তুমি আমার স্নিগ্ধ ফুল পর্ব ২৯

0
65

#তুমি_আমার_স্নিগ্ধ_ফুল
#নুসাইবা_ইসলাম_হুর
#পর্বঃ২৯

বসার ঘর জুরে পিনপতন নীরবতায় ছেয়ে গেলো। কারো মুখে কোনো কথায় নেই।

একটু আগে ইসহাক আহমেদ পারফিকে এতো বিচলিত হতে দেখে ভাঙা গলায় সব খুলে বললো। সব শুনে পারফি স্তব্ধ হয়ে গেলো। তাকালো ইয়ানার নিস্তব্ধ নীরব মুখশ্রীর দিকে। ওই মুখের দিকে তাকিয়ে যেনো কিছু বলার ভাষা হারিয়ে ফেললো।
কিছুটা সময় নিয়ে নিজেকে স্বাভাবিক করে ইয়ানাকে কিছু বলতে যাবে তার আগেই ইয়ানা উঠে দাঁড়িয়ে কোনো রকম বললো

আমি একটু একা থাকতে চাই এ বলে দৌড়ে রুমে চলে গেলো।

ইয়ানার পিছু পিছু পারফিও দ্রুত গেলো। এখন কিছুতে ওকে একা ছাড়া যাবে না। ইয়ানা যেই রুমের দরজা লাগাতে যাবে তার আগেই পারফি রুমে ঢুকে গেলো।

পারফিকে দেখে ইয়ানা ভাঙা গলায় বললো –

আমাকে একটু একটা থাকতে দিন প্লিজ।

পারফি কোনো কথা না বলে ইয়ানাকে বুকের মাঝে আগলে নিলো।

ইয়ানা আর নিজেকে সামলাতে না পেরে ডুকরে কান্না করে উঠলো।

ইয়ানার কান্নায় পারফির বুকের ভিতর ও ঝড় বয়ে গেলো কিন্তু ইয়ানার কান্না থামালো না। কান্না করে মনটা হালকা করতে দিলো। পাথর হয়ে থাকাট চেয়ে কান্না করে মন হালকা করাটা জরুরি।

অনেক সময় ধরে এক নাগারে কান্না করেই চলেছে ইয়ানা, তা দেখে পারফি ইয়ানাকে ছাড়িয়ে চোখের পানি মুছে দিয়ে দু গালে হাত রেখে বললো –

আর কান্না করো না বিড়াল ছানা তাহলে শরীর খারাপ করবে। সবার জীবনে কোনো না কোনো অতীত থাকে। ধরে নেও এটা তোমার এক দুঃস্বপ্ন। তুৃৃমি আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করো কারণ সেদিন তোমার সাথে খারাপ কিছুও ঘটতে পারতো। কিন্তু দেখো আল্লাহ তোমাকে এতো ভালো একটা বাবা এনে দিয়েছে। যে কোনো দিন একটা বারের জন্য ভাবে ও নি সে তোমার বাবা না। এমনকি তোমাকে তোমার অতীত থেকে দূরে রাখার জন্য নিজের এলাকা ছেড়ে এখানে চলে এসেছে পর্যন্ত।
জানো তো সবার ভাগ্যে এতো ভালো বাবা জোটে না কিন্তু দেখে তুমি কতো ভালো একটা বাবা পেয়েছো যে তোমার জন্য নিজের জীবন টাও দিতে রাজি। আজ তোমার এমন বিধ্বস্ত অবস্থা দেখে ওই বাবাটা দুমড়েমুচড়ে যাচ্ছে ইয়ানা।
মানছি সে তোমার আসল বাবা না কিন্তু সে তোমার আসল বাবার থেকেও অনেক বেশি কিছু। আজ নিজেকে এভাবে কষ্ট দিয়ে আমাদের সবাইকে এভাবে কষ্ট দিও না বিড়াল ছানা। ছোট বেলার ওই ঘটনাটা একটা দুঃস্বপ্ন ভেবে জীবন থেকে মুছে ফেলো। ওই যে দেখো তোমার বাবা-মা, বোন সবাই আছে। তুৃৃমি আরো গর্ব করে বলবে আমার এতো সুন্দর একটা পরিবার আছে। যাদের সবার কলিজার টুকরো তুৃমি।

