একটি পূর্ণদৈর্ঘ্য বাংলা ছায়াছবি পর্ব ১৫

0
60

একটি পূর্ণদৈর্ঘ্য বাংলা ছায়াছবি -১৫

নওরিন বের হয়ে অমিতের বাসায় গেল না। ধানমন্ডি লেকের পাড়ে বসে রইল। কোনো ফোন করল না অমিতকে। ঠিক চৌত্রিশ মিনিট পরে অমিত ফোন করল আবার।

কোথায় তুমি?

লেকপাড়ে বসে আছি।

আমি আসছি৷

আচ্ছা, আসুন।

সংক্ষেপে কথা শেষ করে নওরিন৷

অমিত এসে পাশে বসল কিছুক্ষণের মধ্যে।

বাহ, বেশ সেজেছ তো, বিয়ে করে ফেলছ তাহলে?
-অমিত জিজ্ঞেস করল।

নওরিন অমিতের দিকে তাকিয়ে হেসে বলল, হ্যা। কিন্তু আপনার সমস্যাটা কি?

আমার কোনো সমস্যা নেই।

আমার মনে হচ্ছে আপনার কোনো সমস্যা নিশ্চয়ই আছে।

নাহ, আমার তো সমস্যা নেই, বরং তোমার সমস্যা আছে, ধরো এমনো তো হতে পারে যে তুমি ….

অমিত কথা শেষ করতে পারল না। কয়েকটা ছেলে এসে বলল, ব্রাদার এখানে কি করছেন?

অমিত ক্যাপে মুখ ঢেকে রেখেছে, ক্যাপটা না সরিয়ে বলল, কেন, কি সমস্যা?

মেয়েছেলে নিয়ে ফুর্তি করতে আসছস! যা আছে বাইর কর! – একটা ছেলে ছুড়ি বের করল।

অমিত বলল, ওয়েট ওয়েট৷ উঠে দাঁড়িয়ে বা হাতে ছুড়িটা টান দিয়ে লেকের ভেতর ফেলে দিলো। ডান হাতে একটা হাত চেপে ধরল। জিম করা শক্ত বডি, ছেলেটা কেঁকিয়ে উঠল, নেশাখোর বাকি ছেলেগুলো পালিয়ে গেল। অমিত ছেড়ে দিতেই অন্য ছেলেটাও পালিয়ে গেল।

নওরিন হতভম্ব।
ওর হতভম্ব ভাব দ্বিগুন করে দিয়ে অমিত বলল, যা বলছিলাম, তুমি কি আমার লাবণ্য হবে?

নওরিন বলল, এসব কি বলছেন?

মানে জিজ্ঞেস করছিলাম, অমিত এর নামের সাথে লাবণ্য জড়িয়ে আছে, তুমি আমার লাবণ্য হবে?

নওরিন নিজেকে সামলে বলল, চিরস্থায়ী বিচ্ছেদ চাচ্ছেন, বুঝতে পেরেছি!

সেসব পুরনো কথা। ভাবতে সময় নিতে চাও?

নওরিন বলল, না সময় নিতে চাই না।

তাহলে আমি কি ধরে নিব, তোমার উত্তর হ্যা?

নওরিন কিছু না বলে হাসল।

অমিত বলল, শোনো, আমার জীবন সাধারণ মানুষের জীবনের মত নয়। আমি ব্যক্তিগত কোনো সম্পর্ক মিডিয়ায় আনব না, পাবলিকও করব না।

নওরিন বলল, আমি কি আপনাকে প্রেস কনফারেন্স করতে বলেছি?

না, সেটা বলো নি! তবে প্রেম করার মত সময় আমার নেই। আমি বিয়ে করতে চাই। তোমার বাসায় অফিসিয়ালি প্রপোজাল পাঠাব।

নওরিন সম্মতি দিলো অমিতের প্রস্তাবে।

চলবে

শানজানা আলম

“হিজলের ফুল, জলে ভাসা ভুল” – সংগ্রহ করতে ইনবক্সে এড্রেস আর ফোন নম্বর দিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here