অটবী সুখ পর্ব ২৩

0
54

অটবী সুখ

২৩.
যেন এক অসহায়, জীবনশূণ্য মানুষের মতো সমুদ্রের অতলে তলিয়ে যাচ্ছিলো অটবী। বাঁচার কোনো আশা নেই, চেষ্টা নেই, মায়া নেই! তারপর হঠাৎ করেই এক বিন্দু আলো সুদুর থেকে উঁকি দিতেই মনটা ঝটপটে হয়ে উঠলো। নির্জীব হাত-পা জোড়া হলো চঞ্চল। এদিক ওদিক শূণ্যে নাড়িয়ে, সাঁতরে উপরে উঠতে চাইলো যেন! তবুও মনে বিস্তর সংশয়, আঁতঙ্ক! সমুদ্রের তীরে কাঙ্ক্ষিত মানুষটা তার জন্য অপেক্ষা করবে তো? নাকি প্রতিবারের মতো ঠুনকো করে দূরে সরিয়ে দিবে?
প্রচন্ড ঝংকার তুলে ফোনটা বিশ্রী সুরে বেজে উঠলো। অটবী তখন দ্বিধাদ্বন্দে মিইয়ে বিছানার এককোণে বসে আছে। ফোনের দিকে তাকিয়ে দেখলো, মুশফিক কল করেছে। অতিশয় দীর্ঘ একটা নিশ্বাস ফেললো সে। ভেঙ্গেচুরে নিসাড় হওয়া নিজেকে স্বাভাবিক করে ফোন তুললো, “হ্যালো?”

ওপাশ থেকে হিন্দি গানের তীব্র শব্দ, হৈচৈ। কথা খানিকটা অস্পষ্ট শোনাচ্ছে। মুশফিক বলছে, “অটবী, কি করছো?”

অটবী সঙ্গে সঙ্গে জবাব দিলো না। রয়েসয়ে উত্তর দিলো, “বসে আছি।”
—“তোমার সাথে কে আছে?”
—“কেউ নেই।”
—“তুমি একা একা বসে আছো? আচ্ছা, ভালো! খেয়েছ কিছু?”
—“হু।”

অটবীর কথা বাড়াতে ইচ্ছে করছে না। প্রচন্ড হিংস্র কান্না বুকের ভেতর দলা পাকিয়ে গুমরে আছে। কি ভীষণ যন্ত্রণা! কথা বলতে গিয়েও কণ্ঠ কেমন কেঁপে কেঁপে অস্থির। মুশফিক হয়তো সেই কাঁপনটুকু অনুভব করতে পারলো। মুহুর্তেই কণ্ঠস্বর নরম করে জিজ্ঞেস করলো, “তুমি কি কাঁদছো অটবী? কি হয়েছে? আরে বাবা সব মেয়েকেই বিয়ে করতে হয়, পরিবার ছাড়তে হয়। তাই বলে এভাবে কাঁদবে? আমি কি তোমাকে খারাপ রাখবো নাকি?”

ঠোঁটে ঠোঁট চেপে নিজেকে শান্ত রাখার চেষ্টা করলো অটবী। তবুও হলো না। বাজে একটা করুণ সুর গলায় রয়েই গেল।
—“আপনাদের আসতে আর কতক্ষণ লাগবে?”
—“বেশি না। বিশ-পঁচিশ মিনিট। আরও আগে পৌঁছাতাম। কিন্তু রাস্তায় প্রচুর জ্যাম। তারওপর বাবা মিষ্টির দোকান থেকে কি কি যেন কিনছেন। এখনো দোকানের সামনেই বসে আছি।”

অটবী পুরো কথা শুনলো। খুব মনোযোগ দিয়ে। আস্তে করে বললো, “আপনার সাথে আমার কিছু কথা ছিল। বলি?”
ওপাশ থেকে মুশফিকের আহ্লাদী কণ্ঠ, “জিজ্ঞেস করতে হচ্ছে কেন? বলে ফেলো।”