কথা গুলো বলে পারফি ফের ইয়ানাকে বুকে জড়িয়ে নিয়ে বললো-

সব ভুলে যাও বিড়াল ছানা। আমরা আছি তো, আমরা সবাই তেমার পাশে আছি। তুমি অনেক লাকি গার্ল কারণ তোমার একটা না দু দুটো করে বাবা-মা। আমার বাবা-মা, তোমার বাবা-মা সবার কলিজার টুকরো মেয়ে তুমি। এতোগুলো ভালোবাসার মানুষ থাকতে তুমি নিজেকে কেনো একা ভাববে বলো? আমরা সবাই আছি তোমার পাশে আর সারাজীবন থাকবো। এগুলো নিয়ে আর ভাববে না ওগুলো সব তোমার এক দুঃস্বপ্ন ওঁকে?

পারফির কথায় ইয়ানার কান্না আস্তে ধীরে কমে আসলো। এক পর্যায়ে নীরব হয়ে পারফির বুকে সাথে লেপ্টে রইলো। কিছুক্ষণ পর পর হেকচি উঠছে কান্নার ফলে। জীবনের এতো বড় ধাক্কটা যেনো জীবনটা এলোমেলো করে দিলো।

ইয়ানাকে শান্ত হতে দেখে পারফি ইয়ানার মাথায় কিছুক্ষণ হাত বুলিয়ে দিলো একটা সময় ইয়ানার কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে পারফি ইয়ানাকে নিজ থেকে ছাড়িয়ে দেখলো ইয়ানা হুঁশে নেই। পারফি কয়েকবার ডাকলো ইয়ানাকে কিন্তু কোনে সাড়াশব্দ পেলো না। তারাতাড়ি করে ইয়ানাকে নিয়ে বেডে শুইয়ে দিয়ে ইসহাক আহমেদ আর ইতি বেগমকে বিষয়টা জানালো। ইয়ানার অবস্থা দেখে ইসহাক আহমেদের পাগলপ্রায় অবস্থা। ইতি বেগম ও বিচলিত হয়ে পড়েছে। পারফি দ্রুত পরিচিত ডাক্তারকে কল করে এখানে আসতে বললো।

ডক্টর এসে ইয়ানাকে দেখে গেলো, যাওয়ার সময় বলে গেলো শরীর প্রচুর দুর্বল তার উপরে কোনো কিছু নিয়ে মেবি মাথায় প্রেশার পড়েছে তাই জ্ঞান হারিয়েছে। আস্তে ধীরে জ্ঞান ফিরে আসবে ঘন্টা খানেকের ভিতরে কিন্তু এভাবে চলতে থাকলে ওর কোনে ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। যতটা পারেন রোগীকে টেনশনমুক্ত রাখার ট্রাই করবেন।

ডক্টরের কথায় সম্মতি দিয়ে পারফি যেয়ে বাসার নিচ পর্যন্ত পৌঁছে দিয়ে এসে আবার ফিরে আসলো। রুমে এসে চোখে পড়লো ইয়ানার নিস্তব্ধ মুখশ্রীর দিকে।
বুকটা খুব ভারী লাগছে, স্নিগ্ধ ফুলের এমন বিধ্বস্ত রূপে নিজেও কষ্ট পাচ্ছে। ওই বিধ্বস্ত মুখের দিকে বেশিক্ষণ তাকিয়ে থাকার সাধ্য হলো না, বেরিয়ে গেলো রুম থেকে।
————————-
ড্রয়িংরুমে বসে আছে পাভেল চৌধুরী, শরীফ শিকদার , পিয়াসা বেগম, শাহানা বেগম, শাফিন, প্রীতি ও পারফি।
তাদের সবার চোখমুখে একরাশ বিষ্ময়ক। ঘন্টাখানেক আগে ইসহাক আহমেদ ফোন করে সবাইকে আসতে বলেছে এখানে। এখানে এসে এমন কিছু শুনবে কেউ কল্পনাও করে নি।
কারো মুখে কোনো কথা নেই। সবার মাঝে নীরবতা বিরাজমান। কি এই বা বলবে? কেউ কল্পনাও করতে পারছে না ইয়ানার জীবনে এমন একটা অতীত ছিলো। একটু আগে ইসহাক আহমেদ শুরু থেকে সবটা খুলে বলেছে সবাইকে। সব শোনার পর থেকে সবাই থম মেরে বসে রইলো।

