কুয়াশার মতো পর্ব ৮

0
123

#কুয়াশার_মতো
কলমে : #ফারহানা_কবীর_মানাল
পার্ট -৮

দুপুরে খাওয়ার পর্ব শেষ হয়েছে বেশ কিছুক্ষণ। সোহাগ বিছানার কোণায় হেলান দিয়ে মোবাইল দেখছে৷ আমি সোফায় মাঝখানে হাত-পা ছড়িয়ে বইয়ের পাতার মুখ গুঁজে বসে আছি। পড়তে ইচ্ছে করছে না, মুখ ঢেকে রাখার জন্য বইটা নিয়ে বসেছি। মনের মাঝে নানান চিন্তা বাসা বেঁধেছে।

সোহিনী যাকে বিয়ের পর থেকে অনেক বেশি আপন মনেে করেছি, সে নির্দ্বিধায় আমায় বি’প’দে ঠেলে দিলো। ওই লোকগুলো আমার সাথে অনেক কিছুই করতে পারতো। টাকা না পেলে আমায় মে”রে ফেলতেও দ্বিধা করতো না। যে লোকটা রিকশাওয়ালা সেজে আমায় কিডন্যাপ করেছিল তার চোখে হায়েনার ছাপ দেখেছি। ওস্তাদ লোকটা একটু আস্কারা দিলে আমার নরম শরীরটা ছিঁ’ড়ে খেতে এক মুহূর্ত সময় নষ্ট করতো না।

সোহিনী সবকিছু জেনে বুঝে আমায় এমন বিপদের মধ্যে পাঠিয়ে দিলো কি করে? আপন মানুষকে কি এতো সহজে বিপদে ঠেলে দেওয়া যায়? তাছাড়া কিডন্যাপার লোকগুলো সোহিনীর পরিচিত নয়, ওদেরকে মৃদুল ঠিক করেছিল। সোহিনীর জায়গায় আমাকে পেয়ে যদি আমায় মে”রে ফেলতো, তখন কি সোহিনী কিছুই হতো না?
সত্যিটা হলো আমাকে নিয়ে সোহিনীর কোন মাথা ব্যাথা নেই, আমি ম’র’লেও তার কিছু যায় আসে না। আমাকে কাজের সময় একটা গুটির মতো ব্যবহার করছে। অনন্ত পুলিশকে সবকিছু জানিয়ে রাখলে বিষয়টা অন্য রকম হতো। যে সোহিনী আমাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছে, আগে থেকে পুলিশ ইনফর্ম করেছে কিডন্যাপের ব্যাপারে। কিন্তু এমন কিছু হয়নি। সোহিনী কাউকে কিছু জানায়নি৷

অন্যদিকে সোহাগ, যে কি-না বোনের এমন কাজের জন্য বাহবা দিচ্ছে। একবারও আমার কথা চিন্তা করছে না। হয়তো আমার ক্ষ’তি হলে ওর কিছু যায়-আসে না। যদি আমায় এতোটাই ভালোবাসতো তাহলে রাতুলের কথায় কখনোই রাজি হতো না। একবার হলেও আমাকে জানিয়ে নিতো। টাকার বিনিময়ে কোন মেয়ের সাথে ভালোবাসার নাটক করা অন্যায়। এটা কাপুরুষের লক্ষন। আজ-কাল কাউকে আপন ভাবতে ইচ্ছে করে না। দুপুরে খাওয়ার পরপরই সোহাগ ঘুমিয়ে পড়েছে। ওর শরীর খারাপ লাগছে।

এদিকে আমার কোন কিছু ভালো লাগছে না, ঘুম আসছে না, শুয়ে থাকতেও ইচ্ছে করছে না। ঘরের মধ্যে দম বন্ধ লাগছে। ছাঁদে গেলে হয়তো একটু ভালো লাগতে পারে। দুপুরের রোদে ছাঁদ গরম হয়ে আছে। মৃদু বাতাস বইছে। বাতাসের ঝাপটায় গরম কমেনি, বরং গরমের ভাপ গায়ে লাগছে।

জীবনের এমন বাঁকে দাঁড়িয়ে কাউকে বিশ্বাস করতে ইচ্ছে করছে না। রাতুলের সাথে কথা বলার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু কি লাভ! সোহাগ নিশ্চয়ই ছোট বাচ্চা নয়, ভালো-মন্দ বিচার করার ক্ষমতা আছে। শখের পুরুষের পাশে কোন নারীকে সহ্য করার ক্ষমতা কারোর নেই। আমারও না। এই সামান্য কথাটা বুঝতে চায়নি। হয়তো আমাকে এতোটা গুরুত্ব দেওয়ার প্রয়োজন মনে করেনি।

” পিয়াসী। পিয়াসী কোথায় গেলে? পিয়াসী তুমি কি ছাঁদে? ”

সোহাগের গলা শোনা যাচ্ছে। আমাকে ডাকতে ডাকতে ছাঁদের দিকে আসছে। কন্ঠ শুনে মনে হচ্ছে বিরাট কান্ড হয়ে গেছে। উত্তেজনায় গলার স্বর পাল্টে গেছে।

” পিয়াসী, স’র্ব’না’শ হয়ে গেছে। ”

” কি হয়েছে? এমন করছো কেন?’