জানালার বাহিরে ঝলমলে আকাশ দেখা যাচ্ছে। একটুখানি রোদ্দুরে মাখো মাখো সাদা মেঘমালা। অটবী একপলক সেই আকাশটা দেখে নিলো। নাসিকাগ্রন্থে সতেজ নিশ্বাসটুকু টেনে নিয়ে চোখ বুজলো শক্ত করে। একদমে বললো, “ধরুন, আপনি কাউকে অনেক ভালোবাসেন। সেও আপনাকে ভালোবাসে। কিন্তু কিছু কারণে আপনাকে মেনে নিতে পারছে না। সেসময় আবার আপনার জন্য বিয়ের প্রস্তাব আসে। আপনি অনেকটা জেদের বশে কিংবা নিজ মায়ের জোড়াজোড়িতেই বিয়েতে রাজী হন। বিয়ের একদম শেষ মুহুর্তে, আর দু’এক ঘণ্টা বাকি; আপনি জানতে পারেন আপনার ভালোবাসার মানুষটা আপনার বিয়ের সংবাদ পেয়ে ঘর বন্দি হয়ে আছে। আপনার এখন একদমই এই বিয়ে করতে ইচ্ছে করছে না। সব জেদ, অভিমান ধুলোয় মিশিয়ে সেই মানুষটার কাছে ছুটে চলে যেতে ইচ্ছে করছে। এখন আপনি কি করবেন? বিয়েটা করে নিবেন?”

অটবী থামলো। উত্তরের অপেক্ষা করলো। এক সেকেন্ড, দু সেকেন্ড, এক মিনিট! কিন্তু মুশফিক কিছু বলছে না। ঘন ঘন নিশ্বাসের তেজি শব্দে কানে ঝং ধরিয়ে দিচ্ছে। অটবী এবার ডাকলো, “মুশফিক? শুনছেন আমার কথা?”

একটা তীব্র হাহাকারে ভরা নিশ্বাস! হতাশা! ফোনের ভেতর থেকেও মুশফিক ছেলেটার বিকৃত মুখটা চোখে ভেসে উঠলো অটবীর। শান্ত অথচ গনগনে গলায় প্রশ্ন ছুঁড়লো, “মানুষটা তুমি, তাই না? তুমি এখন বিয়ে ছেড়ে পালাতে চাইছো?”
অটবীর কণ্ঠ ধরে এলো, “ন-নাহ্! আমি শুধু বলছি, আপনি কি করতেন?”
—“বিয়েটা করে নিতাম।”

চোখ বেয়ে একফোঁটা অশ্রু ঝরলো। শুনতে পেল, গাড়ির দরজা খোলার ক্ষীণ শব্দ। লহমায় আবার প্রচন্ড রূঢ় শব্দে দরজাটা আটকে পায়ের ধুপধাপ হাঁটার আওয়াজ। অটবীর ভয় বাড়লো। কাঁপা কাঁপা কণ্ঠে বলতে চাইলো, “আপনি একপাক্ষিক ভাবছেন।”
মুশফিক আক্রোশে ফেঁটে উঠলো, “তাহলে এখন কি চাইছো? এইমুহুর্তে বিয়েটা ভেঙ্গে দেই? আদৌ সম্ভব? তোমাকে আমি আগে জিজ্ঞেস করিনি? রাজী আছো কি নও কতবার জিজ্ঞেস করেছি? তখন তো চুপ ছিলে। এখন আবার কি প্রেম, ভালোবাসা; আশ্চর্য!”

নিচের ঠোঁটের পাতা কামড়ে ক্ষতবিক্ষত করে ফেলেছে অটবী। সে জানে সে ভুল। এমনটা.. এসময়ে.. এখন.. মোটেও বলা উচিত হয়নি। কেন যে বললো! মুখ দিয়ে কিছু উচ্চারণ করবে, তার পূর্বেই মুশফিক রাগে মিইয়ে কেমন শীতল অনুরোধ জারি করলো, “তুমি বরং পালিয়ে যাও, অটবী। তোমাকে আমার সহ্য হচ্ছে না।”

কিন্তু অটবী পালালো না। হু হু বুকের বিষক্ষয় নিয়ে চুপটি করে নিয়তির অপেক্ষায় রইলো। কাঁদলোও আবার। একটু একটু করে চোখের জলে সাজ-সজ্জা সব মলিন করে তুললো।
প্রাণ যখন একদম ফুরিয়ে আসছিল, বিয়ে করা ছাড়া আর কোনো উপায় চোখের সামনে ভাসছিল না, এমন সময় উঠোন থেকে হুলুস্থুল চিৎকার, চেঁচামেচি চারিদিকে তরঙ্গ ছড়ালো, “জামাই নাই! জামাই নাই! কই গেলা সবাই? জামাই তো পালাইছে।”