অবশেষে নীরবতা ভেঙে ইসহাক আহমেদ ফের বললো

সব তো শুনলেন এবার আসল কথাটা বলছি কিছু মনে করবেন না। জানি আপনারা অমন মানুষ না তবুও বিষয়টা ক্লিয়ার করতে চাই। আমি চাইনা আমার মেয়েটা আর এক বিন্দু কষ্ট পাক। হ্যা ইয়ানা শুধু আমার এই মেয়ে আমার কলিজার টুকরো। শুধু জন্ম দিলেই যে বাবা-মা হওয়া যায় তা না, ও আমার রক্তের না হলেও ও আমার মেয়ে আর সারাজীবন আমার মেয়ে হয়েই থাকবে।
এখন কথা হলো আপনাদের কারো যদি কোনো সমস্যা থাকে ইয়ানাকে নিয়ে যে ইয়ানা আমার মেয়ে না, কুড়িয়ে পাওয়া মেয়ে তাকে আপনারা আপনাদের ছেলের বউ হিসেবে মানতে পারবেন না তাহলে আমি বলবো আমার মেয়েকে নির্দ্বিধায় আমার কাছে রেখে যেতে পারেন তাতে আমার কোনো আপত্তি নেই।

আমার কথায় আপনারা কষ্ট পেলে বা আমার কথায় কোনো ভুল হলে আমাকে ক্ষমা করে দিবেন। কিন্তু আমি একজন বাবা আমি চাইনা আমার কলিজার টুকরো মেয়ে আর এক বিন্দু পরিমাণ কষ্ট পাক। আমার মা টাকে নিয়ে আপনাদের কোনো সমস্যা হলে আমার কাছে আমার কলিজাটাকে ফিরিয়ে দিতে পারেন। আমি আমার কলিজাটাকে বুকের ভিতর আগলে বাকি জীবন বেঁচে থাকবো, কাউকে কষ্ট দিতে দিবো না আমার মেয়েটাকে। দরকার হলে আমি আবার এই শহর ছেড়ে চলে যাবো। আমার মেয়ের জন্য আমি সব করতে পারি, আমার মেয়ের এক বিন্দু কষ্ট আমি সহ্য করতে পারবো না বলতে বলতে চোখজোড়া ভিজে উঠলো ইসহাক আহমেদের।

ইসহাক আহমেদের কথায় সবার চোখ ছলছল করে উঠলো। মেয়ের প্রতি বাবার এতো গভীর ভালোবাসা সবাইকে মুগ্ধ করে দিলো। কে বলেছে ইয়ানা তার মেয়ে না? ইয়ানা তার মেয়ের চেয়েও অনেক বেশি কিছু।

পাভেল চৌধুরী ইসহাক আহমেদের কাঁধে হাত রেখে বললো –

কি বলছেন ভাই এসব কথা? ইয়ানা মামনী কি শুধু আপনার একার মেয়ে নাকি? ইয়ানা আমাদের সবার মেয়ে। মানছি ইয়ানা মামনীর অতীত এর কথা কিন্তু ওটা একটা দুঃস্বপ্ন হিসেবে ভেবে নিলাম আমরা। কে বলেছে ইয়ানা মামনী আপনার মেয়ে না, ইয়ানা মামনী শুধু আপনার মেয়ে আর সারাজীবন আপনার কলিজার টুকরো মেয়ে হয়েই থাকবে সাথে আমাদের ও মেয়ে। আমার ছেলের বিয়ের আগে আমরা কি বলেছিলাম মনে নেই? আমরা বলে ছিলাম ইয়ানা মামনীকে আমরা পুত্রবধূ না নিজেদের মেয়ে হিসেবে নিতে এসেছি। ও আমাদের ও মেয়ে তাহলে মেয়ের এই দুঃস্বপ্নময় অতীত শুনে মেয়েকে পর করে দিবো নাকি?