” রাতুল!”

” কি রাতুল? কি হয়েছে রাতুলের?”

” রাতুল থা”না”য়। ওসি সাহেব কল দিয়েছিল। আমাদের এক্ষুনি থা’নায় যেতে বলেছে। ”

” কি হয়েছে কিছু বুঝতে পারছি না। ”

” আমিও না। তুমি এক্ষুনি রেডি হয়ে এসো। আমি বাইরে অপেক্ষা করছি। ”

সময় নষ্ট না করে তড়িঘড়ি রেডি হয়ে নিলাম। বাড়ি দিয়ে বের হওয়ার সময় নজরে এলো বেশ কয়েকটা গাড়ি আমাদের বাড়ির সামনে থামলো। দুইটা পুলিশের গাড়ি, প্রাইভেট কার আর একটা লা’শ’বা’হী গাড়ি।

” সোহাগ এসব গাড়ি এখানে কেন আসছে? বাড়িতে কি হয়েছে? ”

” কি হয়েছে কি করে বলবো বলো? আগে থানায় গিয়ে দেখি। ”

” উনাদের সাথে কথা বলে গেলে ভালো হতো না?”

” না, আগে থানায় যাওয়া উচিত। ওসি সাহেব বারবার করে বলেছে দেরি না করতে। এখানে কি হয়েছে ফিরে এসেও জানতে পারবো। ”

কথা বাড়ালাম না, চুপচাপ রিকশায় উঠে বসলাম। কিসব হচ্ছে! সবকিছু মাথার উপর দিয়ে যাচ্ছে। সোহাগ কোন কথা বলছে না, এক মনে কিছু চিন্তা করে চলেছে। চিন্তার ছাপ চেহারায় স্পষ্ট, ওর কপাল কুঁচকে আছে। থানায় পোঁছাতে বেশ সময় লাগলো। রাস্তায় বৃষ্টির পানি জমেছে। পানির কারণে যাতায়াতে বেশ অসুবিধা হচ্ছে। রিকশাওয়ালার ভাড়া মিটিয়ে থানায় প্রবেশ করলাম।

ওসি সাহেব আমাদের দেখে ইশারায় বসতে বললেন। পাশের একটা চেয়ারে রাতুল বসে আছে, চোখের কোণে অশ্রুর দাগ স্পষ্ট। ছেলেটা কাঁদছিল নাকি?

সোহাগ চারপাশে তাকিয়ে কি হচ্ছে বোঝার চেষ্টা করলো, তারপর কেশে গলা পরিষ্কার করে বললো, ” এতো তাড়াহুড়ো করে থানায় ডাকলেন কেন? কোন সমস্যা হয়েছে নাকি?”

” না সোহাগ সাহেব। কোন সমস্যা হয়নি, বরং সমস্যার সমাধান হয়ে গেছে বলতে পারেন। ”

” কি বলছেন বুঝতে পারলাম না। ”

” চৈতীর খু”নি ধরা পড়ছে। ”

সোহাগের কপাল ঘামছে, পকেট থেকে টিস্যু পেপার বের করে কাপল মুছে ফেললো। তারপর উৎসুক দৃষ্টিতে ওসি সাহেবের দিকে তাকিয়ে রইলো। আমি আগ বাড়িয়ে জিজ্ঞেস করলাম, ” কে খু’ন করেছে স্যার?”

” রাতুল সাহেব। ”

” কিহহ!”

” হ্যাঁ। রাতুল সাহেব ঠিক বললাম তো?”

রাতুল ডান দিকে মাথা কাত করে রইলো। যেন প্রাণহীন দেহটা অচল হয়ে গেছে।

” রাতুল কেন চৈতীকে মা”র”তে যাবে? সোহাগ তুমি কিছু জানতে নাকি?”

” পিয়াসী দেবী, এতো উত্তেজিত হচ্ছেন কেন? সবকিছু তো রাতুলের মুখ থেকে শুনবেন। এজন্যই আপনাদের ডেকে এনেছি। কি হলো রাতুল বলতে শুরু করো। ”

রাতুল কয়েক মিনিট স্তব্ধ হয়ে বসে রইলো। তারপর কলের পুতুলের মতো বলতে শুরু করলো।

” বিয়ের পরেই বিদেশে চলে গেছিলাম। বউয়ের কাছে থাকতে পারিনি, চৈতীকে ভালোবেসে নিজের বেশিরভাগ উপার্জন ওর নামে লিখে দিয়েছি। কখনো ভাবতে পারিনি ওকে ছেড়ে থাকতে হবে। কয়েকবছর বেশ ভালোই কেটেছে আমাদের। দেশে আসা-যাওয়া ছিল, দেশে আসলে স্বপ্নের মতো সময় কাটতো দু’জনের।
বিগত দু’বছর ধরে আমার কাগজপত্রে একটু সমস্যা হয়েছে, সেজন্য দেশে আসতে পারিনি। এই নিয়ে চৈতীর কোন অভিযোগ ছিল না, কিন্তু ধীরে ধীরে ওর পরিবর্তন লক্ষ্য করি। আমার সঙ্গে কথা বলতে চাইতো না, কল দিলে শরীর খারাপ বলে কল কেটে দিতো। সবসময় কিছু নিয়ে চিন্তায় থাকতো, জিজ্ঞেস করলে উত্তর দিতে চাইতো না।