গুণে গুণে তিনটে ঘুমের ঔষধ খেয়ে ভোরবেলায় বিছানায় গা এলিয়ে দিয়েছিল ত্রিস্তান। ঘড়িতে এখন রাত দশটা। কে যেন প্রচন্ড শক্তি নিয়ে সদর দরজায় কারাঘাত করছে। আশ্চর্য! দরজা ভেঙ্গে ফেলবে নাকি? ঘুমের মাঝেই চোখ, কপাল দারুণ চিত্তে কুঁচকে ফেললো ত্রিস্তান। ঘুম ভাঙ্গতেই লম্বা একটা নিশ্বাস নিলো। চোখে এখনো তন্দ্রা লেগে আছে। ঔষধের প্রভাব কাটেনি বোধহয়। এখন চোখটা বন্ধ করলেই অনায়াসে আরও দু’তিন ঘণ্টা আরামে ঘুমিয়ে নেওয়া যাবে। কিন্তু এসময় তাকে বিরক্ত করতে দরজায় বারি দিচ্ছে কে? সরোজটাও-বা কোথায়? দরজা থাক্কানোর শব্দ কি সে শুনতে পাচ্ছে না?
দু’আঙুলে কপাল ঘঁষে মাথার টনটনে বিশ্রী ব্যথাটা আয়ত্বে আনার চেষ্টা চালালো ত্রিস্তান। আরও তিন-চার সেকেন্ড শুয়ে থেকে তড়াক করে উঠে দাঁড়ালো। দরজার ওপাশে থাকা ব্যক্তিটি তখনো কারাঘাত থামায়নি। বরং থেমে থেমে, একটু পরপর তীব্র টোকার শব্দে নিস্তব্ধ পরিবেশটা গরম করে দিচ্ছে। ত্রিস্তানও অত একটা তাড়া দেখালো না। রয়েসয়ে একবার তনয়ার ঘরের ভেতরটা দেখে নিলো। তনয়া, সরোজ দুজনেই ঘুমাচ্ছন্ন। সরোজ মেঝেতে হাত-পা ছড়িয়ে আর তনয়া বিছানায় রঙ পেন্সিল নিয়ে। আরেকদফা বহমান বাতাসের একটুখানি নিজের ভেতর টেনে আবার ছাড়লো ত্রিস্তান। পা বাড়ালো সদর দরজার উদ্দেশ্যে।

বাহিরে তখন ঘুটঘুটে অন্ধকার। থেকে থেকে মেঘ ডাকছে। দরজা খুলতেই ভেতরের কৃত্রিম বৈদ্যুতিক আলো উঠোনে ছড়িয়ে পরলো তরতরিয়ে। দেখতে পেল, তার সামনে চিরচেনা, অপ্রত্যাশিত সেই মেয়েটি দাঁড়িয়ে আছে। ত্রিস্তান কিঞ্চিৎ চিন্তায় মগ্ন হলো। ঘুমের ঔষধের প্রভাবটা কি এখনো যায়নি? স্বপ্নেতেও ত্রিস্তান অটবীকে এমন বউ সাজেই দেখেছিল। এখন আবার সামনে থেকে, একদম কাছ থেকে দেখছে! বুঝতে পারছে না, এটা তার কল্পনা নাকি বাস্তব? কল্পনাই হবে। নয়তো অটবী এখানে আসবে কোত্থেকে?

ভাবনা অকূল পাথারেই অটবী থমথমে গলায় প্রশ্ন ছুঁড়লো, “এখন কি ভেতরেও ঢুকতে দেবেন না? এভাবে সামনে সং সেজে দাঁড়িয়ে আছেন কেন?”

নাহ্! স্বপ্নের অটবী মিষ্টি করে কথা বলছিল। এ মেয়ে স্বপ্ন হতেই পারে না! তবে কি বাস্তব? ত্রিস্তান আস্তে করে পলক ফেললো।
—“তুমি সত্যি?”

জবাব পাওয়া গেল না। অটবী কেমন কঠিন করে চেয়ে আছে, “এখনো সরছেন না কেন? ঢুকতে দেবেন না তাহলে?”
লহমায় ত্রিস্তান সরে দাঁড়ালো। তার মনে হচ্ছে, তার মাথায় গুটিকয়েক গাজুরিয়া মাইর পরেছে। কি তীব্র ব্যথা! সব কি ভীষণ উলোটপালোট!