পাভেল চৌধুরীর কথায় ইসহাক আহমেদ ছলছল চোখে তাকালেন তাদের দিকে তখন শরীফ শিকদার বললো-

আপনি কোনো চিন্তা করবেন না ভাই। আমরা সবাই আপনাদের পাশে আছি। ইয়ানা সারাজীবন আমাদের সবার মেয়ে হয়ে থাকবে। ও কখনো নিজের বাবা-মার অভাব অনুভব ও করতে পারবে না কারণ আমরা সবাই আছি ইয়ানা মামনীর পাশে।

পিয়াসা বেগম, শাহানা বেগম সবাই ইসহাক আহমেদকে আস্বস্ত করলো যে ইয়ানাকে তারা সবাই আগলে রাখবে। কারো এক বিন্দু পরিমাণ আপত্তি নেই নিয়ানার অতীত নিয়ে।

সবার এই আস্বস্ততা দেখে ইসহাক আহমেদ একটু শান্তি অনুভব করলো। তার মেয়ে যে সবার এতো আদরের হয়ে উঠেছে সেটা ভেবেই ভালো লাগছে যে তা মেয়েকে কখনো কষ্ট পেতে হবে না।
———————-
সেদিনের পর কেটে গেলো আরো কিছু দিন। ইয়ানা এখন কিছুটা স্বাভাবিক। সবার এতো এতো ভালোবাসার মাঝে খারাপ থাকা যায় নাকি? পিয়াসা,শাহানা, ইতি বেগমের মতো তিনটি মা পেয়েছে। পাভেল চৌধুরী, শরীফ শিকদার, ইসহাক আহমেদের মতো তিনটি বাবা পেয়েছে। শাফিন, প্রীতি, ইমার মতো তিনটি ভাইবোন পেয়েছে এর চেয়ে বেশি আর কি লাগে?
সব শেষে পারফির মতো বন্ধুসুলভ একজন জীবনসঙ্গী যে ওর কষ্টে কষ্ট পায়, ওর আনন্দে আনন্দ পায়, ছায়া হয়ে প্রতিটা মুহূর্ত পাশে থাকে তারপর ও কি খারাপ থাকা যায়? আদো কি কেউ খারাপ থাকতে দেয় ওকে? সব সময় ছায়া হয়ে প্রতিটা মানুষ ওর পাশে থাকে। সবার এতো এতো ভালোবাসায় নিজেকে খুব লাকি গার্ল মনে হয়। ভাগ্য করে এতোগুলো ভালোবাসার মানুষ পেয়েছে।

মাঝে মাঝে মন খারাপ হতো এ ভেবে যে ও কারো অবৈধ সন্তান হয়তো তাই ওকে ওভাবে ফেলে দিয়েছিলো, নিজেকে অপবিত্র মনে করে কষ্ট পেতো তখন পারফি ইয়ানাকে বুকের মাঝে আগলে নিয়ে বোঝাতো ওর ধারণা ভুল। ও পবিত্র একটা ফুল, সবার চোখের মনি স্নিগ্ধ ফুল।

ইয়ানা বসে কথা গুলো ভাবছিলো তখন পারফি ইয়ানার সামনে এসে ইয়ানার দিকে হাতে টাই বাড়িয়ে দিয়ে বললো

বিড়াল ছানা এটা বেঁধে দেও।

ইয়ানা টাইটা হাতে নিয়ে মুচকি হাসি দিয়ে টাই বাঁধতে বাঁধতে বললো-

আমার এতো সুন্দর একটা নাম রেখে সব সময় বিড়াল ছানা ডাকেন কেনো?