বেশ কয়েকমাস এমন চলার পর মনে হলো চৈতী কোন ছেলের সাথে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছে। সেজন্য আমায় এভাবে এড়িয়ে চলছে। অনেক চিন্তা করে সোহাগের কথা মনে পড়লো। স্কুল জীবনের বন্ধু, যদি সাহায্য করে। মনের কোণে সামান্য আশা নিয়ে সোহাগকে কল দিই। চৈতীর সাথে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে তুলতে বলি, যেন ওর সাথে প্রেমের নাটক করে। সোহাগ প্রথমে রাজি হয়নি, তারপর ওকে টাকার লোভ দেখাতে শুরু করি। কিন্তু সোহাগ তাতেও রাজি হয় না। ”

” সোহাগ আপনার প্রস্তাবে রাজি হয়নি?”

” না ভাবি। সোহাগ প্রথম দিকে আমার প্রস্তাবে রাজি হয়নি। আপনি কি মনে করবেন, লোকজন কি ভাববে এসব ভেবে চিন্তায় ছিল। তবে অনেক অনুরোধ করার পর শেষ পর্যন্ত রাজি হয়েছিল। ”

” ওহ্!”

সোহাগ মাথা নিচু করে বসে আছে। যেন অনেক বড় অন্যায় করে ফেলেছে। ওসি সাহেব আগ্রহ নিয়ে রাতুলের দিকে তাকিয়ে আছে। আমায় চুপ করে থাকতে দেখে রাতুল আবারও বলতে শুরু করলো,

” এরপর সোহাগ আমার কথা মেনে নেয়। চৈতীর সঙ্গে সময় কাটতে থাকে। অদ্ভুতভাবে চৈতীও সোহাগের সাথে ঘনিষ্ঠ হয়ে যায়। তবে দু’জনের মাঝে প্রেম হয়েছিল কি-না বলতে পারবো না।সবকিছুর মাঝে চৈতী আমাকে দেশে ফেরার জন্য চাপ দিতে থাকে। কেন এতো তাড়া দিচ্ছিলো বুঝতে পারিনি।

হঠাৎ করেই আমার ছুটি ফাইলান হয়ে যায়, চৈতীকে সারপ্রাইজ দিতে ওকে না জানিয়ে দেশে ফিরে আসি। আমার আসার ব্যাপারে কেউ কিছু জানতো না। ”

” চৈতীর উদ্ভট ব্যবহার আপনার মনে সন্দেহ তৈরি করেনি? পরকীয়া করলে কেন আপনাকে দেশে আসতে বলবে?”

ওসি সাহবের প্রশ্নে রাতুল চুপ করে রইলো। খেয়াল করলাম রাতুলের চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। অপরাধী নিজের ভুল বুঝতে পারলে বোধহয় এভাবেই আফসোস করে। কি লাভ হয় এই খু”নখা’রা’পি করে? দু’জনেরই ক্ষতি হয়। সবকিছু সুন্দর সমাধান থাকা উচিত, যেন দিনশেষে এমন আফসোস করতে না হয়। চৈতীর বিষয়টা বড্ড রহস্যময়! সোহাগের সাথে সম্পর্ক ছিল কি-না জানি না। তবে যদি সম্পর্কে থাকতো তাহলে কেন রাতুলকে দেশে আসতে বলবে?
রাতুল হয়তো এ প্রশ্নের উত্তর জানে, কিন্তু সে কিছু বলছে না। চুপচাপ মাটির দিকে তাকিয়ে আছে। দু-চোখ দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়ছে। রাতুলের এ অবস্থা দেখে ওসি সাহেব চুপ করে আছেন। সোহাগ কিছু বলতে যাচ্ছিলো কিন্তু ওসি সাহেব হাতের ইশারায় ওকে চুপ থাকতে বললেন।

মিনিট পাঁচেক পর রাতুল স্বাভাবিক হয়ে বসলো। ওসি সাহেব রাতুলের দিকে টিস্যু পেপার এগিয়ে দিলেন। রাতুল চোখ মুখ মুছে স্তব্ধ হয়ে বসে রইলো।

ওসি সাহেব আমাদের ডেকে নিয়ে বাইরে চলে গেলেন। শান্ত গলায় বললেন, ” রাতুলকে একটু একা থাকতে দেওয়ার প্রয়োজন। আমরা বরং কিছু একটা খেয়ে আসি। ”

ওসি সাহবের এমন ব্যবহার আমায় রীতিমতো অবাক করছে।

চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here