অটবী গিয়ে সোফায় দ্বিধাহীন ভাবে বসলো। পরনের শাড়ি একটু ভিঁজেছে। নিচের পাড়টায় অল্প বালি ভাব জমিয়েছে। সেই জমানো বালিটা হাত দিয়ে একটু ঝেরে নিলো সে। ততক্ষণে ত্রিস্তান গ্লাস ভর্তি পানি এনে এগিয়ে দিয়েছে অটবীর পানে। অটবী নিলো গ্লাসটা। তার কাঠকাঠ হয়ে থাকা গলা ভেঁজাতে এই পানির খুব প্রয়োজন ছিল।

—“তুমি এখানে কেন এসেছো, অটবী?”
পানিটুকু পান করে সশব্দে গ্লাসটা টেবিলে রাখলো অটবী। গম্ভীর কণ্ঠে বললো, “আমার বিয়ে ভেঙ্গে গেছে।”

ত্রিস্তান সামনাসামনি সোফায় বসেছে। দুজনের চোখ দুজনের মধ্যিখানে। অটবী স্পষ্ট দেখলো, ত্রিস্তান বাম চোখটা খুব সামান্য লাফিয়েছে। অথচ চেহারা ভাবাবেগ শূন্য! লোকটা কি বিশ্বাস করেনি?
—“আপনি কিছু বলবেন না?”
—“কি বলবো?”

নির্লিপ্ত কণ্ঠ। অটবীর সহ্য হলো না, “আমার বিয়ে ভেঙ্গে গেছে ত্রিস্তান! আপনার কিছুই বলার নেই?”
ত্রিস্তানের দৃষ্টি অটবী থেকে সরে এখন পানির গ্লাসে। ঠিক যেখানটা অটবী ঠোঁট ছুঁয়েছিল? সেখানে লিপস্টিকে স্পষ্ট দাগ! ঠোঁটের নিঁখুত ভাঁজ! নাহ্, গ্লাসটা ধোঁয়া যাবে না। কোথাও গোপন করে লুকিয়ে রাখতে হবে।
গ্লাসের দিকে নজর রেখেই ত্রিস্তান বললো, “তোমার এখানে আসা উচিত হয়নি, অটবী। চলো, বাসায় পৌঁছে দিচ্ছি। আর এমন পাগলামি করবে না।”

যেন একটুখানি হাওয়া বইছিল। হঠাৎ করেই ঝড় শুরু হলো। সেই ঝড়ে নিজের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললো অটবী। ঠোঁট কাঁপলো! চোখের পাতা পলক ফেললো! নিমিষেই উঁচু গলায় চেঁচিয়ে উঠলো সে, “আমি পাগলামি করছি? তাহলে আপনি কি করছেন? ঘুমের ঔষধ খেয়েছেন না, ত্রিস্তান? কেন খেয়েছেন? বিন্দাস একটা লাইভ লিড করছেন! যাকে তাকে ভালোবাসার বুলি বলে কয়ে হারিয়ে যাচ্ছে! আপনার তো কষ্ট থাকার কথা না। তাহলে কার কষ্টে ঘরবন্দি ছিলেন? আমার? কই! আপনি তো আমাকে খেলনা ভাবেন। যেমন ইচ্ছে ব্যবহার করে ফেলে দিয়েছেন। তাহলে? খেলনার জন্য কষ্ট লাগছে?”

এক ধরণের অদ্ভুত গাম্ভীর্য নিয়ে অটবীকে কিছুক্ষণ একাধারে দেখলো ত্রিস্তান। নয়নে গভীরতা লুকোচুরি করে অশান্ত গলায় বললো, “বুঝিনি অটবী, তোমাকে ভুলে ভালোবেসে ফেলবো।”

অটবীর উগ্র ভাবটা কোথায় যেন হারালো। আর ফিরে এলো না। এতে বেশ বিরক্তই হলো সে। লোকটা তাকে এত জ্বালিয়েছে, অথচ সে একটু উঁচু গলায় কথা বলতে পারছে না? কেন?
ঠোঁট কিঞ্চিৎ ফাঁক করে ক্লান্ত নিশ্বাস ছাঁড়লো অটবী। দৃঢ় কণ্ঠে বললো, “চলুন, বিয়ে করবো।”

ত্রিস্তান ভ্রু কুঁচকালো। চমকটা একটু জোরেসরেই লেগেছে। অবাক কণ্ঠে সুধালো, “কি বললে?”
—“বিয়ে করবো। এক্ষুণি।”
—“সম্ভব না, অটবী।”
—“কেন সম্ভব না? এত… এত পাষাণ কেন আপনি?”
কান্নাটা আটকানো গেল না। বহু কষ্টে চেপে রাখা অশ্রুকণা বেরিয়ে এলো নিঃশব্দে। আর কত নিচে নামবে অটবী? আর কত বেহায়া হবে? কিসের এত বাঁধা? ত্রিস্তান কেন তাকে একটু কাছে টানছে না? অথচ উত্তরটা বরাবরের মতোই সাদা কালিতে অদৃশ্য।