পারফির ইয়ানার গাল টেনে দিয়ে হেঁসে বললো

কারণ তুমি শুধু আমার বিড়াল ছানা।
পারফির কথায় ইয়ানা ও হেসে ফেললো। টাই বাঁধা শেষ হতে বললো-

হয়ে গেছে।

পারফি ইয়ানার হাস্যজ্জ্বল মুখের দিকে তাকিয়ে ইয়ানার দু গালে হাত রেখে কোমল স্বরে বললো-

সবসময় এভাবে হাসিখুশি থাকবে। স্নিগ্ধ ফুলের মুখে শুধু হাসি টাই মানায় বুঝলে?

পারফির কথায় ইয়ানা মুচকি হেসে মাথা নাড়ালো।

পারফি ইয়ানাকে আরেকটু কাছে টেনে নিয়ে কপালে আলতো করে চুমু একে দিলো। কেঁপে উঠলো ইয়ানা পারফির এই আলতে স্পর্শে। এটা পারফির রোজকার অভ্যাস হয়ে গিয়েছে আফিসে যাওয়ার আগে কপালে অধর ছুঁয়ে দেওয়া। প্রতিবার এই পারফির এই স্পর্শ টুকুতে ইয়ানা কেঁপে উঠে যা দেখে পারফি ঠোঁট কামড়ে হেসে বলে উঠলো:-

সামন্য কাঁপলে চুমুতে তোমার কাঁপা কাঁপি উঠে যায় যদি অন্য কিছু করি তাহলে কি অবস্থা হবে শুনি?

পারফির কথায় ইয়ানার কান কোন দিয়ে গরম ধোঁয়া বের হতে লাগলো। লজ্জায় নুইয়ে গেলো, এই ঠোঁট কাটা ছেলের সামনে থাকলে এক একটা কথা বলে লজ্জায় ফেলে দেবেই।

ইয়ানার লজ্জায় রাঙা রক্তিম মুখশ্রী দেখে পারফি ফট করে ফের ইয়ানার গালে চুমু দিয়ে বললো –

এই চুমুটার জন্য তুমি নিজে দায়ী। তোমার লজ্জা রাঙা রক্তিম টমেটোর মতো গাল দেখলে আমার খেয়ে ফেলতে ইচ্ছে হয়। কে বলেছে তোমাকে লজ্জা পেয়ে এমন ভয়ংকর রকম সুন্দর হতে? এখন চুৃুমু, কমড় টামড় খেয়ে বসলে আমার দোষ নেই বলে দিলাম।

পারফি কাজে ইয়ানা আরো লজ্জায় পড়ে গেলো। লজ্জায় হাসফাস করতে করতে বলে উঠলো অসভ্য ছেলে।

ইয়ানার কথায় পারফি ফের ঠোঁট কামড়ে হেসে ইয়ানার কানে ফিসফিস করে বললো

এখনো তো কিছুই করলাম না এর ভিতরেই অসভ্য উপাধি দিয়ে দিলে? পারফির ফিসফিসানিতে কেঁপে উঠলো ইয়ানা। কাঁপা কাঁপা কন্ঠে বললো-

স..সরুন আ..আপনার দেরি হয়ে য..যাচ্ছে।

ইয়ানার এমন কাঁপা কাঁপি অবস্থা দেখতে বেশ মজা লাগছে পারফির। ইয়ানাকে আর জ্বালাতন না করে ইয়ানর থেকে দূরে সরে বললো –

যাচ্ছি তাহলে, সাবধানে থেকো আমার আদুরে বিড়াল ছানা।

পারফি যেতে ইয়ানা বিরবির করে বললো দিনদিন এই লোক আরো বেশি ঠোঁট কাটা স্বভাবের হয়ে যাচ্ছে। মুখে কিছু আটকায় না।

#চলবে?

ভুলত্রুটি ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।
হ্যাপি রিডিং….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here