা আমরা কেউই মেনে নিতে পারি না৷ আমরা সবাই তোর ভালো চাই। তুই নিজের মনকে স্থির কর নিধি। আজ যা পেয়েছিস তা ধরে রাখ৷ এক জীবনে একই ভুল দু’বার করিস না। তাহলে তোর প্রতি যতটুকু সম্মান আছে তা আর থাকবে না। সবচেয়ে বড়ো কথা এখনো আমাদের বন্ধুত্বের সম্পর্ক আগের স্থানে ফিরে যাওয়া সম্ভব৷ কিন্তু তুই যদি তোর বৈবাহিক জীবনে সুখী না হোস৷ তবু তোরই ভুলে। তাহলে সৌধ তোকে ছাড়বে না। না বন্ধুত্ব রাখবে আর না তোকে। ‘

‘ কী করবে ও? মেরে ফেলবে আমাকে? ‘

‘ মরেই তো আছিস। দেহ টুকুর বিদায় দেবে। ‘

মুখাবয়ব শক্ত হয়ে ওঠল নিধির। আইয়াজ ওর মাথায় একহাত রেখে বলল,

‘ শান্তি, শান্তি। ‘

সহসা নরম হলো মেয়েটা। ছলছল চোখে তাকিয়ে বলল,

‘ আমি খুব খারাপ আয়াজ। আমি খুব খারাপ। কিন্তু বিশ্বাস কর আমি মন থেকে চাই ওরা ভালো থাকুক। প্রার্থনা করি, ওদের দেখে আমার মনের যন্ত্রণা না বাড়ুক। ‘

‘ তুই খুব ভালো মেয়ে নিধি। আমরা সবাই রক্তে মাংসে গড়া মানুষ। আমাদের দ্বারা ভুল হবেই৷ সেই ভুল শুধরে নিতে হবে শুধরানোর সুযোগ না থাকলে দ্বিতীয় বার যেন একই ভুল না হয় সচেতন থাকতে হবে। ‘

নিশ্চুপ নিধি। আইয়াজ বলল,

‘ বাসায় যা। গিয়ে অর্পণ স্যারের সঙ্গে কথা বল। কিছুক্ষণ তাকিয়ে দেখ মানুষটাকে। উনি তোর সন্তানের বাবা। যার সন্তান তোকে মা ডাকে তার বুকে একবার মাথা রাখ। দেখবি পৃথিবীতে তোর মতো সুখী মেয়ে আর একটিও নেই। ‘

আইয়াজের কথা শুনে শরীরে কাঁ টা দিয়ে ওঠল। বুকে কম্পন ধরল খুব৷ আইয়াজ জিজ্ঞেস করল,

‘ স্যার তোর সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে? ‘

নিধি মাথা নাড়ল। না করে না। আইয়াজ বলল,

‘ তোরা একসঙ্গে ঘুমাস? ‘

‘ হু। ‘

‘ লাস্ট কবে চুমু খেয়েছিস তোরা? ‘

একটু চমকাল নিধি৷ মনে করতে পারল না। ভাবল, অনিরূপ পেটে আসার আগে লাস্ট ঘনিষ্ঠ হবার সময়ই বোধহয়। দীর্ঘশ্বাস ফেলল সে। আইয়াজ বলল,

‘ লাস্ট কবে ইন্টিমেট হয়েছিস? ‘

‘ অনিরূপ পেটে আসার আগে। ‘

‘ হোয়াট! কী সমস্যা, স্যার কি ইন্টারেস্টেড না? ‘

‘ উনার সঙ্গে আমি খুব খারাপ বিহেইভ করিরে। কী করব বল? ডিপ্রেশনে ভুগতে ভুগতে মানসিক রোগি হয়ে গেছি। উনি আমার সাথে কথা বললেই মেজাজ গরম হয়। শরীরে টাচ করলেই মাথায় আগুন ধরে যায়। ‘

ধমক দিল আইয়াজ। নিধি বলল,

‘ এত সিরিয়াস হয়ে কথা বলিস না । অচেনা লাগে। ‘

‘ তুই অচেনা হয়ে গেছিস নিধি। এটা তুই না৷ এই জীবন তোকে মানায় না। ঠান্ডা মাথায় আমার কথা শোন, আজ গিয়ে তুই স্যারের সঙ্গে সময় কাটাবি। নাহ শোন এক্ষুনি বাসায় যাবি স্যার সামনে আসা মাত্র জড়িয়ে ধরবি শক্ত করে৷ যা হারিয়েছিস তা নিয়ে আফসোস না করে যা পেয়েছিস তা আঁকড়ে ধর দোস্ত প্লিজ। অর্পণ স্যার তোর শত্রু নয় এ পৃথিবীতে এখন সেই তোর সবচেয়ে আপন মানুষ। অনিরূপের বাবা অর্পণ স্যার, তোর স্বামী। ‘
®জান্নাতুল নাঈমা

আজো তিন হাজার+ শব্দ সংখ্যা! এত বড়ো হয়ে যায় পর্ব তবু যেন কত কি লিখিনি মনে হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here