ত্রিস্তানের মনে হলো, সে ক্রমশই দূর্বল হয়ে উঠছে। ভেতরে কি একটা যেন বাজেভাবে ছিঁড়ে যাচ্ছে। দমবন্ধ লাগছে। এই মেয়েটা… এই মেয়েটা তার প্রাণ। ইচ্ছে করছে এক্ষুণি শক্ত করে জড়িয়ে ধরে বুকের সাথে পিষে ফেলতে। অথচ অদৃশ্য বাঁধায় শিকল বন্ধী। ত্রিস্তান শিকলটা শক্ত করে ধরলো। শেষ চেষ্টা করে বললো, “তুমি আমার সঙ্গে কখনো ভালো থাকবে না, অটবী। আমি অনেক খারাপ।”
—“আমার সমস্যা নেই।”
—“তুমি আবেগে ভুল সিদ্ধান্ত নিচ্ছো।”

অটবী রাগলো এবার। লোকটা এখনো তাকে দূরে সরিয়ে দিচ্ছে। তার আবেগের বয়স আছে এখনো?
ক্ষিপ্ত গলায় বললো, “আপনাকে কে বলেছে এটা আবেগ? আমার অনুভূতি আপনি আমার থেকে বেশি জানেন?”

শক্ত টানে শিকলটা ছিঁড়ে গেল। তৃষ্ণা, ধৈর্য সব ফুরালো। ত্রিস্তান মাথা ঝুঁকিয়ে হাসলো ক্ষীণ। মুচকি হাসি। এগিয়ে এসে অটবীর হাত ধরে, অটবীকে অবাক করে দিয়ে বললো, “চলো, বিয়ে করবো।”

বিয়েটা হয়ে গেল তক্ষুণি। এই মাখো মাখো প্রেম সুর নিয়ে আসা শ্রাবণ ক্ষণেই। তখন বোধহয় এগারোটা পেরিয়েছে। দোকানপাট সব বন্ধ হওয়ার জোগাড়। আধঘণ্টা তল্লাশি চালিয়ে শহরের মাথায় একটা কাজী অফিস খোলা পাওয়া গেল। কাজীর তখন ঘুমের সময়। তবুও টাকার চাকচিক্য ঝলকে সে রাজী না হয়ে পারে নি। স্বাক্ষী হিসেবে ত্রিস্তানের দুজন বন্ধুও এলো। বেশভূষায় আধুনিক, রুচিশীল। ত্রিস্তানের এমন বন্ধুও আছে? কই, আগে তো কখনো দেখেনি।

বৃষ্টি তখন নেই। অটবী রাস্তার পাশের ভেঁজা বেঞ্চে চুপচাপ বসে আছে। দৃষ্টি, দূরের ত্রিস্তানের পানে। লোকটা তার বন্ধুদের বিদায় জানিয়ে এদিকেই আসছে। ক্রমশই এত কাছে চলে আসছে! মনে হচ্ছে তাদের মাঝের যোজন যোজন দূরত্বটা কমে ছোট হয়ে গেছে। একদম ছোট!
ত্রিস্তান ধপ করে অটবীর পাশে এসে বসলো। আকাশের দিকে মুখ উঁচিয়ে, দারুণ নিশ্বাস ফেলে বললো, “তুমি কিন্তু আর আফসোস করতে পারবে না, অটবী।”
অটবীর ধীর উত্তর, “আচ্ছা।”
—“তুমি এখন সোজা বাসায় যাবে। আমি পৌঁছে দেব।”
—“ঠিকাছে।”
—“বাসায় কেউ জানে তুমি আমার কাছে এসেছো?”
—“নলী আর পৃথা জানে। ওরা ওদিকটা সামলাবে।”

ত্রিস্তান একটু থামলো। একটু একটু করে ঝুঁকে পরলো অটবীর দিকে। ছোট্ট, নরম কাঁধে মাথা রাখলো। ফিসফিসিয়ে বললো, “আমি শুধু ভুল করেই যাচ্ছি, অটবী।”

পরপরই অটবী অনুভব করলো, তার গলার মধ্যিখানে এক অধৈর্য ঠোঁটের শক্ত চুমু।

_________________

চলবে~
ঈশানুর তাসমিয়া মীরা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here